রোববার   ২০ অক্টোবর ২০১৯   কার্তিক ৪ ১৪২৬   ২০ সফর ১৪৪১

শিশু নির্যাতন বন্ধ করতে জিরো টলারেন্সে সরকার : প্রধানমন্ত্রী

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত : ০১:১৬ পিএম, ৯ অক্টোবর ২০১৯ বুধবার

আজকের শিশুরা নিজেরা আলোকিত হবে ও বিশ্বটাকেও আলোকিত করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিশু নির্যাতন বন্ধ করতে সরকার ইতিমধ্যে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। জীবন ও স্বাস্থ্যের ক্ষতি হয়, এমন কোনো কাজ যাতে শিশুদের দিয়ে করানো না হয়, সেজন্য আইন করা হচ্ছে।

সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, মাদক ও দুর্নীতির নেতিবাচক প্রভাব থেকে শিশুদের দূরে রাখার লক্ষ্যে সরকার কাজ করছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার সকালে (৯ অক্টোবর) বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

শিশুদের মেধা বিকাশ, তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার ও শরীর চর্চার সুযোগ সৃষ্টিতে সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপর কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগামী দিনের কর্ণধার হিসেবে জাতির জনকের স্বপ্নের ক্ষুধা দারিদ্র্যমুক্ত সোনার বাংলা গড়তে আজকের শিশুরাই ভূমিকা রাখবে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ তার হারানো গৌরব ফিরে পেয়েছে। এটি ধরে রাখতে শিশুদের সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলার কথাও জানান প্রধানমন্ত্রী।

সুনাগরিক ও কর্মদক্ষতায় বিকশিত করতে শিশুদের সুরক্ষিত ও নিবিড় পরিচর্যার সব ধরনের পদক্ষেপই সরকার নিয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রীর আশা, বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশ যাতে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে, সেজন্য ভূমিকা রাখবে আজকের শিশুরাই।

এর আগে বুধবার সকালে বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী "বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ " উদযাপন অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ সময় নানা আনুষ্ঠানিকতায় শিশুরা বরণ করে নেয় প্রধানমন্ত্রীকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বক্তব্যের শুরুতেই শিশুদের জন্য সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী শিশুদের দেশের মানুষের স্বপ্নের উত্তরাধিকার আখ্যা দিয়ে বলেন, তাইতো শিশুদের জন্য কল্যাণমুখী সুষম শিশুবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। তথ্য প্রযুক্তির সুবিধা নিয়ে শিশুরা যেন সমৃদ্ধ হয় তবে লক্ষ্য রাখতে হবে এর থেকে খারাপ কিছুতে আক্রান্ত না হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিশুর শারীরিক ও মানসিক বিকাশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে নিরাপদ রাখাসহ তাদের নৈতিক শিক্ষায় জোর দেন প্রধানমন্ত্রী। শিশুদের দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করতে মুক্তি যুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে।