• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে

সাগর তীরে দৃষ্টিনন্দন ‘অষ্টকোণা মসজিদ’

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  

 

কয়েক শ’ গজ দূরেই কৃষ্ণসাগরের অথৈ নীলাভ জলরাশি। সাগরের শোঁ শোঁ আওয়াজ মসজিদ থেকে অনায়াসেই শোনা যায়। নির্মাণশৈলীর অভিনবত্বের পাশাপাশি সৈকতের কিনারায় হওয়ায় মসজিদটি সবদিক থেকেই নয়নাভিরাম। দর্শনার্থী ও পর্যটকদের বেশ টানে মসজিদের সৌন্দর্য-আভা।

স্থানীয়দের কাছে মসজিদটি ‘অষ্টকোণা মসজিদ’ নামে পরিচিত। এমন দৃষ্টিনন্দন ও মুগ্ধকর দৃশ্যের মসজিদ তুরস্কের পদুযজে প্রদেশে অবস্থিত। এটির অফিসিয়াল নাম ‘আকচাকোজা মার্কাজ মসজিদ’। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি স্থাপত্যশৈলীর জন্য মসজিদটি পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে। তুর্কি যাযাবর উপজাতিগুলোর ঐতিহ্যবাহী তাবু ‘ওতা’র নকশা অবলম্বনে মসজিদটি নির্মাণ করা হয়েছে।

১৯৮৯ সালে মসজিদটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়। তুরস্কের বিখ্যাত শিল্পী এরগুন সুবাশির নকশা করেন। দীর্ঘ পনের বছর পর ২০০৪ সালে মুসল্লিদের মসজিদটি খুলে দেওয়া হয়।
সেলজুক যুগের ঐতিহ্য-শিল্প তুলে ধরতে তখনকার পুরাতন তাবুর নকশা অবলম্বন করে মসজিদটির নকশা করা হয়েছে। মসজিদটির ভেতরের অংশের আয়তন এক হাজার ৩০০ বর্গ কিলোমিটার। বাইরের আঙ্গিনার আয়তন ৫০০ মিটার। মসজিদের দুইটি অংশ মিলে ৫০০ হাজার মুসল্লি অনায়াসে নামাজ পড়তে পারেন।

আকচাকোজা মারকাজ মসজিদের ভবন ও সহায়তা ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট মুরাদ বেইয়িক বলেন, এমন মসজিদ শুধু তুরস্কে বিরল নয়। বরং পুরো বিশ্বে এমন স্থাপত্যশৈলীতে নির্মিত মসজিদ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। ইতোমধ্যে এটি পর্যটকদের বেশ আকর্ষণ করেছে। আর শুধু মুসলিমরা নয়, বরং অন্য ধর্মের মানুষও এটি পর্যবেক্ষণে আসছে।

বেইয়িক আরো বলেন, মসজিদের ভেতরে কোনো পিলার বা স্তম্ভ নেই। ফলে মুসল্লি কিংবা দর্শক যেকোনো দরজা দিয়ে প্রবেশ করলেই মসজিদের অভ্যন্তরের পুরোটা দৃশ্য দেখতে পাবে। মেঝে থেকে মসজিদের ছাদের দূরত্ব বেশ উঁচুতে। ফলে এটা আলাদা একটা সৌন্দর্য সৃষ্টি করেছে।