সোমবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১১ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
পতাকার মর্যাদা ধরে রাখতে সেনা সদস্যদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান জুয়ার আসর থেকে আটক ২৬ দুই ইউনিভার্সিটিকে ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা শীর্ষ সন্ত্রাসী জিসানের সহযোগী র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর পৌনে চার কিলোমিটার সারা দেশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ইংরেজি উচ্চারণে বাংলা বলার সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের ভণ্ডপীরসহ ৯ জনের কারাদণ্ড প্রধানমন্ত্রী সব সময় শিক্ষাকে গুরুত্ব দেন: পরিকল্পনামন্ত্রী মুজিব বর্ষে নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী আসন্ন সেচ মৌসুমে লোডশেডিংয়ের শঙ্কা নেই : বিদ্যুৎ বিভাগ একুশে পদক হাতে তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি আজ একুশে পদক প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ জাপানের সঙ্গে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সুস্থ যুব সমাজের বিকল্প নেই : প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ
৫৩

হবিগঞ্জে বিশ্বের বড় কাঠবিড়াল

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৭ জানুয়ারি ২০২০  

 

হবিগঞ্জেই দেখা মিলেছে বিশ্বের বড় কাঠবিড়ালের। ওয়ার্ল্ড ওয়াইল্ড অর্গানাইজেশনের দেওয়া এক তথ্যে জানা গেছে এসব। বাংলাদেশে বর্তমানে আট প্রজাতির কাঠবিড়াল আছে। এ কাঠবিড়াল বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার রেমা-কালেঙ্গা বনে দেখা যায়। এ প্রজাতির বড় কাঠবিড়ালের নাম ‘মালয়ান’। কারণ এ কাঠবিড়ালকে বলা হয় বিশ্বের সবচেয়ে বড় কাঠবিড়াল। তৃণভোজী এ কাঠবিড়ালের খাদ্য তালিকায় রয়েছে বুনো ফল, বীজ ও কচি পাতা। এ প্রজাতির কাঠবিড়াল দেখতে সাধারণ কাঠবিড়ালের মতো নয়। আকৃতিতে অন্য কাঠবিড়ালের তুলনায় বেশ বড়। বিশাল লেজ আর বড় বড় কান দেখলে মনে হতে পারে বানর জাতীয় কিছু। মালয়ান কাঠবিড়ালের দেহের দৈর্ঘ্য মাথাসহ প্রায় ৬০  সেন্টিমিটার। লেজ ৬০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। একটি পূর্ণবয়স্ক কাঠবিড়াল দেড় মিটারের মতো লম্বা এবং প্রায় দুই কেজি ওজন হতে পারে। এদের মাথা, কান, লেজসহ পৃষ্ঠদেশ কালো বা মেরুন বর্ণের এবং পেটের দিকটা সাদা হয়। এ কাঠবিড়াল রক্ষায় বন বিভাগ নানা ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে। বাংলাদেশে শুধু রেমা-কালেঙ্গা বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্যে এর দেখা মেলে। বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞদের মতে, অন্য বনেও থাকতে পারে। তবে সংখ্যায় কম। এ কারণে খুব সহজে দেখা যায় না। আইইউসিএন এ কাঠবিড়ালকে সংকটাপন্ন প্রজাতি হিসেবে শনাক্ত করেছে। ক্রমাগত বন ধ্বংস, প্রাকৃতিক প্রতিবেশ নষ্ট, পুরনো এবং দীর্ঘদেহী গাছ উজাড়, বসতি স্থাপন, বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর শিকার বা হত্যা করার কারণে এ কাঠবিড়ালের অস্তিত্ব এখন সংকটের মুখে। এ বিড়াল গাছের মগডালে ডালপালা ও পাতা দিয়ে বাসা তৈরি করে। মার্চ থেকে আগস্ট পর্যন্ত প্রজনন মৌসুম। বাংলাদেশের পাশাপাশি চীন, নেপাল, ভারত, মিয়ানমার, লাওস, কম্বোডিয়া, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়ার গহীন বনে এর দেখা মেলে। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের বন ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আরেফিন খান বলেন, হবিগঞ্জের কাঠবিড়াল বিশ্বের সবচেয়ে বড় কাঠবিড়াল। এ প্রাণি প্রধানত কেবল রেমা-কালেঙ্গা বনে পাওয়া যায়।
তাই এখনই বনের প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষায় উদ্যোগী না হলে কাঠবিড়াল হারিয়ে যাবে আমাদের দেশ থেকে। জাবির প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞ ড. মনিরুল এইচ খান বলেন, প্রায় আট বছর আগে মৌলভীবাজারের আদমপুর বনবিটে জরিপকালে কিছু মালয়ান কাঠবিড়াল দেখা গেছে। অন্য বনে এদের অবস্থান থাকলেও সাধারণত দেখা যায় না। তবে একমাত্র রেমা-কালেঙ্গা বনে এদের সহজে দেখা মেলে।

এই বিভাগের আরো খবর