বৃহস্পতিবার   ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৭ ১৪২৬   ২৫ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি আজ একুশে পদক প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ জাপানের সঙ্গে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সুস্থ যুব সমাজের বিকল্প নেই : প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনর্বিবেচনা করা হবে : অর্থমন্ত্রী মুঠোফোন প্রতারক জিনের বাদশা গ্রেফতার করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে কান দিবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাগর তীরে উঁচু স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বিএনপি জ্বালাও-পোড়াও না করলে দেশ আরো এগিয়ে যেত : তথ্যমন্ত্রী শহীদ দিবসে জঙ্গি হামলার কোনো সম্ভাবনা নেই : ডিএমপি কমিশনার দেশে ব্রয়লারসহ কোন পশু-পাখির মধ্যে করোনা পাওয়া যায়নি : আইইডিসিআর বিশ্ববাসীর কাছে বাংলাদেশ এখন অনুকরণীয়: শ ম রেজাউল ওআইসিকে শক্তিশালী করতে চাই: ড. মোমেন ধর্ষকদের ধরিয়ে দিন, কঠোর ব্যবস্থা নেবো: প্রধানমন্ত্রী টাকা না থাকলে এত উন্নয়ন কাজ করছি কীভাবে : প্রধানমন্ত্রী সব ব্যথা চেপে রেখে দেশের জন্য কাজ করছি : প্রধানমন্ত্রী ট্রেনে খোলা খাবার বিক্রি ও প্লাস্টিকের কাপ নিষিদ্ধ হচ্ছে চলতি বছরে জিপিএ-৪ কার্যকর হচ্ছে
৪৬

মাশরুমের কনটেইনারে সাড়ে পাঁচ কোটি টাকার সিগারেট

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৭ জানুয়ারি ২০২০  

চট্টগ্রাম বন্দরে সন্দেহজনক একটি কনটেইনার খুলে ১ কোটি ৪০ লাখ ২০ হাজার শলাকা সিগারেট জব্দ করেছেন কাস্টমস গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। গতকাল রোববার বিকেলে বন্দর থেকে আমদানিকারক কৌশলে চালানটি খালাস নেওয়ার তৎপরতা শুরুর খবর পেয়ে তা জব্দ করেন কাস্টমস কর্মকর্তারা।

এই চালানটি মালয়েশিয়া থেকে মাশরুম ঘোষণা দিয়ে আমদানি করেছিল চট্টগ্রামের আগ্রাবাদের বাংলা ভিনা এন্টারপ্রাইজ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। সন্দেহজনক চালানটি খালাস স্থগিতও করে রেখেছিলেন কাস্টমসের এআইআর শাখার গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। এরপরও কাস্টমস দিবস উপলক্ষে কর্মকর্তাদের ব্যস্ততার সুযোগ নিয়ে চালানটি খালাসের তৎপরতা শুরু করেছিলেন আমদানিকারকের লোকজন।

চট্টগ্রাম কাস্টমসের অডিট ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চ (এআইআর) বিভাগের সহকারী কমিশনার নুর এ হাসনা সানজিদা বলেন, চালানটিতে থাকা সিগারেটের মূল্য ৫ কোটি ৬২ লাখ টাকা। শর্তসাপেক্ষে এই চালান খালাস করতে হলে শুল্ককর দিতে হতো ২১ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানির কারণে আমদানিকারকসহ সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

কাস্টমসের নথিপত্রে দেখা যায়, চালানটির রপ্তানিকারক মালয়েশিয়ার নিউ সাইন করপোরেশন। তবে চালানটি আনা হয় সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে। এই চালানের জন্য ঋণপত্র খোলা হয়েছিল ৭ হাজার ৩৩৫ মার্কিন ডলারের। চালানটি চট্টগ্রাম বন্দরে আসার পর গত ৫ জানুয়ারি খালাসের প্রক্রিয়া শুরু করেন আমদানিকারক। শুল্কায়নের পর আমদানিকারকের প্রতিনিধি ৫ লাখ ৮০ হাজার টাকার শুল্ক পরিশোধ করেন। তবে সন্দেহজনক হওয়ায় চালানটির খালাস স্থগিত করে দেওয়া হয় বলে প্রথম আলোকে জানিয়েছেন সহকারী কমিশনার নুর এ হাসনা সানজিদা।

এদিকে আরেকটি চালানে মিথ্যা ঘোষণার প্রমাণ পেয়েছে কাস্টমস। সুইট কর্ণের ঘোষণায় প্রায় ১৫ টন চকলেট নিয়ে আসে ঢাকার মতিঝিলের সামিত ট্রেডিং ইন্টারন্যাশনাল।

এই বিভাগের আরো খবর