মঙ্গলবার   ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৭ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী ‘রাজহংস’ উদ্বোধন করবেন আজ রোহিঙ্গা ভোটার: ইসি কর্মচারীসহ আটক ৩ রিফাত-মিন্নির নতুন ভিডিও, বেরিয়ে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য ‘বিজ্ঞান-প্রযুক্তির বিকাশ ছাড়া দেশ উন্নয়ন করা সম্ভব নয়’ রোহিঙ্গা ভোটার খতিয়ে দেখতে চট্টগ্রামে কবিতা খানম আগামী ১০মাসের রোডম্যাপ তৈরি ও তার বাস্তবায়ন করবো - জয় ও লেখক ডেঙ্গুতে সরকারি হিসেবে ৬৮ জনের মৃত্যু আ. লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা ১৮ সেপ্টেম্বর বরিশাল নগরীতে আসছে স্মার্ট এলইডি লাইটিং বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপের জন্মদিন আজ আজ থেকে ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি বিশ্ব ওজন দিবস আজ শিগগিরই বন্দর-ট্রেনে যুক্ত হচ্ছে ত্রিপুরা-বাংলাদেশ দিল্লিতে শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠক ৫ অক্টোবর সারাদেশে ৭৫ প্রতিষ্ঠানকে পাঁচ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ এ পি জে আব্দুল কালাম স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত শেখ হাসিনা টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ বরিশালকে যানজট মুক্ত রাখতে কাজ করছে ট্রাফিক সদস্যরা- ডিসি ট্রাফিক সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন : প্রধানমন্ত্রী
৭২

মানসিক প্রশান্তি লাভের পাঁচ উপায়

প্রকাশিত: ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

 

মানসিক অশান্তি ও অবসাদ মানবজীবনের অন্যতম প্রধান সমস্যা। এই সমস্যা ও সংকট থেকে মুক্তি পেতে আধুনিক চিকিৎসাবিজ্ঞানীরা নানা ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও গবেষণা চালাচ্ছেন। এতে মানুষ উপকৃতও হচ্ছে। আবার অনেকের ক্ষেত্রে ব্যর্থ হচ্ছে তাঁদের ফর্মুলা। মানসিক প্রশান্তি লাভে ইসলামও মানুষকে কিছু উপায় অবলম্বনের কথা বলেছে। যা মানুষকে মানসিক স্বস্তি দিতে পারে। এসব উপায় অবলম্বনের প্রতি আস্থা প্রকাশ করেছেন অনেক অমুসলিম গবেষকও। নিম্নে এমন পাঁচটি উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হলো—

 

একত্ববাদে বিশ্বাস

যুক্তরাষ্ট্রের সাইকোলজিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের জার্নালে জার্মানির ম্যান হেইম বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানী ড. লরা ম্যারি এডিনগার-স্কন্স-এর একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। যাতে দাবি করা হয়েছে, মানসিকভাবে মুসলিমরাই পৃথিবীতে সবচেয়ে সুখী। কারণ তারা একজন সৃষ্টিকর্তার ওপর পরিপূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস রেখে জীবন পরিচালনা করে। মুসলিমরা তকদির বা ভাগ্যে বিশ্বাস করে। ফলে অল্পতেই তারা সন্তুষ্টি ও পরিতৃপ্তি বোধ করে। মুসলিমদের মনে আল্লাহর ভয় থাকে বদ্ধমূল। ফলে  বহুবিধ পাপাচার থেকে বিরত থাকা তাদের পক্ষে সহজ হয়। আল্লাহর একত্ববাদ আর তাঁর ওপর দৃঢ় বিশ্বাস মুসলিমদের হতাশা ও উদ্বেগ থেকে সহজেই মুক্তি দিতে পারে। গবেষকরা বলতে চেয়েছেন, একত্ববাদে বিশ্বাস বিষণ্নতা, মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও আত্মহত্যার ঝুঁকি কমায়। গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে, ধর্ম ও সুখের সঙ্গে একটি ইতিবাচক সংযোগ আছে। (দৈনিক ইত্তেফাক, ১১ জুলাই ২০১৯)

 

কোরআন অধ্যয়ন

কোরআন তেলাওয়াত ও অধ্যয়নের মাধ্যমেও হৃদয়ে প্রশান্তি আসে। কোরআন মাজিদ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আমি কোরআন নাজিল করেছি, যা মুমিনের জন্য রোগের আরোগ্য ও রহমতস্বরূপ।’ (সুরা বনি ইসরাঈল, আয়াত : ৮২)

