• রোববার   ২৬ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১২ ১৪২৯

  • || ২৫ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: রাষ্ট্রপতি মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণাঞ্চলের উন্নতির জন্য নিজের জীবন দেয়ার ওয়াদা- প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর ওপর হাজারো মানুষের ঢল ‘আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই’ শিবচরের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ: পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন কংক্রিটের অবকাঠামো নয়, পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার: প্রধানমন্ত্রী এ সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী ৪২টি পিলার বাংলাদেশের আত্মমর্যাদার ভিত: প্রধানমন্ত্রী ‘সর্বনাশা’ থেকে ‘সর্বআশা’ পদ্মা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু পদ্মার বুক চিরে বাংলাদেশের ‘সাহস’ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেশের জন্য গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক দিন সুধী সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর মতো সব প্রকল্পের সফল বাস্তবায়ন কামনা করছি: রাষ্ট্রপতি দখিনা দুয়ার খুলছে আজ

হাঁটার কিছু সাধারণ ভুল যেভাবে এড়িয়ে চলবেন

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২২  

হাঁটাকে সহজ ব্যায়ামের মধ্যে একটি ধরে নেওয়া হয়ে থাকে। এটিকে ক্লাসিক ব্যায়ামও বলা হয়। কিন্তু প্রতিদিনের এই হাঁটার অভ্যাসেই রয়ে যাচ্ছে কিছু সাধারণ ভুল, যার কারণে আমরা এর উপকারিতা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি।

এই সহজ ব্যায়ামটির অভ্যাসে কোনো আনুষঙ্গিক মেশিনের প্রয়োজন না হওয়ায় প্রায় সবাই এই ব্যায়ামটিকে জীবনের একটি অংশ করে নিয়েছেন। কারণ, অন্য সব ব্যায়াম অনুশীলনের যে সুফল তার সবই এই একটি ব্যায়াম অভ্যাস করার মাধ্যমে পাওয়া যায়।

গবেষণা বলছে, মাত্র ৩০ মিনিটের হাঁটার অভ্যাসে ১০০-৩০০ ক্যালরি বার্ন করা সম্ভব। সেই সঙ্গে এটি ডায়াবেটিস, হাই ব্লাড প্রেশার, স্ট্রোক ও কার্ডিওভাসকুলার রোগের বিরুদ্ধে কাজ করে।

পেশি ও হাড়ের কার্যকারিতা বাড়াতে, দুশ্চিন্তা কমাতে, রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে হাঁটার অভ্যাস করতে পারেন। ছোট, বড় কিংবা বয়স্ক সবাই এই ব্যায়ামটি করতে পারেন খুব সহজে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হাঁটার স্বাস্থ্য উপকারিতা নির্ভর করে আপনার হাঁটার সময় কত ক্যালরি বার্ন হচ্ছে তার ওপর। আর ক্যালরি বার্ন নির্ভর করে আপনার হাঁটার গতির ওপর। তাই হাঁটার সময় বেশ কিছু বিষয়ে আপনাকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে।

এ জন্য প্রথমেই আপনাকে যা করতে হবে তা হলো, ভারি খাবার খেয়ে কখনো হাঁটবেন না। এতে হাঁটতে কষ্ট হওয়ার পাশাপাশি পাকস্থলীতে চাপ পড়ে। তাই হালকা কোনো কিছু খেয়ে হাঁটতে যান।

হাঁটার আগে হালকা ব্যায়াম করে নিলে বেশ উপকার পাবেন। স্ট্রেচিং বা চেয়ারে খানিকটা ওঠবস করতে পারেন। এতে শরীরের পেশিগুলো একটু সচল হবে।

হাঁটার সময় কখনোই বড় বড় পা ফেলবেন না। এতে কিন্তু শ্বাস নেওয়ার সমস্যা হতে পারে। আপনার হৃদস্পন্দনের গতি বেড়ে যেতে পারে। তাই হাঁটার সময় ছোট ছোট পা ফেলুন, কিন্তু জোরে হাঁটুন।

স্বাচ্ছন্দ্যে হাঁটার জন্য বেছে নিন ঢিলেঢালা পোশাক এবং সঠিক পায়ের জুতা। তবে খুব নরম জুতা ব্যবহার করবেন না। হাঁটার সময় শরীরকে রিল্যাক্সে রাখুন।

পেশিগুলো কিছুটা প্রসারিত করুন। এটি আপনাকে নমনীয় থাকতে সাহায্য করবে। এ ক্ষেত্রে হাঁটার সময় শরীরের মতো একই গতিতে আপনার দুই হাত দোলাতে পারেন।

হাঁটার সময় একই পথে হাঁটার অভ্যাসে বিরত থাকুন। সেই সঙ্গে চেষ্টা করুন হাঁটার সময়ও পর্যায়ক্রমে পরিবর্তন করতে। গবেষকরা বলছেন, হাঁটার সময় গভীরভাবে হাঁটার দিকেই মনোযোগ দিন। কোনোভাবেই এ সময় কারো সঙ্গে গল্প বলা, মোবাইল দেখা বা গান শোনা যাবে না।

হাঁটার সময় প্রায় সবাই যে ভুলটি বেশি করেন তা হলো, মাথা নিচু করে হাঁটা। এভাবে কখনোই হাঁটবেন না। আপনার মাথা সোজা রাখুন এবং আপনার ঘাড়, পিঠ ও কাঁধ একই সরলরেখায় রাখতে চেষ্টা করুন। এই সাধারণ ভুলগুলো এড়িয়ে চলতে পারলেই আপনার হাঁটার অভ্যাসে সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত হবে।