• সোমবার   ৩০ জানুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ১৬ ১৪২৯

  • || ০৬ রজব ১৪৪৪

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত রাজশাহী প্রধানমন্ত্রীর অপেক্ষায় রাজশাহীবাসী, ব্যাপক জনসমাগমের প্রস্তুতি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূতের বিদায়ী সাক্ষাৎ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণের মূল চাবিকাঠি ডিজিটাল সংযোগ সাধারণ নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী আপনি কি আল্লাহর ফেরেস্তা, ফখরুলকে কাদেরের প্রশ্ন কাউকে সম্প্রীতি নষ্ট করতে দেব না: প্রধানমন্ত্রী আর্থসামাজিক উন্নয়নে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল: প্রধানমন্ত্রী বিদেশি বিনিয়োগ বাড়াতে কাস্টমের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে একাত্তরে গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি আমার ব্যর্থতা থাকলে খুঁজে বের করে দিন: প্রধানমন্ত্রী পরবর্তী লক্ষ্য স্মার্ট বাংলাদেশ প্রতিটি শিক্ষার্থী যেন স্কাউট প্রশিক্ষণ পায়: প্রধানমন্ত্রী সংঘাত, সন্ত্রাস ও ক্ষমতা দখলকে পেছনে ফেলে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে মাইকেল মধুসূদন দত্ত বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র

বিলাসিতা না করার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৫ ডিসেম্বর ২০২২  

বিশ্বমন্দার প্রভাব কাটিয়ে উঠতে দেশবাসীকে বিলাসিতা না করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোমবার (৫ ডিসেম্বর) ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স-২০২২ ও আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স-২০২২ এর গ্র্যাজুয়েশন সিরিমনিতে দেওয়া বক্তব্যে এ আহ্বান জানান তিনি।
মিরপুর সেনানিবাসে শেখ হাসিনা কমপ্লেক্সে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।  

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, নানা কথা বলে ভয়ভীতি দেখিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা একটি দল করে যাচ্ছে। ২০০৯ সালে যখন সরকার গঠন করি তখন আমরা রিজার্ভ পেয়েছিলাম মাত্র পাঁচ বিলিয়ন ডলার। আমরা সেই পাঁচ বিলিয়ন ডলারকে ৪৮ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত করতে সক্ষম হই।  

তিনি বলেন, ভ্যাকসিন কিনে বিনামূল্যে মানুষকে দিয়েছি। আমরা রিজার্ভের টাকা খরচ করে এই ভ্যাকসিন কিনেছি। আজ যে গম আমরা দুইশ ডলারে কিনতে পারতাম, সেই গম পাঁচশ, ছয়শ ডলারেও কিনতে হচ্ছে। যে পরিবহন খরচ আটশ ডলার ছিল, তা এখন আমাদের ৩৮শ ডলারে আনতে হচ্ছে। কোনো কার্পণ্য করিনি। আমাদের ডলার খরচ করতে হয়েছে, রিজার্ভ খরচ করতে হয়েছে, করেছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের আমদানি-রফতানি বেড়েছে। বিনিয়োগ হচ্ছে, ফসল উৎপাদন হচ্ছে। সার থেকে শুরু করে সব উপকরণ আমরা কৃষকের কাছে স্বল্প মূল্যে পৌঁছে দিচ্ছি। আমার আহ্বান, যেখানে যার যতটুক জমি আছে, উৎপাদন করুন। কারণ, বিশ্বজুড়ে যে মন্দা দেখা দিয়েছে, তা যেন আমাদের না হয়।  

সরকার প্রধান বলেন, সবার কাছে আমার একটি অনুরোধ থাকবে আমাদের কোনো রকম বিলাসিতা চলবে না। কারণ, অর্থনৈতিক মন্দার ধাক্কাটা আমাদের দেশেও পড়বে, পড়তে যাচ্ছে, তা মাথায় রাখতে হবে। বিশ্বটা হলো এখন গ্লোবাল ভিলেজ, একে অপরের ওপর নির্ভরশীল। তা মাথায় রেখে সবাইকে সাশ্রয়ী হওয়ার জন্য আমি অনুরোধ জানাব।  