ইতালির খ্যাতনামা মনোবিজ্ঞানী রোকসানা ইলিনা নেগরা ইসলাম গ্রহণের পর তাঁর প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আমি পবিত্র কোরআন অধ্যয়ন করেছি। যতই পড়েছি ততই আমি মুগ্ধ হয়েছি। এই মুগ্ধতা ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। আমি মনোবিজ্ঞানের শিক্ষার্থী। আমি সব সময় প্রশান্তির জন্য, অসুস্থতা থেকে নিরাময়ের উপায় খুঁজে বের করার চেষ্টা ও গবেষণা করেছি। আলহামদুলিল্লাহ! আমি এ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি—ইসলামেই রয়েছে সব কিছুর সঠিক সমাধান।’ (দৈনিক ইনকিলাব, ১৬ জানুয়ারি ২০১৭)

 

নামাজ আদায়

নামাজ আদায়ের ব্যাপারে রোকসানা ইলিনা নেগরা বলেন, ‘ইসলামের প্রধান ইবাদত নামাজের অনুশীলন প্রশান্তি লাভের অন্যতম সেরা মাধ্যম।’ (প্রাগুক্ত)

নামাজ আদায়ের মাধ্যমে মানুষের অন্তরে প্রশান্তি আসে। নামাজ আদায়কারী মানসিক অশান্তি থেকে নিরাপদ থাকে। এ সম্পর্কে আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘মানুষকে সৃষ্টি করা হয়েছে ভীরু হিসেবে। যখন তাকে অনিষ্ট স্পর্শ করে, তখন সে হা-হুতাশ করে। আর যখন কল্যাণপ্রাপ্ত হয়, তখন কৃপণ হয়ে যায়। তবে তারা স্বতন্ত্র, যারা নামাজ আদায়কারী। যারা তাদের নামাজে সার্বক্ষণিক কায়েম থাকে।’ (সুরা মায়ারিজ, আয়াত : ১৮-২৩)

রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হতেন বেলাল (রা.)-কে বলতেন, ‘নামাজের ইকামত দাও, এর মাধ্যমে আমাকে প্রশান্তি দাও।’ (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ৪৯৮৫)

অন্য হাদিসে এসেছে, রাসুলুল্লাহ (সা.) যখন চিন্তিত হতেন নামাজে দাঁড়িয়ে যেতেন। (সুনানে আবি দাউদ, হাদিস : ১৩১৯)

 

আল্লাহর স্মরণ

পরিপূর্ণ মানসিক প্রশান্তি লাভ ও সব রকম মানসিক উৎকণ্ঠা থেকে মুক্তির অন্যতম উপায় আল্লাহ তাআলার স্মরণ। আল্লাহকে স্মরণের মাধ্যমে মানসিক প্রশান্তি এবং হৃদয়ের পরিতৃপ্তি অর্জিত হয়। কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘যারা ঈমান আনে, আল্লাহর স্মরণে তাদের অন্তর প্রশান্ত হয়। জেনে রেখো, আল্লাহর স্মরণেই শুধু হৃদয় প্রশান্ত হয়।’ (সুরা রাদ, আয়াত : ২৮)

 

আল্লাহর ওপর নির্ভরতা

একজন ঈমানদার আল্লাহ তাআলার ওপর এই বিশ্বাস রাখে যে, সর্ববিষয়ে আল্লাহ তাআলা তার জন্য যথেষ্ট। আল্লাহ বলেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর নির্ভর করে তার জন্য আল্লাহই যথেষ্ট।’ (সুরা তালাক, আয়াত : ৩)

আল্লাহর ওপর নির্ভরশীলতা ও পরিপূর্ণভাবে বিশ্বাস স্থাপনে তার মনোবল বেড়ে যায়। অমূলক ভাবনায় সে বিচলিত না হয়ে বরং তাঁর অনুগ্রহ ও সাহায্য লাভের আশায় সর্বদা আশান্বিত থাকে। তখন তার মনে কোনো দুশ্চিন্তা বা উৎকণ্ঠা স্থান পায় না। কঠিন কাজও সহজ হয়ে যায়; নিরানন্দ হয়ে ওঠে আনন্দময়; অশান্তি পরিণত হয় প্রশান্তিতে। ফলে সে অন্তরে খুঁজে পায় এক অনাবিল সুখ ও পরিতৃপ্তি।