• বৃহস্পতিবার ১৮ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৩ ১৪৩১

  • || ১০ মুহররম ১৪৪৬

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ ‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করুন চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

আগামীতেও আওয়ামীলীগকে ভোট দিবে আশ্রয়নে বসবাসকারীরা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

বরিশালের বানারীপাড়ায় ৪৮০টি আশ্রয়নের ঘরে বইছে আনন্দের বন্যা। তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়ে তার জন্য নামাজ পরে দোয়া করছেন। উপকারভোগীরা হচ্ছেন দুস্থ, অসহায়, বিধবা ও উপার্জনে অক্ষম এবং পরিবারে উপার্জনক্ষম সদস্য নেই এমন ব্যক্তি। আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকাগুলো সবুজে ঘেরা প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে তোলা হয়েছে সারি সারি আশ্রয়নের ঘর। ঘরের পেছনে সামনে নানা জাতের গাছ রোপন করছেন ঘরের মালিকরা। উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন ও পৌরসভার মধ্যে ঘরে ওঠা পরিবারগুলো মাঝে বইছে আনন্দ বন্যা। তারা প্রধানমন্ত্রীর উপহারস্বরুপ ঘর-জমি পেয়ে পরম আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েছেন। তারা আওয়ামীলীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য নামাজ পরে দোয়া করছেন বলে জানান উত্তরপাড় আশ্রয়নের বসবাসকারী জাহানা বেগম ও আনিচুর রহমান। তারা আগামী নির্বাচনেও আওয়ামীলীগ সরকারকে ভোট দিবেন বলে জানান।

এর আগে তারা অন্যের জায়গায়, কেউ বাঁধের রাস্তার পাশে অনেক কষ্টে জীবন যাপন করে আসছিলেন। এবার তারা দলিলসহ ঘর পেয়ে স্থায়ীভাবে বসবাস করছেন। এছাড়া পরিবারগুলো গভীর নলকূপ, বিদ্যুৎ, রাস্তাসহ যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা পেয়েছেন। পাকা সেমি দুকক্ষ বিশিষ্ট ঘর স্বামী ও স্ত্রীকে যৌথভাবে ২শতাংশ জায়গা দলিল করে দেওয়া হয়েছে। উপজেলার উত্তরপার নদীর পাড়ে গড়ে উঠেছে আশ্রয়ন প্রকল্পের সারি সারি ঘর। এখানে ৫৩টি পরিবার বসবাস করছেন।

এখানে বসবাসকারী জাহানা বেগম, আসমা খানম, মামুন মিয়া, হালিম আকন, উত্তম দাস বলে সরকারের দেওয়া নিজস্ব জায়গায় সরকার ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে। এখন আর কোনো সমস্যা নেই। কেউ আর আমাদের ভূমিহীন বলতে পারবে না। আমরা জেলা, উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা চেয়ারম্যান ও আওয়ামীলীগের নেতাদের ধন্যবাদ জানাই, তাদের সহযোগিতায় আজ আমরা পরিবার নিয়ে নতুন ঘরে বসবাস করতে পারছি।

উপজেলার আলতা, সলিয়াবাকপুর, ইলুহার, বিশার কান্দি, উত্তরপার, উদয়পুর ইউনিয়নে ৪৮০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারগুলো প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে স্থানীয় সাংসদ মো.শাহে আলম’র সহযোগিতায় জমিসহ ঘর পেয়েছেন। সদর ইউপি চেয়ারম্যান জলিল ঘরামী বলেন, মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় ভূমিহীন-গৃহহীনদের জমিসহ ঘর দেয়া এটা প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প। আমার ইউনিয়নে ৪৫টি উপকারভোগী পরিবারগুলোকে ঘর বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতিমা আজরিন তন্বী ইউপি চেয়ারম্যানদের মাধ্যমে আশ্রয়নে বসবাসকারীদের ভিজিডি কার্ড দেয়া এবং হাঁস-মুরগি পালন করে তারা যাতে স্বাবলম্বী হতে পারে সেজন্য তাদের উৎসাহ দেয়া হচ্ছে। ঘর নির্মাণ কমিটির সদস্য সচিব ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মহাসিনউল আলম বলেন, এ প্রকল্প মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অগ্রধিকার প্রকল্প। এখানে কেউ অনিময় করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। নির্মানের জন্য সিমেন্ট, ইট, বালু, যাতে মানসম্পন্ন হয় সেদিকে সর্বদা খেয়াল রাখছি। এই কাজ যেন বাঁধাগ্রস্ত না হয়, সেজন্য আমরা রাত-দিন আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছি।

আশ্রয়নের ঘর নির্মাণ কমিটির সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাতিমা আজরিন তন্বী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী সারাদেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে জমিসহ ঘর প্রদানের উদ্যোগ নেন। তারই অংশ হিসেবে বানারীপাড়া উপজেলায় ৪৮০টি পরিবারকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে জমিসহ ঘর প্রদান করা হয়েছে। বাকি পরিবারগুলোকেও দ্রুততম সময়ের মধ্যে জমি ও ঘর হস্তান্তর করা হবে। এছাড়া আশ্রয়ন প্রকল্পের উপকারভোগী পরিবারের সন্তানেরা যাতে লেখাপড়া করতে পারে সে জন্য প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের কাজ যখন সময় পাই তখনই ঘুরে দেখি। যাতে কাজে কোন সমস্যা না হয়। যারা ঘর পেয়েছে তাদের পরিবারে বইছে আনন্দের বন্যা।