সোমবার   ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৭ ১৪২৬   ২৩ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
বাচ্চাকে মারধর করায় থানা ঘেরাও হনুমানের! জাতীয় নারী দাবায় শীর্ষস্থানে রানী হামিদ ইউজিসির কাঠগড়ায় পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ ভিসি ক্যাসিনোতে মিলল ধর্মীয় উপাসনা সামগ্রী! বিজয়নগর সায়েম টাওয়ার থেকে ১৭ জুয়ারী আটক ১৩ নেপালিকে মোটা অংকের বেতনে রাখা হয় জুয়া চালাতে স্পা সেন্টার থেকে আটক ১৬ নারী, ৩ পুরুষ আরও ১০ লক্ষ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান করা হবে- পলক আবুধাবি থেকে নিউইয়র্কের পথে প্রধানমন্ত্রী অজুহাতে কাজ আটকে রাখলে কঠোর ব্যবস্থা: গণপূর্তমন্ত্রী ব্যাংক নোটের আদলে টোকেন ব্যবহার করা যাবে না ঢাকা আসছেন বিশ্ব ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ও জাতিসংঘের দূত খিলক্ষেতে বোমা হামলা: ৫ জেএমবির ১২ বছরের দণ্ড আরামবাগ-দিলকুশা ক্লাবে জুয়ার সরঞ্জাম উদ্ধার ভিক্টোরিয়া ক্লাব থেকে নগদ টাকা ও মদের বোতল উদ্ধার সৌদিতে শিরশ্ছেদ করে ১৩৪ জনের মৃত্যুদণ্ড শিশুদের কোলবালিশের ভেতর থেকে ১০ কেজি গাঁজা উদ্ধার! মতিঝিলে ৪ ক্লাবে পুলিশের অভিযান রিমান্ডে খালেদ ও শামীমের কাছ থেকে চাঞ্চল্যকর তথ্য ঢাকায় বাংলাদেশ-ভারত নৌবাহিনী প্রধানের সাক্ষাত
২১

সরকারি হেল্পলাইনে এক বছরে ৩৪ হাজার মানুষকে আইনি সেবা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বর্তমান সরকারের বিনামূল্যে টোল ফ্রি হটলাইনের মাধ্যমে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে মোট ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্যসেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে নারী ও শিশুর সংখ্যা প্রায় আট হাজার। সম্প্রতি জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের সংস্থাটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সরকারি আইনি সহায়তায় জাতীয় হেল্পলাইন ‘১৬৪৩০’ চালু করা হয়।
 
২০১৬ সালের ২৮ এপ্রিল এ হেল্পলাইনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেই থেকে ২৪ ঘণ্টা জাতীয় পর্যায়ে আইনগত সহায়তা সেবা দিচ্ছে টোল ফ্রি এ হেল্পলাইন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এ হেল্পলাইন উদ্বোধনের পর থেকে সারাদেশের অসংখ্য মানুষকে আইনি পরামর্শ, তথ্য সেবা ও লিগ্যাল কাউন্সেলিং সেবা দেওয়া হচ্ছে, যা অসহায় মানুষের আইনি অধিকার সুরক্ষায় কার্যকর অবদান রাখছে। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে এ কলসেন্টার থেকে ৩৩ হাজার ৯৭৯ জনকে আইনগত পরামর্শ ও তথ্য সেবা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ৭ হাজার ৭৬৭ জন নারী, ২৫ হাজার ৪৯৫ জন পুরুষ, ৬৫১ জন শিশু ও ১৬ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ রয়েছেন।
 
আর্থিকভাবে অসচ্ছল, সহায়-সম্বলহীন ও নানাবিধ আর্থ-সামাজিক কারণে বিচার পেতে অসমর্থ জনগোষ্ঠীকে আইনগত সহায়তা দিতে ২০০০ সালে ‘আইনগত সহায়তা প্রদান’ আইন প্রণয়ন করা হয়। এ আইনের আওতা সরকার ‘জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা’ প্রতিষ্ঠা করে। দরিদ্র-অসহায়দের আইনের আশ্রয় ও বিচার প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে এ সংস্থার অধীনে প্রত্যেক জেলায় জজ কোর্ট প্রাঙ্গণে জেলা লিগ্যাল এইড অফিস স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে সহকারী জজ/সিনিয়র সহকারী জজ পদমর্যাদার একজন বিচারককে ‘লিগ্যাল এইড অফিসার’ হিসেবে পদায়ন করা হয়। 

এছাড়া, দেশের সর্বোচ্চ আদালতে সরকারি আইনি সেবা নিশ্চিত করতে স্থাপন করা হয়েছে সুপ্রিম কোর্ট লিগ্যাল এইড অফিস।  উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে লিগ্যাল এইড কমিটি গঠন করা হয়েছে। চৌকি আদালত ও শ্রম আদালতে গঠিত হয়েছে বিশেষ কমিটি।

এই বিভাগের আরো খবর