• বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪৩১

  • || ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন, তা আদালতে প্রমাণিত: প্রধানমন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না’ অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছি সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে: প্রধানমন্ত্রী অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

বাড়ছে আলোক দূষণ, আড়ালে চলে যাচ্ছে ছায়াপথ

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৬ জুন ২০২৩  

দিনে দিনে বাড়ছে আলোক দূষণ। ফলে চোখের আড়ালে চলে গেছে ছায়াপথ। হারিয়ে যাচ্ছে আকাশের তারা। গবেষকরা জানান, এভাবে দূষণ চলতে থাকলে ২০ বছরের মধ্যেই রাতের আকাশে আর তারার দেখা মিলবে না। আলোক দূষণ পাল্টে দিচ্ছে মানুষসহ প্রাণীজগতের জীবনধারাও। ঘুমে ব্যাঘাতের পাশাপাশি বাড়ছে স্থুলতা ও ডায়াবেটিস। পাখি হারাচ্ছে পথ, বাধাগ্রস্ত হচ্ছে কচ্ছপের প্রজনন।

জ্যোৎস্নামাখা রাতের আকাশে প্রেমিকাকে ভালোবাসার বার্তা পাঠানোর এমন সুযোগ একসময় আর থাকবে না। বিলীন হচ্ছে তারাভরা সেইসব রাত।

আধুনিক সভ্যতার অভিশাপ- তারাহীন রাতের মূলে আলোক দূষণ বা পৃথিবীর বুকে মাত্রাতিরিক্ত কৃত্রিম আলোর উপস্থিতি।
সম্প্রতি সংবাদ মাধ্যম গার্ডিয়ানে প্রকাশিত গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, আলো নিঃসরণকারী ডায়োড- এলইডির ব্যবহার, রাস্তা-ভবন-অফিস, বিলবোর্ডসহ বিভিন্ন স্থাপনায় অলোকসজ্জা ও সীমাহীন বাহ্যিক আলোর ব্যবহার রাতের আকাশকে উজ্জ্বল করছে।

গবেষণা বলছে, দূষণের কারণে ২০১৬ সাল থেকে পৃথিবীর এক-তৃতীয়াংশ মানুষ খালি চোখে আকাশগঙ্গা ছায়াপথ দেখতে পাচ্ছে না। প্রতি বছর ১০ শতাংশ হারে উজ্জ্বল হচ্ছে রাতের আকাশ।

জার্মানির আইফেল জাতীয় পার্কে স্বাভাবিক রাতে যেখানে ৩ থেকে সাড়ে ৪ হাজার তারা দেখা যেতো, এখন সেখানে বড়জোর ১৮শ’ তারার দেখা মেলে। গবেষকরা জানান, এভাবে দূষণ চললে একসময় সবচে উজ্জ্বল নক্ষত্রও দৃষ্টির আড়ালে চলে যাবে।

আলো দূষণে শুধু তারারাই অদৃশ্য হচ্ছে না, মানুষসহ উদ্ভিদ ও প্রাণী জগতেও ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে। নীল আলোর এলইডি লাইটে মানুষের মেলাটোনিন হরমোন নিঃসরণ কমে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। বাড়ে ডায়াবেটিস ও স্থুলতা।

কৃত্রিম আলোয় দিকভ্রান্ত পাখিরা। গবেষণা বলছে, আলোর প্রভাবে উত্তর আমেরিকায় প্রায় ২শ’ প্রজাতির পাখি পথ পরিবর্তন করেছে। আলোকিত সাগর তীরে বাধাগ্রস্ত হয় কচ্ছপের প্রজনন।

এ অবস্থায় আলো দূষণ কমাতে কমিটি তৈরি করে অপ্রয়োজনীয় আলোর ব্যবহার কমানো, স্মার্ট আলোর ব্যবস্থা করাসহ বিভিন্ন দিকনির্দেশনা দিয়েছেন গবেষকরা।