• সোমবার ২৪ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১০ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ

গরমে বাড়তে পারে কিডনির সমস্যা, কীভাবে সতর্ক থাকবেন?

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৬ মে ২০২৪  

হঠাৎ করেই কিডনির সমস্যা হতে পারে। বিশেষ করে অতিরিক্ত গরমে পানিশূন্যতার কারণে হঠাৎই বিকল হতে পারে কিডনি। মূলত তাপমাত্রা ও আবহাওয়ার কারণেই এমনটি ঘটে। চলুন জেনে নেওয়া যাক গরমে কিডনির কী কী সমস্যা হতে পারে, এর থেকে মুক্তির উপায়ই বা কী? কিডনি সাধারণত খনিজ পদার্থ ফিল্টার করে না। ফলে সেগুলো রক্তে থেকে যায়। তবে কিডনির ক্ষতি হলে সেগুলোও ফিল্টার হয়ে বাইরে বেরিয়ে আসে।

গ্লোমেরুলি নষ্ট হয়ে যায়

নানা কারণে কিডনির গ্লোমেরুলি নষ্ট হয়ে যায়। এর মধ্যে অন্যতম কারণ হলো গরম। গরমে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা দেখা দিতে পারে। যার ফলে সূক্ষ্ম রক্তজালিকা ছিঁড়ে যায়। এর ফলে প্রোটিনও মূত্র দিয়ে বেরিয়ে যেতে পারে।

উৎসেচক

শরীরের গুরুত্বপূর্ণ উৎসেচকও রক্তে মিশে থাকে। এই উৎসেচকগুলো নানা কাজে সাহায্য করে শরীরকে। এই বিলিরুবিন ও বিলিভারডিনের মতো এই উৎসেচকগুলো মূত্র দিয়ে বাইরে বেরিয়ে আসে।

ডিহাইড্রেশন

কিডনির সমস্যা হওয়ার একটি বড় কারণ ডিাহাইড্রেশন। এতে রক্তে পানির পরিমাণ কমে যায়। কিডনি তখন ঠিকভাবে কাজ করতে পারে না। কিছু ক্ষেত্রে কিডনি কাজ করা বন্ধও করে দেয়।

তাপমাত্রা

শরীরের ভেতরের তাপমাত্রা এমনতেই বাইরের থেকে বেশি। তার মধ্যে বাইরের তাপমাত্রা ৪০ হলে ভেতরের তাপমাত্রা আরও বাড়বে। বেশি তাপমাত্রায় শরীরের অঙ্গ বিকল হয়ে যায়। কিডনির ক্ষেত্রেও তেমনটাই হয়ে থাকে।

কী করলে সুস্থ থাকবে কিডনি?

>> পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করতে হবে। আসলে গ্লোমেরুলি আমরা দেখতে পাই না। কারণ এগুলো খুবই সূক্ষ্ম। তাই কখন এগুলো খারাপ হচ্ছে তা বোঝা অসম্ভব। কারণ এক্ষেত্রে কোনো লক্ষণও দেখা দেয় না। তাই শরীরে পানির অভাব ঘটতে দেওয়া যাবে না।

>> অপেক্ষাকৃত ঠান্ডা স্থানে বেশি থাকতে হবে। এতে শরীর কম গরম হবে। ফলে ভেতরের অঙ্গগুলোর তাপমাত্রা বেড়ে যাবে না।

>> পানি শরীরের তাপমাত্রা কমায়। একই সঙ্গে ডাবের পানি, আখের রস, দইয়ের ঘোল, লাচ্ছিও তাপমাত্রা কমাতে সাহায্য করে। তাই এগুলো পান করতে পারেন।