• সোমবার ১৫ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৩১ ১৪৩১

  • || ০৭ মুহররম ১৪৪৬

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করুন চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী চীন সফর সংক্ষিপ্ত করে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী ঢাকা-বেইজিং ৭ ঘোষণাপত্র, ২১ চুক্তি সই চীনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনের প্রতি সহযোগিতার আহ্বান বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই উপযুক্ত সময় তিয়েনআনমেন স্কয়ারে চীনা বিপ্লবীদের প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা চীন-বাংলাদেশ হাত মেলালে বিশাল কিছু অর্জন সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই সময়: চীনা ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী বেইজিং পৌঁছেছেন, শি জিংপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক আজ দ্বিপক্ষীয় সফরে চীনের পথে প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২২ অক্টোবর ২০২৩  

১৯৭১ থেকে ২০২৩ বিজয়ের সূবর্ণজয়ন্তী পূর্ণ করে বায়ান্ন বছরের যুবক বাংলাদেশ। হাজারো চড়াই উৎরাই পেরিয়ে সারা বিশ্বের সঙ্গে পায়ে পায়ে এগিয়ে যাচ্ছে দেশটি। এরই মধ্যে বড় বড় স্থাপনা উদ্বোধনের ধারাবাহিকতায় নতুন দিগন্ত উন্মোচন করে স্বপ্ন ছাড়িয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এখন দৃশ্যমান বাস্তবতা। একাধিক সূচকে আমাদের অবস্থান এখন বিশ্বতালিকার শীর্ষে। আর এ সবই জাতিকে দিয়েছে নতুন প্রত্যয়। দিয়েছে নতুন প্রেরণা ও আত্মবিশ্বাস।

গত এক যুগেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশের চলার পথের অর্জনের তালিকা অনেক লম্বা। গত বছরের মার্চে, পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। আর জুনে দেশের সবচেয়ে আলোচিত-আকাঙ্খিত ও আবেগের প্রকল্পের বাস্তবায়নের ঐতিহাসিক মুহূর্ত। পদ্মা সেতুর অর্জনের পর পরই স্বচ্ছ মধুমতির উপরের দেশের ৬ লেনের প্রথম কালনা সেতু। দেশের কেন্দ্রের আর দক্ষিণের সাথে পশ্চিমের খুলনা বিভাগের নতুন যোগাযোগ ব্যবস্থা।

অন্যদিকে, নভেম্বরে একসাথে ১০০ সেতু উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। দুর্গম-পার্বত্য এলাকাসহ এক চট্টগ্রাম বিভাগেই চালু হয় ৪৫টি সেতু। সিলেটে ১৭, বরিশালে ১৪, ময়মনসিংহে ছয়, গোপালগঞ্জ, রাজশাহী ও রংপুরে পাঁচটি করে এবং ঢাকা বিভাগে চালু হয় নতুন দুটি সেতু।

তারপর ৭ ডিসেম্বর কক্সবাজার জেলা ঘিরেই ২৯ প্রকল্পের বাস্তবায়ন হয়েছে। একই মাসের ২১ ডিসেম্বর ৫০ জেলায় ১০০ নতুন সড়ক উদ্বোধন করে সরকার। পাঁচ দিন পরেই, যানজটের ঢাকায় উড়াল দেয় মেট্রোরেল।

এরপর যানজটের নগরীকে আরও গতিশীল করতে চলতি বছরের ২ সেপ্টেম্বর উদ্বোধন হয় দেশের প্রথম দ্রুত গতির উড়াল সড়ক বা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে। যার মাধ্যমে উন্নয়নের অরেক দিগন্ত উন্মেচোনের পাশাপাশি স্বপ্ন বাস্তব রূপ লাভ করেছে।

পদ্মা সেতুর অর্জনের পর সবশেষ চলতি বছরের ১০ অক্টোবর পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকা-ভাঙ্গা রুটে নতুন ট্রেন সার্ভিস উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। যার মাধ্যমে দক্ষিণের মানুষের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হয়।

সামনে ২৮ অক্টোবর চট্টগ্রামের কর্ণফুলী তলদেশে নির্মিত দেশের প্রথম টানেল উদ্বোধনের অপেক্ষায়।

লাল-সবুজের মানচিত্র ৩০ লাখ শহিদের রক্ত দিয়ে আঁকা ছবি। ৫০ বছর আগে শূন্য থেকে যাত্রা শুরু, যা এরই মধ্যে বিশ্বদরবারে উন্নয়নের বিস্ময় নামে পরিচিতি পেয়েছে। বন্যা, দুর্যোগ এবং নানা ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে বাংলাদেশ এখন অর্থনীতি ও আর্থসামাজিকসহ বেশির ভাগ সূচকে উদীয়মান একটি রাষ্ট্র।