তিনি বলেন, আমাদের দেশ, আমাদের সম্পদ, আমাদেরই রক্ষা করে চলতে হবে। নিজে উৎপাদন করব, নিজের দেশ নিজে গড়ে তুলব- এই কথাটি যদি মাথায় রাখতে পারি, আত্মমর্যাদাবোধ নিয়ে চলতে পারি, ইনশাল্লাহ বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।   

শেখ হাসিনা বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শূন্য হাতে যাত্রা শুরু করেছিলেন। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ, একটি টাকাও রিজার্ভ ছিল না। সেই ধ্বংসস্তুপের ওপর দাঁড়িয়ে তিনি স্বাধীন বাংলাদেশকে গড়ে তুলেছিলেন। প্রতিটি বাহিনীকে তিনি গড়ে তোলেন। প্রতিরক্ষানীতি প্রণয়ন করে দিয়ে যান।  

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ২১ বছর পর আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ পায়। আমরা আধুনিক সুসজ্জিত সশন্ত্র বাহিনী গড়ে তোলার পদক্ষেপ নিই এবং আমর্ড ফোর্সেস গোল্ড ২০২০ প্রণয়ন করি। বঙ্গবন্ধু আমাদের একটি নীতিমালা দিয়ে গেছেন, সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়। আমরা দাবি করতে পারি, প্রতিটি দেশের সঙ্গেই আমাদের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক আছে, আমরা ধরে রাখতে পেরেছি এবং সেভাবেই এগিয়ে যাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই দেশটা আর্থ-সামাজিকভাবে এগিয়ে যাক। একটি কথা মনে রাখতে হবে, যদি অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বিতা অর্জন করতে পারি, তাহলে আমাদের স্বাধীনতার যে চেতনা, তা আমরা ধরে রাখতে পারব। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই  আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আজ বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এটি সম্ভব হয়েছে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে বলে।  

তিনি বলেন, আজ আমি জানি, কিছু কথা নানাভাবে প্রচার হচ্ছে ব্যাপকভাবে। এতে অনেকেই বিভ্রান্ত হতে পারেন। কিন্তু বিভ্রান্ত হওয়ার কিছু নেই। একটি কথা মনে রাখতে হবে যে, বাংলাদেশে দুর্ভাগ্য, যখন একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে যায়, সবার কাছে এটি পছন্দ হয় না, এটি হলো কথা।  

তিনি আরও বলেন, জাতির পিতা একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলে প্রবৃদ্ধি ৯ ভাগে উন্নীত করেছিলেন। এরপর কিন্তু প্রবৃদ্ধি আর এত বৃদ্ধি পায়নি। আওয়ামী লীগ পর পর তিন বার আসার পর আমরা প্রবৃদ্ধি ৮ ভাগ পর্যন্ত উন্নীত করতে সক্ষম হয়েছি। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় হলো, কোভিড ১৯ বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা সৃষ্টি করেছে। তারপর আবার মরার উপর খাড়া ঘা এসেছে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। যুদ্ধের পর আবার স্যাংকশন ফর দ্য স্যাংকশন। এতে উন্নত দেশগুলোও হিমশিম খাচ্ছে। জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। তাদের রিজার্ভ কমেছে। সেই অর্থে বলতে পারি, বাংলাদেশকে এখন স্থিতিশীল অবস্থায় রাখতে আমরা সক্ষম হয়েছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশে যেমন উন্নয়ন কাজে সশস্ত্র বাহিনী ভূমিকা রাখছে, তেমনি বিদেশেও জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে প্রশংসা পাচ্ছে।  আমাদের সশস্ত্র বাহিনীকে সব সময় এটি মনে রাখতে হবে যে, মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে এই বাহিনী আমরা গড়ে তুলেছি। দেশের মান মর্যাদা সব সময় সমুন্নত রাখা এবং দেশের মানুষের পাশে থাকা, তাদের সহযোগিতা করা আমাদের সবচেয়ে বড় রক্ষ্য। উন্নয়নশীল দেশ থেকে উন্নত দেশে উঠতে হবে। আবারও আমি বলব, সাশ্রয়ী হতে হবে, নিজেদের সঞ্চয় রাখতে হবে, নিজেদের উৎপাদন নিজেদের করতে হবে।