শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ছাত্রলীগের পর যুবলীগকে ধরেছি : প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে সংযমের সঙ্গে চলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর সাথে যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি দলের সাক্ষাত অবৈধ জুয়ার আড্ডা বা ক্যাসিনো চলতে দেওয়া হবে না: ডিএমপি কমিশনার পটুয়াখালীতে ধর্ষণ মামলার বাদীকে পেটানো প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার-৪ শাহজালালে বিমানের জরুরি অবতরণ শুক্রবার নিউইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ফকিরাপুলের ক্যাসিনো থেকে আটক ১৪২ জনের জেল রাজধানীর তিনটি ক্যাসিনোতে র‌্যাবের অভিযান জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ রিয়াদের ফিফটিতে টাইগাররা ১৭৬ রানের লক্ষ্য দিলো জিম্বাবুয়েকে টস হেরে ব্যাটিং এ বাংলাদেশ রিফাত হত্যা : পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রোহিঙ্গা সংকট : ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বসছে চীন-মিয়ানমার-বাংলাদেশ আমাদের কাজই হচ্ছে জনগণকে সেবা দেয়া : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন বাংলাদেশের পক্ষে: মোমেন আজ গাজীপুর যাবেন প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ দূষণ: ৪ প্রতিষ্ঠানকে কোটি টাকা জরিমানা স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী আরো দু’টি বোয়িং বিমান কেনার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী
১০

মুহররম মাসে অধিক নফল সিয়াম পালনের ফযিলত

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

আবু হুরাইরা (রাদিয়াল্লাহু আনহু) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, 

«أَفْضَلُ الصِّيَامِ بَعْدَ رَمَضَانَ شَهْرُ اللَّهِ الْمُحَرَّمُ»

‘রমাদানের পর সর্বোত্তম সিয়াম হচ্ছে আল্লাহর মাস মুহররম মাসের সিয়াম।’ [মুসলিম, আসসাহিহ : ১৯৮২মুসলিম, আসসাহিহ : ১৯৮২]

রাসুলের কথা شَهْرُ اللَّهِ (আল্লাহর মাস) বাক্যটিতে شَهْر-কে اللَّهِ-এর দিকে إضافة বা সম্বন্ধযুক্ত করা হয়েছে। এটি হলো إضافة تعظيم অর্থাৎ সম্মানবাচক সম্বন্ধ। মোল্লা আলি কারি (রহ.) বলেন, ‘হাদিসের বাহ্য শব্দমালা থেকে পুরো মাসের সিয়ামই বুঝে আসে। তবে এটি প্রমাণিত যে, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) রমাদান ব্যতীত অন্য কোনো মাসে পুরা মাস সিয়াম পালন করেন নি। সুতরাং এ হাদিসের মর্ম হলো, এ মাসে বেশি পরিমাণে সিয়াম পালন করার ব্যাপারে উৎসাহ দেওয়া। রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) শাবান মাসের সিয়াম অধিক পরিমাণে পালন করেছেন বলে প্রমাণিত। সম্ভবত মুহাররম মাসের ফযিলত সম্বন্ধে তাঁকে জীবনের শেষ পর্যায়ে অবহিত করা হয়েছে আর তিনি তা বাস্তবায়ন করে যাবার সময় পান নি। [নববি, শারহু সহিহ মুসলিম] 

আল্লাহ তায়ালা কোন কোন স্থান ও কালকে বিশেষ মর্যাদা দিয়ে থাকেন 
আল্লামা ইয্‌য ইবনু আবদিস সালাম (রহ.) বলেন,

وتفضيل الأماكن والأزمان ضربان: أحدهما: دُنْيويٌّ.. والضرب الثاني: تفضيل ديني راجعٌ إلى أن الله يجود على عباده فيها بتفضيل أجر العاملين، كتفضيل صوم رمضان على صوم سائر الشهور، وكذلك يوم عاشوراء.. ففضلها راجعٌ إلى جود الله وإحسانه إلى عباده فيها

‘স্থান ও কালের একের ওপর অপরের মর্যাদা প্রদান দুভাবে হতে পারে—দুনিয়াবি ও দীনি; যা একান্তই আল্লাহর বদান্যতার ওপর নির্ভরশীল। তিনি সেসব স্থান বা কালে ইবাদত সম্পন্নকারীদের সওয়াব বৃদ্ধি করে দিয়ে তাদের ওপর করুণা করেন। যেমন, অন্যান্য মাসের তুলনায় রমাদানের সিয়ামকে আল্লাহ তায়ালা বিশেষ মর্যাদা দান করেছেন। তেমনি তিনি আশুরার দিনকে মর্যাদা করেছেন। এগুলোর মর্যাদা আল্লাহর বদান্যতা ও ইহসানের ওপর নির্ভরশীল। [ইযযুদ্দিন, কাওয়ায়িদুল আহকাম : ১/৩৮]

এই বিভাগের আরো খবর