• শনিবার   ০৬ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭

  • || ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৩৫ ৩ হাজার মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগে অনুমোদন দিলেন প্রধানমন্ত্রী মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী করোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৩৫ জন, নতুন শনাক্ত ২৪২৩ হলিক্রস-নটরডেমসহ চার কলেজে ভর্তি বন্ধ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত আরও ২৬৯৫ আজ থেকে চলবে আরও ৯ জোড়া ট্রেন হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের
৭৮

লকডাউনে রাস্তার পাশেই বাচ্চা তুললো হট্টিটি

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০২০  

 

করোনা সংক্রমণকে ঘিরে এখন দেশব্যাপী চলছে অঘোষিত লকডাউন। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়ায় রয়েছে সরকারি নিষেধাজ্ঞা। নিষেধাজ্ঞা রয়েছে ভ্রমণেও। প্রকৃতিও তাই চলছে নিজেদের স্বাভাবিকতায়। পাখি-প্রাণীরাও তাই। এর জ্বলজ্যান্ত উদাহরণ কক্সবাজার সৈকতে ডলফিন কিংবা এই রাস্তার পাশে হট্টিটির বাচ্চা তোলা।

প্রকৃতির জন্য মানুষ বরাবরই ধ্বংসাত্মক একটি প্রাণী। তাই প্রাণীরা সব সময় সচেষ্ট থাকে মানুষ থেকে দূরে গিয়ে তাদের নিরাপত্তাটুকু খুঁজতে। মানুষের সংস্পর্শ থেকে আলাদা থেকে নিজের অস্তিত্বটুকু গড়ে তুলে এসেছে তারা অনাদিকাল থেকে।

কিন্তু এবার করোনা সংক্রমণকে ঘিরে পথে-প্রান্তরে মানুষের উপস্থিতি শূন্যতায় ঘেরা। এর থেকে দারুণ সুফলটা ভোগ করছে প্রাণীরা। পথের ধারে এই হট্টিটি ছানার দেখা পাওয়ার ব্যতিক্রমী ঘটনাটি প্রকৃতি থেকে শহরের দিকে পাখিদের উপস্থিতির প্রমাণ- এমনটা দাবি করছেন বন্যপ্রাণী গবেষক ও আলোকচিত্রী আদনান আজাদ আসিফ।

তিনি হট্টিটি ছানাদের ছবিসহ এর নেপথ্যের গল্পটাও বলেছেন পাঠকের জন্য।

আদনান আজাদ আসিফ বাংলানিউজকে বলেন, আমি যখন বৃহস্পতিবার (১৪ মে) সকালে একটা জায়গা দিয়ে হাঁটছি তখন হঠাৎ দেখি আকাশ থেকে দুটো হট্টিটি পাখি চক্কর দিতে দিতে আমাকে এসে ছোঁ মারার চেষ্টা করছে বারবার। একের পরে এক চেষ্টা করেই যাচ্ছে। সামনের পাখিটা আমার মাথায় ঠোকর মারার চেষ্টা করে উড়ে চলে যাওয়ার পর আবার আরেকটা এসে পুনরায় ঠোকর মারার চেষ্টা চালাতে লাগলো। এভাবে দুটো পাখি একদম ধারাবাহিকভাবে ঠোকর মারতে চাচ্ছে আমাকে।

‘তখন আমার ভীষণ সন্দেহ হলো, দুটো পাখি আমাকে এমন করছে কেন? কিছু এটা সমস্যা আছেই। তখন আমার ধারণা হয় যে পাখি মনে হয় আশপাশে ডিম দিয়েছে। তাদের ডিমের এলাকায় মনে হয় আমি প্রবেশ করে ফেলেছি। এমন ভাবতে ভাবতে এর একটু পরেই হঠাৎ চোখে পড়লো ছানাগুলো। এমন ছদ্মবেশী হয়ে আছে যে, দূর থেকে বোঝার কোনো উপায় নেই যে- এখানে পাখির ছানাগুলো রয়েছে।’

মাটিতে দেখা পাওয়া হট-টিটির ছানা। ছবি: আদনান আজাদ আসিফ।তিনি বলেন, তাদের বাসা সারাসরি মাটির উপর। ওখানেই ডিম দিয়েছে, ওখানেই বাসা করেছে। পাখির বাচ্চাগুলো ডাকেওনি, কোনো চিঁচিঁও করেনি। তবে আশপাশ দিয়ে ওদের বাবা-মা উড়ছিল। তাদের বাবা-মা খুবই চিৎকার করে আমার মনোসংযোগে ব্যাঘাত ঘটানোর চেষ্টা করছিল। এটা ছানাদের বাঁচানোর অন্যতম একটি  কৌশল।

‘সঙ্গে মোবাইল ছিল। মোবাইলের ক্যামেরা দিয়েই কয়েকটি ছবি তুলেছি। ছবি তোলার সময় ছানাগুলোর একটা ছানা বারবারই আমার দিকে চলে আসছিল। আমি তাকে বরাবার তার বাসায় রেখে দেই। পাখির ছানাগুলোর আকৃতি বোঝানোর জন্য পাঁচটাকা মূল্যের একটি কয়েন রেখে ছবিগুলো বৃহস্পতিবার তুলেছি বান্দারবান থেকে। ছানাগুলোর বয়স ৮ থেকে ১০ দিন হবে।যোগ করেন আদনান আজাদ আসিফ।  

এই পাখি তথ্য সম্পর্কে তিনি বলেন, এই পাখিটার বাংলা নাম ‘লাল-লতিকা হট্টিটি বা হট্টিটি। এর ইংরেজি নাম Red-wattled Lapwing এবং বৈজ্ঞানিক নাম Vanellus indicus. আকারে এরা কবুতরের মতো; প্রায় ৩২ সেন্টিমিটার। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির রঙের বৈশিষ্ট্য হলো- গাঢ় বাদামি পিঠ, কালো বুক এবং সাদা পেট। মাথা, ঘাড় ও গলা কালো। লাল চঞ্চুর (ঠোঁট) সম্মুখভাগ কালো। ওড়ার সময় ডানার ত্রিকোণ বাদামি গোড়া, সরু সাদা লাইন আর কালো প্রান্ত চোখে পড়ে। 

প্রজনন মৌসুমে এরা সম্ভবত মাটিতেই ডিম পাড়ে। এখন লকডাউনের জন্য চারদিক জনশূন্য। তাই এমন জনশূন্য পথের ধারের পরিবেশকে তারা তাদের প্রজননের সঠিক স্থান হিসেবে বেছে নিয়েছে বলে মনে করেন বন্যপ্রাণী গবেষক ও আলোকচিত্রী আদনান আজাদ আসিফ।

ইত্যাদি বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর