• সোমবার   ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২ ||

  • আশ্বিন ১০ ১৪২৯

  • || ২৮ সফর ১৪৪৪

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
বাংলাদেশ বিরোধী অপপ্রচারের সমুচিত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী ওয়াশিংটন পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী ‘জাতিসংঘ অধিবেশনে সক্রিয় অংশগ্রহণ বাংলাদেশের অবস্থান আরও সুদৃঢ় করেছে’ জাতিসংঘে আজ বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু আজ বাংলাদেশি অভিবাসী দিবস জলবায়ু ইস্যুতে ধনী দেশগুলোর অবদান ‘দুঃখজনক’: প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ সব সময় জনগণের ভোটেই ক্ষমতায় আসে: প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ বিশ্বশান্তি ও মানবমুক্তির দিকদর্শন: আ.লীগ জাতিসংঘে ১৫ আগস্টের কথা স্মরণ করলেন প্রধানমন্ত্রী বাণিজ্য সহযোগিতা জোরদারে ঢাকা-নমপেন এফটিএ চুক্তিতে সম্মত দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে যুক্তরাষ্ট্রের জন্য নতুন অর্থনৈতিক অঞ্চল বাইডেনের অভ্যর্থনায় প্রধানমন্ত্রীর যোগদান রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে জাতিসংঘকে কার্যকর ভূমিকা রাখার আহ্বান যুদ্ধ বন্ধ করে শান্তি প্রতিষ্ঠা করুন: প্রধানমন্ত্রী বাইডেনকে বাংলাদেশে আসার আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন : জাতিসংঘের বলিষ্ঠ ভূমিকা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী চলমান বৈশ্বিক সংকট নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর উদ্বেগ জাতিসংঘে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর আলোকচিত্র প্রদর্শন সাফজয়ী ফুটবলার রূপনা চাকমার জন্য রাঙ্গামাটিতে ঘর নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর নিষেধাজ্ঞা-পাল্টা নিষেধাজ্ঞা বিশ্বজুড়ে গভীরভাবে আঘাত করছে: প্রধানমন্ত্রী

সাধারণ মেইলেও থাকতে পারে বিপদ

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২  

হ্যাকারদের জন্য এখন কোথাও রক্ষা নাই। সব জায়গায় জাল পেতে রেখেছে। প্রযুক্তি যতই উন্নত হোক না কেন। সাইবার অপরাধীরা ঠিকই নিজেদের পথ বের করে নিচ্ছে। মেইল এবং সোশ্যাল মিডিয়া এদের সবচেয়ে বড় জায়গা। যেখানে বিভিন্নভাবে ম্যালওয়্যার ছড়িয়ে দেয়। এরপর ব্যবহারকারীর ডিভাইসের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বিভিন্নভাবে তাদের বিপদে ফেলে।

সাইবার অপরাধীরা সাধারণ মানুষকে ‘টার্গেট’ করার জন্য একের পর এক কৌশল বের করে ফেলছে। প্রতারকরা প্রথমেই টার্গেটের তথ্য হাতিয়ে নেয়। তারপর তাঁদের কাছ থেকে অর্থ চুরি করে, একে ‘ফিশিং’ বলা হয়। ফিশিং হল এক ধরনের সাইবার আক্রমণ যেখানে হ্যাকাররা গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য যেমন ব্যক্তিগত ব্যাঙ্কের বিশদ বিবরণ, ডেবিট কার্ডের নম্বর, পিন বা পাসওয়ার্ড হাতিয়ে নেয়।

সাধারণ দেখতে মেইলেও থাকতে পারে হ্যাকারদের ফাঁদ। কারণ হ্যাকাররা ফিশিং আক্রমণের জন্য অনেক সময় মেইলের আশ্রয় নেয়। তবে খুব সহজেই ভুয়া মেইল বা হ্যাকারদের ফাঁদ কি না বুঝতে পারবেন। যেমন- কথা বলার ভঙ্গিতে কোনো রকম অস্বাভাবিকতা থাকলে, ব্যাকরণগত ভুল বা বানান ভুল, ই-মেল ঠিকানা, লিঙ্ক এবং ডোমেইন নামে থাকা ভুল, কোনো রকম হুমকি বা জরুরি বলে দাবি করা মেইল দেখলে সতর্ক হোন।

এসব মেইলে আপনার কাছে কোনো পাসওয়ার্ড, পিন নম্বর, ইউজার আইডি বা কোনো স্পর্শকাতর বা গোপন তথ্য চাওয়া হতে পারে। এজন্য মেইলে এধরনের জরুরি বার্তা কখনোই কাউকে দেওয়া উচিত হয়। কোনোভাবে আপনার ই-মেইলের অ্যাক্সেস হ্যাকার পেয়ে গেলে আপনার বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে।

কোনো ই-মেলে ভেরিফায়েড ইওর অ্যাকাউন্ট বা লগইন লেখা থাকলে সেসব লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। পরিবর্তে, সর্বদা একটি নতুন উইন্ডো খুলতে হবে এবং যে কোনো অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে ইনস্টিটিউটের অফিসিয়াল হোম পেজ ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়া কখনোই অজানা বা সন্দেহজনক কোনো মেইলে আসা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। এমন কোনো লিঙ্কে ক্লিক করলে বা স্প্যাম মেইলের উত্তর দিলে যে কোনো ব্যক্তির ই-মেল আইডি শনাক্ত করে ফেলতে পারে হ্যাকাররা।