• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে

ব্যাটারদের ব্যর্থতায় শেষ ওভারে রোমাঞ্চ দেখলেন দর্শকরা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২৪  

শেষ ওভারে শ্বাসরুদ্ধকর এক ম্যাচ জিতলো বাংলাদেশ। যেন প্রবল কোনও প্রতিপক্ষের বিপক্ষে জীবন বাজি রেখে লড়াই। অথচ দলটি জিম্বাবুয়ে! যারা বিগত কয়েক আসর ধরে আইসিসি ইভেন্টে খেলার সুযোগ পাচ্ছে না। তাদের বিপক্ষে কঠিন লড়াই শেষে বাংলাদেশ চতুর্থ টি-টোয়েন্টিতে ৫ রানের জয় পায়। শেষ ওভারে জিম্বাবুয়ের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ১৪ রানের। প্রথম তিন বলে সাত রান নিয়ে ম্যাচ জমিয়ে ফেলেছিল সফরকারীরা। ব্লেসিং মুজারাবানি বোকামি করে স্ট্যাম্পিং না হলে হয়তো জয় নিয়েই মাঠ ছাড়তে পারতো জিম্বাবুয়ে।

চট্টগ্রামে তিন ম্যাচ জিতে সিরিজ নিশ্চিত করলেও স্বাগতিকদের ব্যাটিং নিয়ে বিস্তর সমালেচনা হয়েছিল। তাই তো মিরপুরে অ্যাপ্রোচে বদল এনে খেলতে নেমেছিল বাংলাদেশ। শুরুটা ভালোই করেছিল। টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দারুণ শুরু করেন তানজিদ হাসান তামিম ও সৌম্য সরকার। চোট থেকে ফিরে সৌম্যর ব্যাটিংয়ে ছন্দ খুঁজে পেতে কিছুটা কষ্ট হলেও জুনিয়র তামিম ছিলেন সাবলীল। তার পাওয়ার হিটিংয়ে বাংলাদেশ দল তৃতীয়বারের মতো টি-টোয়েন্টিতে শতরানের জুটি গড়ে।

উদ্বোধনীতে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ জুটি লিটন দাস ও রনি তালুকদারের করা ১২৪ রানের। ২০২৩ সালের মার্চে চট্টগ্রামে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে সেই কীর্তি ছিল।

সৌম্যকে একপ্রান্তে রেখে আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে ১০১ রানের জুটি গড়ে আউট হন তানজিদ। আউট হওয়ার আগে ৩৪ বলে তুলে নেন নিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ফিফটি। তবে শেষ পর্যন্ত ৩৭ বলে সাত চার ও ১ ছক্কায় ৫২ রানের ইনিংস খেলে সাজঘরে ফেরেন তিনি। এই ব্যাটারের আউটের পরই ছন্দ হারায় বাংলাদেশ। এরপর একে একে বিদায় নেন সৌম্য, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাকিব আল হাসানরা। ইনজুরি থেকে ফিরে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে একেবারে খারাপ করেননি সৌম্য। জংবের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফেরেন ৩৪ বলে ৩ চার ও ২ ছয়ে ৪১ রানে।

এ দুই ব্যাটার বাদে কেবল তাওহীদ হৃদয় (১২) কেবল দুই অঙ্কের ঘরে রান করতে পেরেছেন। ১২১ রানে তৃতীয় উইকেট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন হৃদয়। এরপর ১৫তম ওভারে সাকিব ও শান্তকে ফেরান ব্রায়ান বেনেট। দলীয় ১৩০ রানে সাজঘরে ফেরেন জাকের আলী অনিক। একই রানে ওই ওভারেই রানআউট হন তাসকিন। এর পর ১৩২ রানের সময় ফিরে যান রিশাদ হোসেনও। নবম উইকেট হিসেবে তানজিম হাসান সাকিব ফেরেন দলের ১৩৮ রানে। আর ইনিংসে ১ বল বাকি থাকতে মোস্তাফিজুর রহমানের উইকেট পতনে বাংলাদেশের ইনিংস থামে ১৪৩ রানে। বিনা উইকেটে ১০১ রান থেকে ১৪৩ রান হতেই বাংলাদেশ হারায় সবকটি উইকেট। মানে ৪২ রানে দশ উইকেট হারায় স্বাগতিকরা।  

জিম্বাবুয়ের বোলারদের মধ্যে জংবে ৩টি এবং বেনেট ও এনগারাভার ২টি করে উইকেট নিয়েছেন।

সহজ লক্ষ্যে খেলতে নেমে জিম্বাবুয়ের শুরুটাও ভালো হয়নি। শুরুতেই তাসকিনের আঘাতে চাপে পড়ে যায় সফরকারীরা। দলীয় ২৮ রানের মধ্যে বেনেট ও সিকান্দার রাজাকে ফিরিয়ে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ এনে দেন তাসকিন। একপ্রান্ত আগলে রেখে ব্যাটি করা ওপেনার তাদিওয়ানাশে মারুমানিকে ফেরান সাকিব। এরপর চতুর্থ উইকেটে ক্লাইভ মাদান্দে ও জোনাথন ক্যাম্পবেল ২৫ রানের জুটি গড়েন। ক্যাম্পবেল আক্রমণাত্মক ব্যাটিংয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান। ২৭ বলে তার ৩৭ রানের ইনিংস দলকে জয়ের স্বপ্ন দেখিয়েছে।

শেষ দুই ওভারে জিম্বাবুয়ের জিততে প্রয়োজন ছিল ২১ রান। তবে ১৯তম ওভারে মোস্তাফিজের দারুণ বোলিংয়ে জিম্বাবুয়ে তুলতে পারে ৭ রান, সাথে হারায় একটি উইকেট। আইপিএলের দারুণ পারফরম্যান্স এই ম্যাচেও অব্যাহত রেখেছেন বাঁহাতি এই পেসার।

মোস্তাফিজের পর অধিনায়ক শান্ত শেষ ওভারে সাকিবের হাতে বল তুলে দেন। ব্যাটিংয়ে মাত্র ১ রান করে আউট হলেও বল হাতে একেবারে খারাপ করেননি বাঁহাতি এই স্পিনার। শেষ ওভারে জয়ের আটকাতে হতো ১৪ রান। একটি ছক্কা খেলেও দুটি উইকেট নিয়ে এক বল আগেই দলের জয় নিশ্চিত করেন সাকিব। অবশ্য ১৯ রানে তিন উইকেট নিয়ে দারুণ বোলিং করে দলের জয়ে অবদান রেখে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতেছেন বাঁহাতি পেসার মোস্তাফিজ।

ম্যাচটি জিততে এতটা সংগ্রাম করতে হতো না বাংলাদেশের। যদি ক্যাচ না ছাড়তো। অন্তত চারটি ক্যাচ মিস করেছেন বাংলাদেশের ফিল্ডাররা। জিম্বাবুয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ইনিংস খেলা ক্যাম্পবেলের ক্যাচটি শুরুতে ধরতে পারলে ম্যাচটি আরও আগেই শেষ হয়ে যায়। কিন্তু বাংলাদেশের ব্যাটারদের বাজে পারফরম্যান্সের পর ফিল্ডারদের পিচ্ছিল হাত হারের মুখে ফেলে দিয়েছিল স্বাগতিকদের।

সামনেই বিশ্বকাপ। তার আগে বাংলাদেশের ব্যাটিং-ফিল্ডিংয়ের পারফরম্যান্স দুশ্চিন্তা বাড়াচ্ছে।