• শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১১ ১৪৩০

  • || ১৩ শা'বান ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা হঠাৎ টাকার মালিক হওয়ারা মনে করে ইংরেজিতে কথা বললেই স্মার্টনেস ভাষা আন্দোলন দমাতে বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখা হয় : সজীব ওয়াজেদ ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের মানুষ স্বাধিকার পেয়েছে অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সম্মেলনে শেখ হাসিনাকে নিমন্ত্রণ বাংলাদেশের গুরুত্ব বুঝায় গুণীজনদের সম্মাননা ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করবে : রাষ্ট্রপতি একুশে পদকপ্রাপ্তদের অনুসরণ করে তরুণরা সোনার বাংলা বিনির্মাণ করবে আজ একুশে পদক তুলে দেবেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ নিরাপত্তা সম্মেলনে যোগদান শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী মিউনিখ সফর শেষে ঢাকার পথে প্রধানমন্ত্রী বরই খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যু, কারণ অনুসন্ধান করবে আইইডিসিআর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের উপযুক্ত জবাব দিন: প্রধানমন্ত্রী গাজায় যা ঘটছে তা গণহত্যা: শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ

যশোরে জমজ সন্তানকে পানিতে ফেলে হত্যা করলেন মা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০২৩  

যশোরের কেশবপুরে জমজ সন্তানকে ডোবার পানিতে ফেলে হত্যার অভিযোগ উঠেছে সুলতানা ইয়াসমিন নামে এক মায়ের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (২১ নভেম্বর) রাতে কেশবপুর শহরের সাহাপাড়া এলাকার নতুন মসজিদের পাশে। বুধবার (২২ নভেম্বর) সকালে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ দুটি উদ্ধার ও সুলতানা ইয়াসমিনকে আটক করে।

আটক সুলতানা ইয়াসমিন কেশবপুর পৌরশহরের সাহাপাড়া এলাকার তার বাবা আব্দুল লতিফের মেয়ে। তার স্বামীর নাম আবু বক্কর সিদ্দিক।

কেশবপুর থানার ওসি জহিরুল আলম জানান, ২০২১ সালের ২৪ এপ্রিল সুলতানা ইয়াসমিনের সঙ্গে আবু বক্করের বিবাহ হয়। দুইজনের বিয়ের পূর্বে তাদের উভয়ের পৃথক বিবাহ ছিল। সুলতানা ইয়াসমিন তার বাবা আব্দুল লতিফের বাড়িতে স্বামীকে নিয়ে বসবাস করেন। সুলতানার প্রথম পক্ষের অহনা ইয়াসমিন (১১) নামে একটি মেয়ে রয়েছে। স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রায়ই কলহ লেগেই থাকতো। গত ১০ নভেম্বর রাতে কেশবপুর শহরের মাতৃমঙ্গল ক্লিনিকে সিজারের মাধ্যমে সুলতানা ইয়াসমিনের জমজ সন্তান হয়। এর মধ্যে একটি ছেলে ও একটি মেয়ে।

পারিবারিক কলহের কারণে সুলতানা ইয়াসমিন গত ২১ নভেম্বর (মঙ্গলবার) রাত দেড়টার দিকে প্রথমে আরাফ নামে ছেলে সন্তানকে বাড়ির সামনের একটি ডোবার পানিতে নিক্ষেপ করেন। পরে ঘরে ফিরে তাসনীম নামে মেয়ে সন্তানকেও ওই রাতেই একই ডোবায় ফেলে দিয়ে আসেন। এরপর ঘরে ফিরে বাচ্চাদের পাওয়া যাচ্ছে না বলে মিথ্যা কাহিনী তৈরি করে। পরিবারের সদস্যরা এসময় পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে ওই ডোবা থেকে জমজ বাচ্চা দুটিকে মৃত অবস্থায় উদ্ধার করেন।

বুধবার সকালে সুলতানা ইয়াসমিনসহ পরিবারের অন্য সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে সুলতানা ইয়াসমিন তার জমজ বাচ্চা দুটিকে ডোবার পানিতে নিক্ষেপের কথা স্বীকার করেন।

এ ব্যাপারে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইন বলেন, ‘প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে সুলতানা ইয়াসমিন তার স্বামীর সঙ্গে পারিবারিক কলহের জেরে মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়ে। তিনি নিজ সন্তানদের ডোবার পানিতে নিক্ষেপ করে হত্যা করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন। এ বিষয়ে কেশবপুর থানায় মামলা হয়েছে।’