বুধবার   ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৬ ১৪২৬   ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে চলতি বছরে জিপিএ-৪ কার্যকর হচ্ছে মজুদ গ্যাসে চলবে ২০৩০ সাল পর্যন্ত : খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী গুজব-অপপ্রচার রোধে কাজ করছে উচ্চ পর্যায়ের কমিটি : তথ্যমন্ত্রী সব কারখানায় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার স্থাপনের নির্দেশ আজ বাংলাদেশ-নেপাল পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক সরকার-জনগণের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে সাংসদের রাষ্ট্রপতির আহ্বান দেশে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বিরাজ করছে : নাসিম ব্যাংকের জঙ্গি অর্থায়ন নজরদারিতে রয়েছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ৪০০ মেট্রিক টন মধু রফতানির অর্ডার পেয়েছে বাংলাদেশ : কৃষিমন্ত্রী নয় বছরে সাড়ে ৯৭ হাজার কর্মকর্তা নিয়োগ : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী দেশে মোবাইল টাওয়ার রেডিয়েশনের মাত্রা ক্ষতিকর নয় : বিটিআরসি সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ২০ বছর পর আজ ঢাকায় আসছেন নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন
৯৯

সরকারি হেল্পলাইনে এক বছরে ৩৪ হাজার মানুষকে আইনি সেবা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বর্তমান সরকারের বিনামূল্যে টোল ফ্রি হটলাইনের মাধ্যমে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে মোট ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্যসেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা প্রায় আট হাজার। সম্প্রতি জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের সংস্থাটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সরকারি আইনি সহায়তায় জাতীয় হেল্পলাইন ‘১৬৪৩০’ চালু করা হয়।
 
২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল এ হেল্পলাইনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই থেকে ২৪ ঘণ্টা জাতীয় পর্যায়ে আইনগত সহায়তা সেবা দিচ্ছে টোল ফ্রি এ হেল্পলাইন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এ হেল্পলাইন উদ্বোধনের পর থেকে সারাদেশের অসংখ্য মানুষকে আইনি পরামর্শ, তথ্য সেবা ও লিগ্যাল কাউন্সেলিং সেবা দেওয়া হচ্ছে, যা অসহায় মানুষের আইনি অধিকার সুরক্ষায় কার্যকর অবদান রাখছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ কলসেন্টার থেকে ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্য সেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৭ হাজার ৭৬৭ জন নারী, ২৫ হাজার ৪৯৫ জন পুরুষ, ৬৫১ জন শিশু ও ১৬ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ রয়েছেন।
 
আর্থিকভাবে অসচ্ছল, সহায়-সম্বলহীন ও নানাবিধ আর্থ-সামাজিক কারণে বিচার পেতে অসমর্থ জনগোষ্ঠীকে আইনগত সহায়তা দিতে ২০০০ সালে ‘আইনগত সহায়তা প্রদান’ আইন প্রণয়ন করা হয়। এ আইনের আওতা সরকার ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করে। দরিদ্র-অসহায়দের আইনের আশ্রয় ও বিচার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে এ সংস্থার অধীনে প্রত্যেক জেলায় জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে জেলা লিগ্যাল এইড অফিস স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে সহকারী জজ/সিনিয়র সহকারী জজ পদমর্যাদার একজন বিচারককে ‘লিগ্যাল এইড অফিসার’ হিসেবে পদায়ন করা হয়। 

এছাড়া, দেশের সর্বোচ্চ আদালতে সরকারি আইনি সেবা নিশ্চিত করতে স্থাপন করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড অফিস।  উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করা হয়েছে। চৌকি আদালত ও শ্রম আদালতে গঠিত হয়েছে বিশেষ কমিটি।

এই বিভাগের আরো খবর