• সোমবার ২৪ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৯ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায়

ভয় দেখিয়ে কিশোরকে বলাৎকার, গ্রেফতার ৩

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৫ মার্চ ২০২৩  

নোয়াখালীর সদর উপজেলায় ১৫ বছর বয়সী এক কিশোরকে বলাৎকারের অভিযোগে ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর তাৎক্ষণিক ৩ আসামিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।    
বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) দুপুরে গ্রেফতার ৩ আসামিকে নোয়াখালী চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাদের জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয়। এর আগে, গত বুধবার ভুক্তভোগী কিশোরের পিতা বাদী হয়ে ১০ জনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে এ মামলা দায়ের করেন।  

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, সদর উপজেলার কাদির হানিফ ইউনিয়নের কাঞ্চনপুর গ্রামের বারেক পুলিশ বাড়ির মো. সেকান্তরের ছেলে মো. সাইদুল হক (৫৫) একই গ্রামের মো. সালাউদ্দিনের ছেলে মো. রুবেল (৩০) ও লোকমান মিয়ার ছেলে মো. জামাল হোসেন (৪৫)।  

মামলার অপর আসামিরা হলেন, উপজেলার কাঞ্চনপুর গ্রামের সিরাজ মাস্টারের বাড়ির মো. আব্দুল জব্বারের ছেলে মো. নাসির আহমদ (৫০), একই গ্রামের ভূঁইয়া বাড়ির জাফর (৫২), সুলতান মিয়ার বাড়ির মো. বশির আহমদের ছেলে মো. আনোয়ার হোসেন (৩৬), ছোট সিদ্দিকের বাড়ির মো. বাহার মিয়ার ছেলে মো. আলী (২২), বারেক পুলিশ বাড়ির মো. রেজাউল হকের ছেলে মো. রুবেল (২৫), উপজেলার পূর্ব লক্ষীনারায়ণপুর গ্রামের মো. আবদুল মান্নানের ছেলে মো. যুবরাজ (৩৫) ও একই গ্রামের আব্দুল মান্নাছের ছেলে মো. ইব্রাহীম (৪৪)।  

ভুক্তভোগী পরিবার ও মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আদর্শ স্কুল মোড় নামক স্থানের আল ফারুক জামে মসজিদে প্রতিনিয়ত পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নের কাজ করে আসছিল ভিকটিম কিশোর (১৫)। বিবাদীরা খারাপ প্রকৃতির লোক। তারা বিভিন্ন সময় আল ফারুক জামে মসজিদে নামাজ পড়ার সময় ভিকটিমের সঙ্গে পরিচয় হয়। তারপর মামলার প্রধান আসামি সাইদুল হক (৫৫) ভিকটিমকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে নিয়ে বলাৎকার করেন। এরপর ওই সুযোগে মামলার দ্বিতীয় আসামি ভিকটিমকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বলাৎকার করেন। সর্বশেষ ঘটনায় ভিকটিম অসুস্থ হয়ে পড়লে বিষয়টি জানাজানি হয়। শেষে এ ঘটনায় ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে গত বুধবার ২২ মার্চ সুধারাম থানায় মামলা দায়ের করেন।  

সুধারাম থানার ওসির দায়িত্বে থাকা পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মিজান পাঠান বলেন, এ ঘটনায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা হয়েছে। মামলার প্রধান আসামিসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অপর আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।