• শনিবার   ০৫ ডিসেম্বর ২০২০ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৯ রবিউস সানি ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ভাস্কর্যবিরোধী বক্তব্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত: তথ্যমন্ত্রী এমসি কলেজে গণধর্ষণ : ৮ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৩১৬ বিদ্রোহী প্রার্থীদের পরবর্তীতে আর মনোনয়ন নয়: ওবায়দুল কাদের ঢাবি শিক্ষার্থী ধর্ষণ: ছাত্র অধিকার পরিষদের তিন নেতা রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২১৯৮ বীর মুক্তিযোদ্ধা আতিক হত্যা মামলায় ৭ জনের মৃত্যুদণ্ড ফাইজারের ভ্যাকসিন অনুমোদন দিলো যুক্তরাজ্য করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩১, শনাক্ত ২২৯৩ ঘরোয়া অনুষ্ঠানের কথাও পুলিশকে জানাতে হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সম্রাটের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি ৭ জানুয়ারি ভাস্কর্য নিয়ে উস্কানি ছড়ালে সরকার বসে থাকবে না: তথ্যমন্ত্রী চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, ২৮ প্রতারক আটক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৯, শনাক্ত ১৭৮৮ মূর্তি আর ভাস্কর্য এক নয়: ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বিএনপির গণতন্ত্র হচ্ছে ‘মুখে শেখ ফরিদ আর বগলে ইট’: কাদের ঢাকা থেকে পায়রাবন্দর পর্যন্ত রেললাইন নিয়ে যাব: প্রধানমন্ত্রী একুশে পদকপ্রাপ্ত ওস্তাদ শাহাদাত হোসেন খান আর নেই করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৬, শনাক্ত ১৯০৮ ভ্যাকসিনের জন্য ৫০ শতাংশ টাকা ছাড়: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

যে বিশেষ মর্যাদা বিশ্বনবি ছাড়া কোনো নবিদেরও দেয়া হয়নি

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৫ অক্টোবর ২০২০  

সর্বশেষ এবং সর্বশ্রেষ্ঠ নবি ও রাসুল ছিলেন হজরত মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। তিনি এমন বিশেষ ৫টি বৈশিষ্ট্য ও মর্যাদার অধিকারী ছিলেন, যা আগের কোনো নবি-রাসুলদের দেয়া হয়নি। এ বৈশিষ্ট্য ও গুণগুলো আল্লাহর পক্ষ থেকে শুধু বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্য বিশেষ তোহফা। হাদিসে পাকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তা বর্ণনা করেছেন-

হজরত জাবের ইবনে আবদুল্লাহ রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘আমাকে এমন পাঁচটি জিনিস দান করা হয়েছে, যা আমার আগে অন্য কোনো নবিদের দেয়া হয়নি। তাহলো-
- আমাকে এমন প্রভাব (প্রখর ব্যক্তিত্ব) দিয়ে সাহায্য করা হয়েছে, এক মাস দূরত্ব পর্যন্ত অনুভূত হয়।
- পুরো জমিনকে আমার জন্য নামাজ আদায়ের স্থান এবং পবিত্রতা অর্জনের উপায় করা হয়েছে। সুতরাং আমার উম্মতের যে কেউ যেখানে ইচ্ছা নামাজের সময় হলে, যেন (সেখানেই) নামাজ পড়ে নেয়।
- আমার জন্য (যুদ্ধলব্ধ সম্পদ) গনিমত বৈধ করা হয়েছে; যা এর আগে কারো জন্য হালাল ছিল না।
- আমাকে (ব্যাপক) সুপারিশের অধিকার দেয়া হয়েছে।
- আমাকে সমগ্র মানবজাতির জন্য (রহমতস্বরূপ) পাঠানো হয়েছে; যেখানে আগের সব নবিকে তাঁদের স্বজাতি ও গোত্রের জন্য পাঠানো হয়েছিলে।’ (বুখারি)

তবে আগের সব নবি-রাসুলগণই ছিলেন নিজ নিজ গোত্র ও জাতির মানুষের জন্য অনুকরণীয় আদর্শ। তাদের আদর্শ অনুসরণ ও অনুকরণকারীরাও মুক্তিপ্রাপ্ত দলের অন্তর্ভূক্ত। আল্লাহ তাআলা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে তাদের পথের অনুসরণ ও অনুকরণের উপদেশ দিয়েছেন-
‘তাদেরকেই আল্লাহ সৎ পথে পরিচালিত করেছেন। ফলে আপনি তাদের পথের অনুসরণ করুন।’ (সুরা আনআম : আয়াত ৯০)

এ আয়াতের আলোকে এ বিষয়টি সুস্পষ্ট যে, আগের সব নবি-রাসুলদের সব কল্যাণ ও পূর্ণতার ধারক হলেন বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। এ কারণেই আল্লাহ তাআলা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বিশেষ ৫ বৈশিষ্ট্য দান করেছেন। বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বৈশিষ্ট্যগুলো তুলে ধরা হলো-

