• সোমবার   ২৭ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১৩ ১৪২৯

  • || ২৬ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
স্বপ্নজয়ের পর অপার সম্ভাবনার হাতছানি পদ্মা সেতু: প্রধানমন্ত্রীকে এশিয়ার পাঁচ দেশের অভিনন্দন ক্ষুদ্র-মাঝারি শিল্পের সুষ্ঠু বিকাশে কাজ করছে সরকার পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: রাষ্ট্রপতি মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণাঞ্চলের উন্নতির জন্য নিজের জীবন দেয়ার ওয়াদা- প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর ওপর হাজারো মানুষের ঢল ‘আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই’ শিবচরের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ: পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন কংক্রিটের অবকাঠামো নয়, পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার: প্রধানমন্ত্রী এ সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী ৪২টি পিলার বাংলাদেশের আত্মমর্যাদার ভিত: প্রধানমন্ত্রী ‘সর্বনাশা’ থেকে ‘সর্বআশা’ পদ্মা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু পদ্মার বুক চিরে বাংলাদেশের ‘সাহস’ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেশের জন্য গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক দিন

পদ্মাসেতু নিয়ে বেফাঁস মন্তব্যের জন্য বিব্রত বিএনপি-খালেদা জিয়া

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৩ জুন ২০২২  

বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, পদ্মাসেতু বানাতে পারবে না আওয়ামী লীগ সরকার। আর সেতু হলেও কেউ তাতে চড়বে না। খালেদা জিয়ার সেই অনুমান ভুল প্রমাণিত হয়েছে। স্বপ্নের পদ্মাসেতু উদ্বোধন হচ্ছে ২৫ জুন। যার ফলে পদ্মাসেতু নিয়ে সেই মন্তব্যে বিব্রত বিএনপি ও খালেদা জিয়া।

জানা গেছে, পদ্মাসেতু নিয়ে করা মন্তব্যের কারণে লজ্জিত খালেদা জিয়াও। এরইমধ্যে পদ্মাসেতু দেখে মানসিকভাবে অস্বস্তিতে পড়েছেন। তিনি মুখ দেখাতে পারছেন না আত্মীয়-স্বজনদের কাছে। পদ্মাসেতুর বিরোধিতা করার কারণে এখন দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের কাছেও ক্ষমা চাইতে চান খালেদা জিয়া।

মূলত পদ্মাসেতু নিয়ে শুরু থেকেই খালেদা জিয়া বিরোধিতা করেছিলেন। কটাক্ষ করেছেন, সরকারি উদ্যোগের ব্যঙ্গ-বিদ্রূপ করেন। দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগও তুলেছেন। সরকার এতবড় কর্মযজ্ঞ সাধন করতে পারবে না বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি নেত্রী। কিন্তু সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় স্বপ্ন আজ বাস্তবতা। ২৫ জুনের উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণার পর চরম বিব্রত ও লজ্জায় পড়েছেন খালেদা জিয়া।

খালেদা জিয়ার গুলশানের বাড়ি ফিরোজার গোপন সূত্র বলছে, খালেদা জিয়ার দৃঢ় বিশ্বাস ছিল, সরকার পদ্মাসেতুর কাজ সম্পন্ন করতে পারবে না। বৈদেশিক ঋণ নেবে, এমনকি সহায়তাও চাইবে। কিন্তু বর্তমান সরকার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতুকে পুরোপুরি দৃশ্যমান করেছে। তার অনুমান ভুল প্রমাণিত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করে তিনি মানসিকভাবে অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।

এ বিষয় রাজনীতি বিশ্লেষক ও বুদ্ধিজীবীরা বলেন, পদ্মাসেতুর বিরোধিতা করে দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের সঙ্গে খালেদ জিয়া অন্যায় করেছেন। যেহেতু পদ্মাসেতু আজ দৃশ্যমান তাই এটির আর বিরোধিতা করা বা সমালোচনা করা বিএনপির কোনোভাবেই সমীচীন হবে না। পদ্মাসেতুর কারণে দক্ষিণাঞ্চলে সরকারি দলের ভোট ব্যাংক আরো শক্তিশালী হবে এবং বিএনপির অবস্থান আরো দুর্বল হয়ে পড়বে।