• শুক্রবার ২৪ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪৩১

  • || ১৫ জ্বিলকদ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ কেউ হতাশ হবেন না: প্রধানমন্ত্রী ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির আহতদের চিকিৎসায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নের জন্য কার্যকর জনসংখ্যা ব্যবস্থাপনা চান প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয় চমক রেখে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করল বাংলাদেশ শেখ হাসিনার তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর: প্রস্তুতি নিচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হজযাত্রীদের ভিসা অনুমোদনের সময় বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

পুনঃ রপ্তানিতে সম্ভাবনা দেখছে দেশ

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৮ এপ্রিল ২০২৪  

সম্প্রতি ভারতের সীমান্ত অঞ্চলগুলোর সঙ্গে সড়ক ও শুল্ক স্টেশনগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং কিছুটা অবকাঠামো উন্নয়নের ফলে বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চল, নেপাল ও ভুটানের পুনঃ রপ্তানি বাড়ছে। এর ফলে ভারত ও অন্য দেশ থেকে আনা পণ্য বাংলাদেশ হয়ে নেপাল ও ভুটান যাচ্ছে। ফলে খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করছেন, এই রপ্তানি বৃদ্ধি খুব একটা বেশি না হলেও এটি দেশের পুনঃ রপ্তানির বিপুল সম্ভাবনা তৈরি করছে।

অর্থনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করেন, এর মাধ্যমে খুব একটা বাণিজ্য না বাড়লেও প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের রপ্তানিকারকদের বাজারসংক্রান্ত সখ্য বাড়ছে।

ফলে আগামী রপ্তানি প্রবৃদ্ধিতে বড় ভূমিকা রাখতে পারে। এটা খুবই উৎসাহব্যঞ্জক। তবে সীমান্তবন্দর কাস্টমস স্টেশনগুলোতে উভয় দেশে সমান সুবিধা কার্যকর করতে হবে। এ ছাড়া ভারতের সঙ্গে অশুল্ক বাধা এবং মান সনদ নিয়ে জটিলতা দূর করা গেলে এর সুফল আরো কার্যকর হবে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) আন্তর্জাতিক পরিসংখ্যান মার্চ মাসের প্রকাশনায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। এতে দেখা যায়, বিদায়ি গত ২০২৩ পঞ্জিকা বর্ষের শেষ ছয় মাসে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১১২ শতাংশ। এখানে দেখা যায়, বাংলাদেশ থেকে গত ডিসেম্বর মাসে পুনঃ রপ্তানি হয়েছে ৯৪০ কোটি ৪০ লাখ টাকা, যা একই বছরের জুলাইয়ে ছিল ৪৪২ কোটি ৮০ লাখ টাকা। সেই হিসাবে পুনঃ রপ্তানিতে এ সময়ে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১১২ শতাংশ।

এ ছাড়া একই বছরের নভেম্বর মাসে পুনঃ রপ্তানি হয়েছে ২৩৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা। অক্টোবরে ৮৯৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা, সেপ্টেম্বরে ৫০২ কোটি ১০ লাখ টাকা ও আগস্টে ২৪৬ কোটি ১০ লাখ টাকা।

খাতসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা আরো বলেন, শুধু পুনঃ রপ্তানিই নয়; বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে উৎপাদন খাতে বিশাল কেন্দ্রবিন্দু হতে পারে। ভারতের বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশের সীমান্তসংলগ্ন প্রদেশগুলোতে বাংলাদেশে উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি করলে দেশটির সঙ্গে বিশাল বাণিজ্য ঘাটতি কমে আসতে পারে। এ জন্য ভারতের জন্য নির্ধারিত বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলগুলোতে বিনিয়োগ করা যেতে পারে।

এ ছাড়া ভারতের দিকে শুল্ক স্টেশনগুলোর স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করা। পণ্যের শেডগুলোতে দীর্ঘদিন ধরে খোলা আকাশের নিচে ফেলে না রেখে দ্রুত খালাসের উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে। এ ছাড়া বিএসটিআইয়ের মান সনদে গুরুত্ব দেওয়া এবং ব্যাকিং সুবিধাকে আরো সহজ ও গতিশীল করা।

এই প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অর্থনৈতিকবিষয়ক গবেষণা প্রতিষ্ঠান পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. মাশরুর রিয়াজ বলেন, একক পণ্যনির্ভর দেশের রপ্তানি খাত অনেক ঝুঁকি মোকাবেলা করে রপ্তানি প্রবৃদ্ধি ধরে রাখছে। তবে বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের পর ২০২৬ সাল পর্যন্ত প্রচলিত বাজারগুলোতে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়বে। এ সময় পুনঃ রপ্তানি বৃদ্ধিসহ পণ্য বহুমুখীকরণ বাজার বহুমুখীকরণ ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।

সেই হিসেবে সম্ভবানাময় হবে উদীয়মান অর্থনীতির দেশ নেপাল, ভুটান ও ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের প্রদেশগুলো। এগুলোকে আরো কার্যকর করতে হবে। ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সহজ হয় এমন উদ্যোগ নিতে হবে। বিশেষ করে পণ্যের মান সনদ জটিলতা এবং উভয় দেশের অবকাঠামো উন্নয়ন ও শুল্ক স্টেশনগুলোতে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা উন্নত করতে হবে।

পুনঃ রপ্তানি বাড়লে বাংলাদেশ রপ্তানির হাব হতে পারে বলে মনে করেন ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইয়ের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি মো. আমিন হেলালী। তিনি বলেন, এখান থেকে পুনঃ রপ্তানি হচ্ছে। সাউথ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ একটি রপ্তানি তথা বাণিজ্যিক হাব হতে পারে। এখান থেকে ভারতের সেভেন সিস্টারসহ মিয়ানমারের একটি অংশেও রপ্তানি করা সম্ভব।

তিনি আরো বলেন, ভারত-বাংলাদেশের দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্যে পুনঃ রপ্তানি একটি সম্ভাবনাময় খাত। এ জন্য দুই দেশের নীতিগত সংকট সমাধানে দুই দেশের আন্তরিক হতে হবে। এ ছাড়া ভুটান ও নেপালের বন্দরগত কিছু দুর্বলতা আছে। এই প্রেক্ষাপটে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা উপকৃত হবেন। বাংলাদেশে এনে পুনঃ রপ্তানি হলে দেশে কিছুটা মূল্য সংযোজন হবে।