শুক্রবার   ১৫ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ১ ১৪২৬   ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

রিফাত হত্যা : পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত : ০৪:৫৬ পিএম, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ বুধবার

বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামালার অভিযোগপত্র গ্রহন করেছে আদালত। আজ বুধবার দুপুর ২ টার পরে শুনানী শেষে আদালত অভিযোগ পত্র গ্রহন করেন।বাদী পক্ষের অভিযোগ পত্র নিয়ে আপত্তি না থাকায় শুনানী  শেষে আদালতের বিচারিক হাকিম সিরাজুল ইসলাম গাজী এই অভিযোগ পত্র গ্রহন করেন। একই সঙ্গে মামলায় পলাতক ৯ আসামির বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত।

গত ১ সেপ্টেম্বর পুলিশ দুই পাটে অভিযোগ পত্র দাখিল করে আদালতে। অপ্রাপ্ত বয়স্ক ১৪ জন এবং প্রাপ্ত বয়স্ক ১০ জনকে আসামি করে এই অভিযোগ পত্র দাখিল করা হয়।আগামী ৩ অক্টোবর এই মামলার পরবর্তী তারিখ ধার্য্য করে আদালত।এ সময় আয়শাসহ নয় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকাল ১০ টার পর বরগুনা কারাগার থেকে সাত আ সামিকে আদালতে হাজির করা হয়। আর আয়শা বাবার সঙ্গে মটর সাইকেলে  সকাল  সাড়ে ৯ টার দিকে আদালতে  আসেন।
এছাড়া ৬ আসামির জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। এর আগে রিফাত শরীফের  স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকাসহ ২৪ জনকে আসামি করে ১ সেপ্টেম্বর মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বরগুনা থানার পরিদর্শক হুমাযুন কবির অভিযোগপত্রটি জমা দেন আদালতে। বরগুনার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের জেনারেল রেজিস্ট্রার (জিআরও) বাবুল আকতারের কাছে অভিযোগপত্র জমা দেন।

borguna
আদালত সূত্রে জানায় গেছে রিফাত হত্যা মামলার অভিযোগ পর্যালোচনা পর তা গ্রহীত হয়। এই মামলার বয়স্কদের জামিন নামঞ্জুর করেছে আদালত এবং অপ্রাপ্ত বয়্স্ক আসামিদের জামিনের আবেদন শিশু আদালতে পাঠানো হয়েছে। মামলা কাযক্রম শুরুতে আদালত অপ্রাপ্ত বয়স্কদের অভিযোগ পত্রটি আমলে নেন। পরে সেটি শিশু আদালতে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত। আগামী রোববার শিশু আদালতে এই আবেদনে শুনানি হবে।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মজিবুল হক কিসলু বলেন অভিযোগপত্র নিয়ে আমাদের কোনো আপত্তি ছিলো না তাই আদালত অভিযোগ পত্রটি গ্রহন করেছেন।
আয়শার আইনজীবি অ্যাডভোকেট মাহাবুবুল বারী আসলাম বলেন,অভিযোগপত্র গ্রহনের উপর শুনানি ছিল। আদালত অভিযোগপত্র তা গ্রহন করেছে। দুই পাঠের অভিযোগপত্রে ১৪জন অপ্রাপ্ত বয়স্ক ও ১০জন প্রাপ্ত বয়স্ক । অপ্রাপ্ত বয়্স্ক আসামিদের জামিনের আবেদন শিশু আদালতে পাঠানো হয়েছে। তা আগামী রোববার শুনানি হবে। প্রাপ্ত বয়স্ক ছয়জনের জামিনের আবেদন জামিনের আবেদন না মঞ্জুর করে।
নিহত রিফাত শরীফের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বলেন অভিযোগ পত্র গ্রহন করায় আমি আনন্দিত ।আমি ন্যায় বিচারের আশাবাদী।তবে অভিযোগ পত্র নিয়ে আমার কোনো অভিযোগ নাই।বাকি আসামিদের গ্রেপ্তার না করতে পারায় তিনি কিছুটা হতাশ।তিনি আরো বলেন আমি চাই প্রশাসন আরো সোচ্চার হউক।
আয়শার বাবা মোজাম্মেল হোসেন বলেন আমরা এই অভিযোগ পত্র মানি না এটা বানোয়াট ও ক্রুটি পূর্ণ অভিযোগ পত্র। আমরা এই অভিযোগপত্রে  বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেব। একটি প্রভাবশালী মহল থেকে আয়শাকে এই অভিযোগপত্রে  জড়ানো হয়েছে  বলে দাবি করেন তিনি।

গত ২৬ জুন সকালে বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে রিফাত শরীফকে তাঁর স্ত্রী আয়শার সামনে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা। এরপর তাঁকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনার পর ওই দিন বিকেলে মারা যান রিফাত শরীফ। পরদিন ২৭ জুন নিহত রিফাতের বাবা আবদুল হালিম শরীফ বাদী হয়ে বরগুনা থানায় ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।