• রোববার   ০৯ মে ২০২১ ||

  • বৈশাখ ২৫ ১৪২৮

  • || ২৬ রমজান ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
২৪ ঘণ্টায় করোনায় দেশে ৪৫ মৃত্যু খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই : হানিফ দিনবদলের অভিযাত্রায় অদম্য গতিতে দেশ এগিয়ে চলছে: সেতুমন্ত্রী তাণ্ডবকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনলাইনে পরীক্ষা নিতে পারবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আজই ফিরছেন সাকিব-মুস্তাফিজ যে যেখানে আছেন সেখানেই ঈদ উদযাপন করুন: প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার আবেদন পেয়েছি, দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে: আইনমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ২০ মিলিয়ন টিকা চেয়েছে বাংলাদেশ: আব্দুল মোমেন গ্রামে বাড়ি নির্মাণে ইউনিয়ন পরিষদের অনুমতি লাগবে: তাজুল করোনা প্রাণ নিল আরও ৫০ জনের, নতুন শনাক্ত ১৭৪২ সেরামের টিকা না পেলে টাকা ফেরত চাওয়া হবে: অর্থমন্ত্রী ধান-চাল ক্রয়ের জন্য অত্যন্ত যৌক্তিক দাম নির্ধারণ: কৃষিমন্ত্রী শপিংমল খোলা রাত ৮টা পর্যন্ত ১২ মে’র আগেই আসবে চীনের টিকা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তাণ্ডবের ঘটনায় আরো ১০ জন গ্রেফতার করোনায় একদিনে আরও ৬১ জনের মৃত্যু বাঁশখালীতে নিহতদের পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে দেয়ার নির্দেশ জুনায়েদ আল হাবিব আরও ৪ দিনের রিমান্ডে নাশকতার মামলায় ফের ৫ দিনের রিমান্ডে মামুনুল হক

মাছের পেটে স্বর্ণ, কেজি প্রতি দাম সাড়ে ৩৪০০০ ডলার!

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২৭ অক্টোবর ২০২০  

ক্যাভিয়ার পৃথিবীর সবচেয়ে দামি খাবার হিসেবে সমাদৃত। প্রতি কেজির দাম হতে পারে ১০ হাজার ডলার পর্যন্ত। ৩৪ হাজার ৫০০ ডলারেও এক কেজি ক্যাভিয়ার বিক্রি হওয়ার রেকর্ড রয়েছে। 

গত ২০০ বছরে খাবারটি আভিজাত্যের প্রতীক হয়ে উঠেছে। তবে ক্যাভিয়ারের এই উচ্চ মূল্যের কারণ কি? ক্যাভিয়ার মূলত স্টারজিয়ন নামক মাছের ডিম। 

এরা জীবন্ত ফসিল প্রাণীগুলোর একটি। পৃথিবীতে এদের আগমন ঘটে প্রায় ২২ কোটি বছর আগে। বর্তমান পৃথিবীতে এই মাছের ২৭টি প্রজাতি রয়েছে। যার মধ্যে ১৮টিই বিপন্নপ্রায়। 

প্রজাতি ভেদে মাছগুলো ৮ থেকে ২০ বছর বয়সে পরিণত অবস্থায় পৌঁছায়। এই লম্বা সময় ধরে এদেরকে যত্ন সহকারে লালন করতে হয়। 

 

মাছের পেটের ডিম

মাছের পেটের ডিম

বেশিরভাগ ফার্মেই ডিম সংগ্রহ করা হয় স্টারজিয়নকে হত্যা করে। প্রাপ্ত ডিম পরিমাণ মতো লবণ মিশিয়ে কৌটাতে ভরা হয়। ঐতিহাসিকভাবে ক্যাভিয়ারের উৎপাদন কেন্দ্র রাশিয়া এবং মধ্যপ্রাচ্য। 

একসময় কাস্পিয়ান সাগর থেকে প্রচুর ক্যাভিয়ার আহরণ করা হতো। সোভিয়েত ইউনিয়ন যতদিন টিকে ছিল, রাশিয়া ক্যাভিয়ার উৎপাদন কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতো। 

সোভিয়েত ইউনিয়ন পতনের পর, কাস্পিয়ান সাগর হয়ে ওঠে চোরাকারবারিদের আখড়া। ব্যাপক হারে পাচারের ফলে, কাস্পিয়ান সাগরে এখন স্টারজিয়ন বিলুপ্তপ্রায়। 

বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ক্যাভিয়ার উৎপাদিত হয় চীনে ৬০ শতাংশ। যদিও এখানকার ক্যাভিয়ার শতভাগ ফার্মে উৎপাদিত। চীনের জনগণ ক্যাভিয়ার খেতে অভ্যস্ত নয়। 

ফলে বেশিরভাগ ক্যাভিয়ার রপ্তানি হয়। এছাড়াও ইরান, ইসরাইল, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অনেক দেশেই ক্যাভিয়ার উৎপাদিত হয়। তবে উৎপাদন খরচ অত্যাধিক হওয়ায়, ক্যাভিয়ার রয়ে গেছে মধ্যবিত্তদের নাগালের বাইরেই।