• সোমবার ২৪ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৯ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায়

মুলাদী পুলিশ পাচ্ছে নিজস্ব ভবনে, আসামিরা চিকিৎসা পাবে থানায়

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩  

তিন বছর পর ভাড়া বাসা থেকে নিজস্ব ভবনে যাচ্ছে বরিশালের মুলাদী থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে নিজস্ব ভবনে কার্যক্রম শুরু করবেন এই থানার পুলিশ সদস্যরা। নতুন ভবনে রয়েছে চিকিৎসা কক্ষ থেকে শুরু করে নারী-পুরুষ পুলিশ সদস্যদের থাকার স্থান। রয়েছে নারী-পুরুষ পৃথক হাজতখানাও। এখন থেকে থানায় চিকিৎসা পাবেন আসামিরা।

নিজস্ব ভবনে কার্যক্রম শুরু হলে উপজেলার ২ লাখ বাসিন্দাকে সেবা দেওয়া সহজ হবে বলে জানিয়েছেন মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তুষার কুমার মন্ডল। তিনি বলেন, উপজেলার পৌরসভার তেরচর এলাকায় ২ একর ৬০ শতাংশ জমির ওপর ১৮৯৯ সালে মুলাদী থানা প্রতিষ্ঠিত হয়। পুরনো হয়ে পড়ায় ওই ভবনটিকে বসবাসের অযোগ্য ঘোষণা করা হয়। এরপর পৌরসভা এলাকায় একটি বহুতল বাসা ভাড়া নিয়ে চলছিল থানার কার্যক্রম। এতে ভাড়া বাসায় হাজতি রাখা থেকে শুরু করে সেবা দিতে সমস্যায় পড়তে হয়েছে। নতুন ভবন উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে সব ধরনের সমস্যার সমাধান হবে। সেইসঙ্গে মুলাদী উপজেলার দুই লাখ বাসিন্দাকে সেবা দেওয়া সহজ হবে।

ওসি আরও বলেন, সাত কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে চারতলা ভবনের কাজ শেষ হয়েছে। ভবনের সামনের খোলা জায়গায় ফুলের বাগান করা হয়েছে। থানা প্রাঙ্গণকে আকর্ষণীয় করতে পুলিশ সদস্যরা আরও কাজ করবেন। ভবনের চারতলায় ৮০ জন পুরুষ পুলিশ সদস্য বাস করতে পারবেন। তিনতলার আটটি কক্ষে থাকবেন নারী পুলিশ সদস্যরা। পাশাপাশি নিচতলা ও দোতলায় থাকছে সেবা গ্রহণকারীদের অভ্যর্থনা কক্ষ, নারী-শিশু ও প্রতিবন্ধী ডেস্ক, সেবা প্রদান কক্ষ, পরিদর্শকদের জন্য পৃথক কক্ষ, উপপরিদর্শক কক্ষ, কনফারেন্স কক্ষ, বেতার কক্ষ, সেবা গ্রহণকারীদের জন্য ওয়েটিং রুম, অস্ত্রাগার, পর্যবেক্ষণ ও সাক্ষাতকার কক্ষ।
 
তিনি আরও বলেন, ভবনে নারী-পুরুষ আসামিদের জন্য পৃথক হাজতখানা রয়েছে। কিশোর-কিশোরীদের জন্য পৃথক হাজতখানা আছে। ওই চারটি কক্ষে ৭০-৮০ জন আসামিকে রাখা যাবে। থানা ভবনে থাকছে প্রাথমিক চিকিৎসা কক্ষ। হামলায় আক্রান্ত ব্যক্তি অথবা কোনও আসামি রক্তাক্ত কিংবা জখম হলে প্রাথমিক চিকিৎসা থানায় দেওয়া হবে। চিকিৎসা দেওয়ার জন্য যেসব ওষুধ প্রয়োজন, তা থাকবে সেখানে।
 
থানায় চিকিৎসা কার্যক্রম চালু হওয়ায় সরকার ও পুলিশকে সাধুবাদ জানিয়েছেন সুশাসনের জন্য নাগরিক জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রফিকুল আলম। তিনি বলেন, আগে থানায় চিকিৎসা কক্ষ ছিল না। সরকার এ ধরনের একটি উদ্যোগ নেওয়ায় সংগঠনের পক্ষ থেকে সাধুবাদ জানাই। এর সঙ্গে দেশের প্রতিটি থানায় একজন করে চিকিৎসক ও একজন নার্স রাখা খুবই প্রয়োজন। কারণ বিভিন্ন সময় হামলা-সংঘর্ষ এবং দুর্ঘটনায় আহতদের আশ্রয়স্থল হয়ে ওঠে থানা। তখন ওই চিকিৎসক তাদের জন্য অনেক উপকারে আসবেন। বিশেষ করে কোনও জায়গায় দুর্ঘটনা ঘটলে সেখানে সবার আগে পৌঁছায় পুলিশ। তাদের সঙ্গে একজন চিকিৎসক গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে আহতদের বড় হাসপাতালে পাঠালে মৃত্যুর হার কমে আসবে।
 
তিনি আরও বলেন, থানার চিকিৎসক শুধু আসামি ও বাদীদের উপকারে আসবে তা নয়, ওই চিকিৎসক থানায় কর্মরত পুলিশ কর্মকর্তা এবং সদস্যদেরও অনেক উপকারে লাগবে।