• রোববার   ২৬ জুন ২০২২ ||

  • আষাঢ় ১২ ১৪২৯

  • || ২৫ জ্বিলকদ ১৪৪৩

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
পদ্মা সেতুর সফলতায় প্রধানমন্ত্রীকে কুয়েতের রাষ্ট্রদূতের অভিনন্দন নতুন প্রজন্মকে প্রস্তত হতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আমরা বিজয়ী জাতি, মাথা উঁচু করে চলবো: প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পরিবারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ: রাষ্ট্রপতি মাদকের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণাঞ্চলের উন্নতির জন্য নিজের জীবন দেয়ার ওয়াদা- প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর ওপর হাজারো মানুষের ঢল ‘আছে শুধু ভালোবাসা, দিয়ে গেলাম তাই’ শিবচরের সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী অবশেষে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষণ: পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন কংক্রিটের অবকাঠামো নয়, পদ্মা সেতু আমাদের অহংকার: প্রধানমন্ত্রী এ সেতু স্পর্ধিত বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি: প্রধানমন্ত্রী ৪২টি পিলার বাংলাদেশের আত্মমর্যাদার ভিত: প্রধানমন্ত্রী ‘সর্বনাশা’ থেকে ‘সর্বআশা’ পদ্মা পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শুরু পদ্মার বুক চিরে বাংলাদেশের ‘সাহস’ পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেশের জন্য গৌরবোজ্জ্বল ও ঐতিহাসিক দিন সুধী সমাবেশে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পদ্মা সেতুর মতো সব প্রকল্পের সফল বাস্তবায়ন কামনা করছি: রাষ্ট্রপতি দখিনা দুয়ার খুলছে আজ

আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনারে গাফফার চৌধুরীর প্রতি শ্রদ্ধা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২১ মে ২০২২  

লন্ডনের আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনারে আবদুল গাফফার চৌধুরীর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শত শত প্রবাসী আর বাংলাদেশ হাই কমিশনের কর্মকর্তারা তাকে শেষ বিদায় জানান।

যুক্তরাজ্য প্রবাসী এই লেখক, সাংবাদিক, কলামিস্টের মরদেহ শুক্রবার দুপুরে নিয়ে যাওয়া হয় পূর্ব লন্ড‌নের ব্রিক‌ লেইন মস‌জি‌দে। সেখানে জুমার পর জানাজায় অংশ নেয় বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। গাফফার চৌধুরীর একমাত্র ছেলে অনুপম চৌধুরী বাবার জন্য দোয়া চান সবার কাছে।

জানাজা শেষে গাফফার চৌধুরীর কফিন নেয়া হয় আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনার চত্বরে। সেখানে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম। এরপর বি‌ভিন্ন রাজনৈতিক-সামা‌জিক-সাংস্কৃ‌তিক সংগঠ‌ন ও নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ ফুল দেন কফিনে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় গাফফার চৌধুরীর। ৮৮ বছরের জীবনে ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকারের আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ বাংলাদেশের ইতিহাসের নানা বাঁক বদলের সাক্ষী ছিলেন তিনি।

স্বাধীনতার পর প্রবাস জীবন বেছে নিলেও নিজেকে বিচ্ছিন্ন করেননি বাংলাদেশ থেকে। রাজনৈতিক বিশ্লেষণ আর সমকালীন বিষয় নিয়ে দেশের বিভিন্ন পত্রিকায় কলাম লিখে গেছেন দুই হাতে।

গল্প-কবিতা-উপন্যাস লিখেছেন, সাংবাদিকতা করেছেন, বাংলাদেশে কলাম লেখাকে পেশা হিসেবে নেওয়ার পথ তৈরি করেছেন গাফফার চৌধুরী।