• বুধবার ২৬ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪৩১

  • || ১৮ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন, তা আদালতে প্রমাণিত: প্রধানমন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না’ অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছি সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে: প্রধানমন্ত্রী অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রথমবার আশ্রয়ণ প্রকল্পে তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর আবাসন

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৯ মার্চ ২০২৩  

বিস্তীর্ণ সবুজের মাঠ। এর মাঝে সরকারের দেয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর। রঙিন চালের এসব ঘরেই নতুন করে বাঁচার স্বপ্ন বুনছেন তৃতীয় লিঙ্গের জনগোষ্ঠীর কয়েকজন। বাবা-মা ও পরিবার পরিজন থেকে বিচ্যুত এসব মানুষকে এখন থেকে কিছুদিন আগেও মানুষের বাড়িতে ভাড়া থাকতে খুঁজতে হতো ঘর। তবে তৃতীয় লিঙ্গের অবহেলিত এসব মানুষকে নানা অজুহাতে ঘর ভাড়া দিতে অস্বীকৃতি জানাত সবাই। ফলে অনিশ্চিত গন্তব্যে দিন কাটত তাদের।

তাদের সেই কষ্ট লাঘব হয়েছে সরকারের দেয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘরে। ফলে তৃতীয় লিঙ্গের এসব মানুষজন খুঁজে পেয়েছে তাদের নিজস্ব ঠিকানা।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার সিংড়া ইউনিয়নে গড়ে উঠেছে এই আবাসন। সেখানে ঠাঁই হয়েছে তৃতীয় লিঙ্গের ৫ জন মানুষের। এখন আর মানুষের বাড়িতে বসবাসের ঠাঁই খুঁজতে হবে না তাদের। নতুন বাড়ি পেয়ে স্বপ্নের ঘর সাজাতে ব্যস্ত তারা। পরিবর্তন করতে চান নিজেদের ভাগ্যের চাকা। এতে খুশি সমাজের অবহেলিত এই মানুষ।

উপজেলা প্রশাসনের তথ্য বলছে, ঘোড়াঘাট উপজেলার সিংড়া ইউনিয়নের কশিগাড়ী গ্রামে প্রথমবারের মতো ৫ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষকে ঘর প্রদানের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠেছে আবাসন। আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় প্রতিটি ঘর নির্মাণে ব্যয় হয়েছে ২ লাখ ৮৯ হাজার ৫০০ টাকা।

সেখানে ঘর পাওয়া তৃতীয় লিঙ্গের আমজাদ বলেন, আগে মানুষের বাড়িতে ভাড়া থাকার জন্য ঘুরে বেড়াতাম। কেউ ঘর ভাড়া দিত না। দুরদুর করে তাড়িয়ে দিত। এভাবেই দিন চলত আমাদের।

পেটের দায়ে তারা বাজারের দোকানে গিয়ে একটি-দুটি করে শাকসবজি চেয়ে নিত। হাত পাততো রাস্তাঘাট কিংবা যানবাহনে। তবে নতুন ঘর পেয়ে তারা সেখানে কবুতরসহ বিভিন্ন পশুপাখি পালনে মনোনিবেশ করেছেন। নিজ বাড়ির উঠোনে গড়ে তুলছেন ফলমূল ও শাকসবজির বাগান। তারা সবাই ব্যস্ত নতুন জীবন সংগ্রামে। মানুষের উপহাস কিংবা ঘৃণার পাত্র না হয়ে নিজেরা হতে চান স্বাবলম্বী।

তৃতীয় লিঙ্গের শিলা বলেন, নতুন ঘর পাওয়ার পর কবুতরের খামার তৈরি করেছি। আস্তে আস্তে হাঁস-মুরগি পালন শুরু করব। মানুষের কাছে আর হাত পাততে চাই না। নিজেরাই কিছু করে দেখাতে চাই।

তৃতীয় লিঙ্গের এসব মানুষ এখন কেবল ভরসা বিয়েসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান। কোন অনুষ্ঠানের খবর পেলে তারা ছুটে যায় সেখানে। গান গেয়ে কিংবা নাচ দেখিয়ে কিছু টাকা উপার্জন করে খেয়ে না খেয়ে কষ্টে চলছে তাদের জীবন। সরকারের কাছে তাদের জন্য কর্মস্থান সৃষ্টির দাবি জানিয়েছে সমাজের অবহেলিত এই মানুষ।

তৃতীয় লিঙ্গের কাজলী বলেন, আমাদের মাঝে অনেক পরিবর্তন এসেছে। আমরা রাস্তাঘাটে মানুষের সঙ্গে আর খারাপ ব্যবহার করি না। এখন শুধু এলাকার বিয়েবাড়ি, আকিকা, অন্নপ্রাশনসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে নাচ-গান দেখাই। বিনিময়ে খুশি করে যে যা দেয়, তা দিয়েই কষ্টে আমাদের দিন যাচ্ছে। সরকারের কাছে দাবি থাকবে আমাদের একটা কর্মসংস্থান করলে আমরা আরও উপকৃত হতাম।

শুধু ঘর প্রদান নয়, তৃতীয় লিঙ্গের এসব মানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের জন্য সব ধরনের সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দিয়ে ৩ নম্বর সিংড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাজ্জাদ হোসেন বলেন, আমরা তৃতীয় লিঙ্গের এসব মানুষদের ঘর নিশ্চিত করতে পেরেছি। আগামী দিনে সরকারিভাবে আরও সহযোগিতার করা হবে।

ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাফিউল আলম বলেন, সরকারের আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় তৃতীয় লিঙ্গের এসব মানুষদের নির্দিষ্ট একটি জায়গায় বসবাসের ব্যবস্থা হওয়ায় সমাজে স্বস্তি ফিরেছে। পর্যায়ক্রমে ঘোড়াঘাট উপজেলার তৃতীয় লিঙ্গের সবাইকে সুশৃঙ্খল পল্লীতে বসবাসের ব্যবস্থা করাসহ তাদের সরকারি সুযোগ-সুবিধার আওতায় আনা হবে।