> বিশেষ ক্ষমতা
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে আল্লাহ তাআলা এম শক্তি দান করেছেন যে, মুমিনরা তার সান্নিধ্যে আসলে প্রশান্তি লাভ করতেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘আল্লাহ মুমিনদের প্রতি সন্তুষ্ট হলেন, যখন তারা গাছের নিচে আপনার কাছে বাইয়াত গ্রহণ করল। তাদের অন্তরে যা ছিল তিনি তা অবগত ছিলেন। তাদের তিনি দান করলেন প্রশান্তি এবং তাদের পুরস্কার দিলেন আসন্ন বিজয়।’ (সুরা ফাতাহ : আয়াত ১৮)

বিপরীতে তিনি আল্লাহর পক্ষ থেকে এমন একটি বিশেষ সাহায্য লাভ করেছিলেন, যার ফলে ইসলামের শত্রুরা তাঁর মুখোমুখি হওয়াকে চরম ভয় করতো। আল্লাহ তাআলা বিষয়টি এভাবে কুরআনুল কারিমে তুলে ধরেছেন-
‘আমি অবিশ্বাসীদের অন্তরে ভীতির সঞ্চার করব, যেহেতু তারা আল্লাহর সঙ্গে শরিক করেছে, যার স্বপক্ষে আল্লাহ কোনো সনদ পাঠাননি।’ (সুরা আল-ইমরান : আয়াত ১৫১)

> ইবাদতের বিশেষ সুযোগ
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর সম্মানে উম্মতে মুহাম্মাদির জন্য আল্লাহ তাআলা পুরো পৃথিবীকে ইবাদতের জন্য কবুল করে নিয়েছন। আবার এ জমিনের মাটিকে পবিত্রতা অর্জনের মাধ্যম করেছেন।
মুমিন মুসলমান চাইলে, যে কোনো স্থানেই নামাজ আদায় করতে পারবেন। যদি কোথাও পানি পাওয়া না যায় তবে চাইলে মাটি দ্বারা তায়াম্মুম করেও নামাজসহ অন্যান্য ইবাদত-বন্দেগি করতে পারবে মুমিন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘তোমরা পবিত্র মাটি দিয়ে তায়াম্মুম কোরো; তা দিয়ে তোমরা তোমাদের মুখমণ্ডল ও দুই হাত মাসাহ করো।’ (সুরা মায়েদা : আয়াত ৬)

> গণিমতের সম্পদ গ্রহণের বৈধতা
আল্লাহ তাআলা উম্মতে মুহাম্মদিকে যুদ্ধলব্ধ সম্পদ ভোগ করার অধিকার দিয়েছেন। যাতে রয়েছে মানুষের জীবন-জীবিকার প্রশান্তি। এগুলো আগের কোনো নবি-রাসুলদের উম্মতের জন্য বৈধ ছিল না। তবে এ সব সম্পদ গ্রহণের জন্য যুদ্ধে অংশগ্রহণের সওয়াব বা প্রতিদান থেকে বঞ্চিত হবে না মুমিন।

> শাফায়াতের অধিকার
যখন কোনো নবি-রাসুল কারও ব্যাপারে সুপারিশ করতে ব্যর্থ হবে, তখন প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়া সাল্লাম উম্মতের জন্য সুপারিশ লাভের অধিকার পাবেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কেয়ামতের দিন সব সৃষ্টির জন্য সুপারিশ করবেন এবং এ কাজের মাধ্যমে তিনি প্রতিশ্রুত ‘মাকামে মাহমুদ’ (সম্মানিত স্থান) অর্জন করবেন। হাদিসে এসেছে-
রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘প্রত্যেক নবির জন্য বিশেষ একটি দোয়ার অধিকার আছে, যা কবুল করা হবে। প্রত্যেক নবিই তাঁর দোয়ার ব্যাপারে তাড়াহুড়া করেছেন (দুনিয়াতেই তা চেয়েছেন)। আর আমি আমার সে দোয়া কেয়ামতের দিন আমার উম্মতের শাফায়াতের জন্য মুলতবি রেখেছি। আমার উম্মতের যে ব্যক্তি শিরক না করে মারা যাবে, ইনশাআল্লাহ! সে তা লাভ করবে।’ (বুখারি)

> বিশ্ববাসীর জন্য রহমত
আল্লাহ তাআলা প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বিশ্ববাসীর জন্য রহমতস্বরূপ পাঠিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-
وَمَا أَرْسَلْنَاكَ إِلَّا رَحْمَةً لِّلْعَالَمِينَ
‘আমি আপনাকে বিশ্ববাসীর জন্যে রহমত স্বরূপই প্রেরণ করেছি।’ (সুরা আম্বিয়া : আয়াত ১০৭)
তিনি শুধু রহমত স্বরূপই নয়, বরং তিনি ছিলেন বিশ্ববাসীর জন্য রহমত, সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারী। আল্লাহ তাআলা বলেন-
‘আমি আপনাকে সমগ্র মানবজাতির জন্য সুসংবাদদাতা ও সতর্ককারী হিসেবে প্রেরণ করেছি। কিন্তু বেশির ভাগ মানুষ তা জানে না।’ (সুরা সাবা : আয়াত ২৮)

বিশ্বনবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের বিশেষ মর্যাদা ও বৈশিষ্ট্য হোক উম্মতে মুহাম্মাদির জন্য সর্বোচ্চ অনুপ্রেরণা। দুনিয়ার সফলতা ও পরকালের নাজাতের একমাত্র উপায়।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি বেশি বেশি দরূদ ও সালাম পাঠানোর তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও পরকালের মুক্তিতে তাঁরই আদর্শ অনুসরণ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।