• বুধবার ১৭ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ২ ১৪৩১

  • || ০৯ মুহররম ১৪৪৬

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ ‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করুন চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী চীন সফর সংক্ষিপ্ত করে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী ঢাকা-বেইজিং ৭ ঘোষণাপত্র, ২১ চুক্তি সই চীনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে শেখ হাসিনা

গণভবন নয়, নির্বাচনী কাজে ব্যবহার হবে সুধাসদন

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১১ ডিসেম্বর ২০১৮  

আগামীকাল ১২ ডিসেম্বর বুধবার থেকে আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণায় নামছে আওয়ামী লীগ। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও ফাতেহা পাঠের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রচার শুরু করবে ক্ষমতাসীন দল। বিকালে টুঙ্গিপাড়া এবং কোটালীপাড়ায় পৃথক দুটি নির্বাচনী জনসভায় যোগ দেবেন প্রধানমন্ত্রী। দেশের চলমান উন্নয়নের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে নৌকায় ভোট চাইবেন আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা। আর বৃহস্পতিবার থেকে নৌকার পক্ষে ভোট চাইতে কেন্দ্রীয় নেতাদের আটটি টিম আট বিভাগের জেলা-উপজেলা চষে বেড়াবেন।

এদিকে নির্বাচনী কাজে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন ব্যবহার করবেন না প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি দলের যাবতীয় নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করবেন ধানমন্ডি ৫ নম্বরে নিজের বাড়ি ‘সুধাসদন’ থেকে। সুধাসদনে দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ, নীতিনির্ধারণী বৈঠক, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জেলা নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন প্রধানমন্ত্রী। নির্বাচনী কাজে সরকারি সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করবেন না প্রধানমন্ত্রী। দলের একাধিক দায়িত্বশীল নেতা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। জানা গেছে, নির্বাচনী প্রচারণার অংশ হিসেবে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের সমন্বয়ে আট বিভাগের জন্য ৮টি টিম গঠন করা হয়েছে। ওই টিমে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা জেলায় জেলায় নৌকার পক্ষে প্রচারণায় অংশ নেবেন। আর কেন্দ্রীয়ভাবে কাজগুলোর সমন্বয়ের দায়িত্বে রয়েছেন দলের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এ ছাড়া নির্বাচনী কাজে বিশেষ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবার মনোনয়ন বঞ্চিত চার নেতাকে। তারা হলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। এই চার নেতা আজ অগ্রবর্তী টিম হিসেবে গোপালগঞ্জ যাচ্ছেন। দলীয় সূত্র জানায়, যেসব নেতা দলের মনোনয়ন পাননি তারা প্রত্যেকেই একাধিক জেলা ও নির্বাচনী এলাকায় সফর করবেন। আর যেসব নেতা মনোনয়ন পেয়েছেন তারা নিজ জেলা ও পার্শ্ববর্তী জেলায় নৌকার পক্ষে ভোট প্রচারণায় অংশ নেবেন বলে জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘দলের প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিতে আট বিভাগের জন্য ৮টি টিমের খসড়া তালিকা করা হয়েছে। দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তালিকা চূড়ান্ত করবেন।’ তিনি বলেন, ‘আগামীকাল বুধবার থেকে আমাদের আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হচ্ছে। এ ছাড়াও প্রার্থীরা গতকাল থেকেই নির্বাচনী প্রচার কাজে অংশ নিয়েছেন।’

গণভবন নয়, সুধাসদনে বসে নির্বাচনী কাজ করবেন শেখ হাসিনা : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্বাচনী কার্যক্রম সমন্বয়, নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করতে পরশু থেকে সুধাসদনে নিয়মিত বসবেন। ইতিমধ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে। সুধাসদন শুধু বৈঠকই নয়, এখান থেকে তিনি কয়েকটি জেলায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জনসভায় যোগ দিতে পারেন। এ জন্য সেখানে তৈরি হয়েছে বিশাল একটি ভিডিও কনফারেন্স রুম। দলের উপ-দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এ প্রসঙ্গে বলেন, সংসদ নির্বাচন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য এখন থেকে নিয়মিত সুধাসদনে বসবেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বৈঠকসহ দলের যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালনা এখান থেকেই করবেন তিনি। এ ছাড়াও যেসব জেলায় যেতে পারবেন না—এমন কিছু জেলায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বক্তৃতা করবেন। বিপ্লব বড়ুয়া আরও জানান, নির্বাচনী প্রচারণায় প্রধানমন্ত্রী সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করবেন না। এজন্য কাল বুধবার সড়কপথেই টুঙ্গিপাড়ায় যাবেন এবং সড়কপথেই ফিরবেন।

২০ জেলায় জনসভা করবেন শেখ হাসিনা : দলীয় সূত্র জানায়, আগামীকাল বিকালে টুঙ্গিপাড়া আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় এবং কোটালীপাড়ায় পৃথক আরেকটি জনসভায় যোগ দেবেন শেখ হাসিনা। টুঙ্গিপাড়ায় নিজ বাড়িতে রাতযাপন শেষে পরদিন বৃহস্পতিবার সড়কপথে মাওয়া হয়ে ঢাকায় ফেরার কথা রয়েছে। ঢাকায় ফেরার পথে ফরিদপুরে দুটি এবং মুন্সীগঞ্জে একটি পথসভায় যোগ দিতে পারেন শেখ হাসিনা। এবার ২০টি জেলায় নির্বাচনী জনসভা এবং পথসভায় অংশ নিচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী। জেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে— সিলেট, মৌলভীবাজার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, ফেনী, কুমিল্লা, নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, চট্টগ্রাম, রংপুর, জয়পুরহাট, বগুড়া, নড়াইল, যশোর, বাগেরহাট, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জ, রাজশাহী ও নাটোরসহ আরও বেশ কয়েকটি জেলা।