• সোমবার   ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৬ রজব ১৪৪৪

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় রাজশাহীবাসী, ব্যাপক জনসমাগমের প্রস্তুতি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের মূল চাবিকাঠি ডিজিটাল সংযোগ সাধারণ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী আপনি কি আল্লাহর ফেরেস্তা, ফখরুলকে কাদেরের প্রশ্ন কাউকে সম্প্রীতি নষ্ট করতে দেব না: প্রধানমন্ত্রী আর্থসামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল: প্রধানমন্ত্রী বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে কাস্টমের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে একাত্তরে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আমার ব্যর্থতা থাকলে খুঁজে বের করে দিন: প্রধানমন্ত্রী পরবর্তী লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিটি শিক্ষার্থী যেন স্কাউট প্রশিক্ষণ পায়: প্রধানমন্ত্রী সংঘাত, সন্ত্রাস ও ক্ষমতা দখলকে পেছনে ফেলে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র

বিশ্বের বৃহত্তম টেলিস্কোপ নির্মাণ শুরু, উদঘাটন হবে রহস্য

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৬ ডিসেম্বর ২০২২  

শুরু হয়েছে বিশ্বের বৃহত্তম রেডিও টেলিস্কোপ দ্য স্কয়ার কিলোমিটার অ্যারের নির্মাণ কাজ। আইনস্টাইনের তত্ত্ব যাচাই থেকে ভিনগ্রহবাসী অনুসন্ধান সবকিছুই হবে এই যন্ত্র দিয়ে। নির্মাণ শেষে ২০২৮ সালে চালু হলে মহাকাশ গবেষণায় বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে তিন দেশে বিস্তৃত টেলিস্কোপটি, আশাবাদ নির্মাতাদের। 

পৃথিবীর জন্ম, এর বাইরে প্রাণের অস্তিত্ব, বসবাসযোগ্য পরিবেশসহ মহাকাশ নিয়ে মানুষের আগ্রহ সৃষ্টির শুরু থেকেই। এসব বিষয়ে নানা প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে বিজ্ঞানীদের গবেষণার ইতিহাসও প্রাগৈতিহাসিক।  

সেই ধারাবাহিকতায় মহাকাশ গবেষণায় এবার অনন্য মাত্রা যোগ করছে মেগা টেলিস্কোপ দ্য স্কয়ার কিলোমিটার অ্যারে। ২১ শতকের অন্যতম প্রভাবশালী বৈজ্ঞানিক গবেষণা প্রকল্পটি নিয়ে গত ৩০ বছর ধরে কাজ হলেও সোমবার অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা অংশে নির্মাণ শুরু হয়।

চীন, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, ইতালি, নেদারল্যান্ডস, পর্তুগাল, আফ্রিকা ও সুইজারল্যান্ডের যৌথ অর্থায়নে মেগা প্রকল্পটির ব্যয় ১৭০ কোটি ডলার। 

নির্মাতাদের দাবি, কয়েকশ’ আলোকবর্ষ দূরের মহাকাশ থেকে আসা রেডিও সিগন্যালের পাশাপাশি বিগব্যাং পরবর্তী প্রথম কয়েক কোটি বছরে রেডিও সিগন্যাল চিহ্নিত করবে এই এসকেএ।  

মহাবিশ্বে সবচেয়ে বেশি পরিমাণে থাকা হাইড্রোজেনের ইতিহাস অনুসন্ধানও হবে এই টেলিস্কোপের লক্ষ্য। যা পৃথিবীর সৃষ্টিসহ মহাকাশের অন্যসব রহস্য উদঘাটনেও সহায়তা করবে বিজ্ঞানীদের।