মঙ্গলবার   ২১ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৭ ১৪২৬   ২৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ভারত থেকে পেঁয়াজ কেনার কোনও সুযোগ নেই: বাণিজ্যমন্ত্রী বিশ্বের সামনে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল : তোফায়েল আহমেদ দেশে মুক্তিযুদ্ধের পতাকাবাহী সরকার প্রতিষ্ঠিত: রাষ্ট্রপ‌তি সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন আইসিসির সিইও সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় এমপি মান্নানের প্রথম জানাজা সম্পন্ন সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা : ১০ জঙ্গির ফাঁসি এমপি মান্নানের মরদেহে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা আদালতে সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা মামলার ৪ আসামি চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প শহীদ আসাদ দিবস আজ বৈষম্য বিলোপ আইনের খসড়া তৈরির কাজ চলছে: আইনমন্ত্রী মানবতার কল্যাণ কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে লাখো মুসল্লি তুরাগতীরে পুরো পরীক্ষাই পেছাবে, নতুন সূচি আজ : শিক্ষামন্ত্রী ফাইভজির স্বপ্ন বাস্তবে পরিণত হবে শিগগির: অর্থমন্ত্রী ঢাকা সিটি ভোট পিছিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি করার সিদ্ধান্ত ইসির এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা পিছিয়ে ৩ ফেব্রুয়ারি সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় সোমবার মান্নানের জানাজা এমপি আব্দুল মান্নানের মৃত্যুতে গভীর শোক রাষ্ট্রপতির পদ্মা সেতুর ২২তম স্প্যান বসছে এ মাসেই
৫২

লবনাক্ততা রোধ প্রকল্পে ব্যয় বৃদ্ধি ১০ কোটি টাকা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

 বরিশাল ও গোপালগঞ্জের কিছু এলাকায় উচ্চ জোয়ারের প্রভাবে সৃষ্ট বন্যা এবং লবনাক্ততা রোধ করতে ‘বরিশাল জেলার সাতলা বাগধা প্রকল্পের পোল্ডার পুনর্বাসন’ প্রকল্পের ১ম সংশোধন করার প্রস্তাব দিয়েছে বাস্তবায়নকারী সংস্থা বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড।
এই প্রকল্পটি প্রথম যখন অনুমোদন দেওয়া হয়েছিলো তখন ব‌্যয় ধরা হয় ৩৪ কোটি ৬৩ লাখ ৭৪ হাজার টাকা। তবে এখন সংশোধন এনে ব্যয় ধরা হয়েছে ৪৫ কোটি ৪৪ লাখ ৩৪ হাজার টাকা। যাতে ব‌্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে ১০ কোটি ৮ লাখ ৬ হাজার টাকা।
প্রকল্পটির বাস্তবায়নকাল অপরিবর্তিত রেখেই প্রকল্পের ব‌্যয় সংশোধনের জন্য পরিকল্পনা মন্ত্রনালয়ে মূল্যায়ন করার জন্য পাঠানো হয়েছে। এর মেয়াদ ধরা হয়েছিলো ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ২০২০ সালের জুন মাস পর্যন্ত।
প্রকল্পটি মূলত ২টি জেলার পাঁচটি উপজেলাতে হবে। উপজেলাগুলো হচ্ছে- বরিশাল জেলার গৌরনদী, উজিরপুর এবং আগৈলঝাড়া। এছাড়া গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া ও টুংগিপাড়াতে এই প্রকল্পের কাজ হবে।
প্রস্তাবিত সংশোধনী ও প্রকল্পটির কার্যক্রম সম্পর্কে পরিকল্পনা কমিশন সূত্র থেকে জানা গেছে, প্রকল্প এলাকায় উচ্চ জোয়ারের প্রভাবে সৃষ্ট বন্যা এবং লবনাক্ততা রোধ করা, প্রকল্প এলাকায় বন্যা নিয়ন্ত্রণ, বিদ্যমান নিষ্কাশন ব্যবস্থা উন্নতি করে জলাবদ্দতা নিরসন, সেচ কাজের উন্নয়নের মাধ্যমে এলাকাবাসীর জান-মাল রক্ষা, খাদ্যশস্য উৎপাদন বৃদ্ধি, পরিবেশ ও যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন সাধন করা সহ আরো অনেক কার্যক্রম করা হবে।
প্রকল্পটির সংশোধনের কারণ হিসেবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় জানায়, এই প্রকল্পের আওয়ায় যতটুকু বেড়ীবাঁধ মেরামত করার কথা তাতে মাটির পরিমাণ ছিলো ১ দশমিক ৯২ লাখ ঘনমিটার, কিন্তু এখনকার প্রস্তাবে রয়েছে ২ দশমিক শূন্য ৭ লাখ ঘনমিটার। এছাড়া প্রকল্পের আওতায় ভৌত কাজের নকশা পরিবর্তনের কারণে কাজের পরিমাণ ও ব্যয় বেড়েছে। এছাড়া রেট সিডিউল পরিবর্তনের কারণেও ব‌্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর