• সোমবার ২৪ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৯ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায়

দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ নির্দেশনা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২৪  

সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে সরকারের নীতি নির্ধারক মহলে দুর্নীতিবাজদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান ঘোষণা করা হয়েছে এবং এ ব্যাপারে পাঁচটি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।

প্রধানমন্ত্রী যে অনুশাসনগুলো দিয়েছেন, তার মধ্যে রয়েছে-

প্রথমত, যাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যাবে তাদের ব্যাপারে নির্মোহ এবং নিরপেক্ষ তদন্ত করতে হবে। কে কোন পদে ছিল, কে কার আত্মীয় বা কার কী পরিচয় ইত্যাদি দেখা হবে না। সরাসরি তার অপকর্মের ব্যাপারে অনুসন্ধান করা হবে এবং এই অনুসন্ধানের মাধ্যমে আবার তার ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

দ্বিতীয়ত, দুর্নীতি দমন কমিশনে কেউ প্রভাব বিস্তার করবে না এবং কোন রকমের হস্তক্ষেপ বরদাস্ত করা হবে না। কোন এমপি বা সরকারের কোন প্রভাবশালী ব্যক্তি যেন কারও জন্য তদবির না করেন তা নিশ্চিত করা হবে৷

তৃতীয়ত, প্রশাসন এবং সরকারের বিভিন্ন উচ্চপদে যারা থাকেন তারা কী ধরনের জীবনযাপন করছেন, তাদের আয়ের উৎস কী, তাদের সম্পদের ফিরিস্তি কী- ইত্যাদি বিষয়গুলো সম্পর্কে সুস্পষ্টভাবে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে এবং তা জানাতে হবে।

চতুর্থত, সরকারি কর্মকর্তাদের চাকরি থাকাকালীন অবস্থায় বাৎসরিকভাবে তাদের সম্পদের বিবরণী দাখিল করতে হবে। উল্লেখ্য যে, এই বিষয়টি নিয়ে দুই বছর আগেই সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই নির্দেশনা বাস্তবে কার্যকর হয়নি। এখন সরকারের পক্ষ থেকে এই নির্দেশনাটি নতুনভাবে দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

পঞ্চমত, প্রত্যেক সরকারি কর্মকর্তার কার্যবিধি এবং কার্যকলাপ গভীর মনিটরিংয়ের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। কারণ বেনজীর আহমেদ ঘটনার মাধ্যমে একটা বিষয় উন্মোচিত হয়েছে যে তার বেপরোয়া দুর্নীতি একদিনে সংগঠিত হয়নি। অথচ একজন সরকারি কর্মকর্তা কী করছেন না করছেন সে সম্পর্কে খোঁজখবর নেওয়ার জন্য একাধিক দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থা রয়েছে। আর এই সমস্ত দায়িত্বপ্রাপ্ত সংস্থাগুলো যথাযথভাবে তাদের দায়িত্ব পালন করতে পারেনি বলে সরকারের নীতি নির্ধারকরা মনে করছেন। আর যার দায়দায়িত্ব এসে পড়ছে সরকারের উপর।

এ কারণেই যখন একজনকে শীর্ষ পদে রাখা হবে তখন জন্য তার সম্পর্কে নিরবিচ্ছিন্ন এবং নিবিড়ভাবে খোঁজখবর নিতে হবে। বিশেষ করে এরকম একটি দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তিনি কোন দুর্নীতি বা অনিয়ম করছেন কি না, সে সম্পর্কেও নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ করতে হবে। যাতে হঠাৎ করে ভবিষ্যতে তার ফুলে ফেঁপে ওঠার গল্প প্রচারিত না হয়। আর এছাড়াও সরকারের পক্ষ থেকে আগামী অর্থবছরের বাজেটে অর্থ পাচার, ইচ্ছাকৃত ঋণ খেলাপীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে যাওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।