• সোমবার   ২৭ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৩ ১৪২৯

  • || ২৬ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
স্বপ্নজয়ের পর অপার সম্ভাবনার হাতছানি পদ্মা সেতু: প্রধানমন্ত্রীকে এশিয়ার পাঁচ দেশের অভিনন্দন ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশে কাজ করছে সরকার পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: রাষ্ট্রপতি মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণাঞ্চলের উন্নতির জন্য নিজের জীবন দেয়ার ওয়াদা- প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর ওপর হাজারো মানুষের ঢল ‘আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই’ শিবচরের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ: পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন কংক্রিটের অবকাঠামো নয়, পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার: প্রধানমন্ত্রী এ সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী ৪২টি পিলার বাংলাদেশের আত্মমর্যাদার ভিত: প্রধানমন্ত্রী ‘সর্বনাশা’ থেকে ‘সর্বআশা’ পদ্মা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু পদ্মার বুক চিরে বাংলাদেশের ‘সাহস’ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেশের জন্য গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক দিন

যেসব কারণে কান বন্ধ হয়

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২২  

সাধারণত হাঁচি, কাশি, সর্দি লাগলে কানের সঙ্গে নাক এবং গলার যোগাযোগকারী টিউব বন্ধ হয়ে যায়। এতে বাইরের পরিবেশের সঙ্গে ভেতরের যোগাযোগ বিঘ্নিত হয়। এ ছাড়া শ্বাসনালির ওপরের অংশে জীবাণু সংক্রমণ বা প্রদাহও কানের সমস্যার কারণ হতে পারে।

নাকের সঙ্গে গলা ও কানের সংযোগ স্থাপনকারী অডিটরি টিউব মধ্যকর্ণ ও আবহাওয়ার বায়ুচাপের ভারসাম্য রক্ষা করে থাকে। কোনো কারণে এই টিউব বন্ধ হলে বা ঠিকঠাক কাজ না করলে কানের মধ্যে পানি জমে প্রদাহ দেখা দিতে পারে।

কারা আক্রান্ত হন

স্কুলগামী বাচ্চাদের এ সমস্যা বেশি দেখা দেয়। তা ছাড়া যেকোনো বয়সের মানুষজনও আক্রান্ত হতে পারেন। ঘনঘন সর্দি-কাশি-নাক বন্ধ, প্রায়ই অ্যালার্জিজনিত নাকের প্রদাহ, ক্রনিক টনসিলের ইনফেকশন, শিশুদের ক্ষেত্রে নাকের পেছনে এডিনয়েড নামক লসিকা গ্রন্থি বড় হয়ে যাওয়া, নাকের হাড় বাঁকা হওয়া, ভাইরাল ইনফেকশন ছাড়াও নাকের পেছনে ন্যাসোফ্যারিংস নামক স্থানে কোনো টিউমার হলে এ রোগ হতে পারে।

যেসব লক্ষণ দেখা দেয়

কানের মধ্যে পানি জমে প্রদাহ হলে সর্দি-কাশির সঙ্গে হঠাৎ কান বন্ধ হয়, ব্যথা অনুভূত হয়। কানের মধ্যে ফড়ফড় অথবা ভোঁ ভোঁ শব্দ হয়। কানে কম শোনা যায়। এমনকি ইনফেকশন বেশি হলে পর্দা ফুটো হয়ে কান বেড়ে রক্তমিশ্রিত পানি কিংবা পুঁজ আসতে পারে।

এ ধরনের সম্যা দেখা দিলে কালবিলম্ব না করে নাক-কান-গলা চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া অত্যাবশ্যক।

কান বন্ধের চিকিৎসা

কান পরীক্ষার মাধ্যমে সাধারণত অ্যান্টি-হিস্টামিন; বয়স উপযোগী নাকের ড্রপ; প্রয়োজনে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে থাকেন চিকিৎসকরা। ব্যথা কমাতে খেতে পারেন প্যারাসিটামলজাতীয় ওষুধ। আপনি যদি চুইংগাম খেতে পছন্দ করেন, তাহলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে আয়েশ করে চিবোতে থাকুন চুইংগাম, যা চিকিৎসার অংশ হিসেবে কানের বন্ধভাব দূর করার খুব দ্রুত এবং সহজতর পদ্ধতি।

এরপরও যদি ১২ সপ্তাহে সমস্যার সমাধান না হয়, তখন ছোট একটি অপারেশনের মাধ্যমে কানের পর্দা ফুটো করে তরল পদার্থ বের করে দেন নাক-কান-গলা সার্জনরা। যাকে বলে মাইরিংগোটমি। সুতরাং এ ধরনের সমস্যাকে ছোটখাটো ভেবে অবহেলা করা উচিত নয়।