মঙ্গলবার   ১৫ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ২৯ ১৪২৬   ১৫ সফর ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
স্বামী-স্ত্রীর পায়ে ১৮টি স্মার্টফোন ৬ দিনের অভিযানে বরিশাল বিভাগে ১৫৪ জেলের কারাদণ্ড অপমানে কাঁদলেন মৌসুমী সাগরে ফের ভারতীয় ১১ জেলে আটক বিয়ে-বিচ্ছেদের পর শরিয়তে সন্তান প্রতিপালনের অধিকার কার? মৃত্যুর আগে জাহ্নবীকে দেয়া মা শ্রীদেবীর দামি পরামর্শ যা ছিল বরিশাল স্টেডিয়ামে আসছে শ্রীলংকা যুদ্ধাপরাধ: আজ ৫ রাজাকারের রায় মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব স্পিকারের শাহজালালে বিপুল পরিমাণ ইউএস ডলার ও থাই বাথসহ আটক ১ বাবরি মসজিদের রায় ঘিরে অযোধ্যায় ১৪৪ ধারা বাংলাদেশের প্রথম হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকী হাইপ্রোফাইল দুর্নীতিবাজ: এবার বড় অভিযানে নামছে দুদক এক মঞ্চে ৯৩ বইয়ের মোরক উন্মচন করলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী ১১১ ফুটের গ্রহাণু ধেয়ে আসছে পৃথিবীর দিকে! প্লে স্টোর থেকে আবারও ১৫ অ্যাপ বাতিল কেমন মানুষদের বুদ্ধি বেশি হয়? বিপিএলের চার স্পন্সর প্রস্তুত একসঙ্গে নোবেল জিতেছেন যে দম্পতিরা হাওরের জমি পাবে না রাঘব বোয়ালরা -রাষ্ট্রপতি
৩৭

মসজিদ সারা দিন তালাবদ্ধ রাখা যাবে?

প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০১৯  

বর্তমানে আমাদের দেশের প্রায় মসজিদই নামাজের সময় ছাড়া অন্য সময় তালাবদ্ধ রাখা হয়। মসজিদ কর্তৃপক্ষ বলছে, সব সময় মসজিদ খোলা রাখলে মসজিদ ময়লা হয়ে যায় এবং মসজিদের আসবাবপত্র চুরি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। অথচ অনেক মানুষ ব্যবসা-বাণিজ্য ও অফিস টাইমের ফাঁকে ফাঁকে কিছু অবসর সময় পায়, আবার অবসর পাওয়া মানুষ নামাজ, কোরআন তিলাওয়াত বা ফাজায়েলে আমল কিংবা অন্য দ্বিনি বইপত্র পড়ার ইচ্ছা প্রকাশ করে। কিন্তু মসজিদগুলো তালাবদ্ধ থাকায় এবং উপযুক্ত স্থান না পাওয়ায় তারা এসব করতে পারে না। এ ব্যাপারে ইসলামের বিধান কী?

মসজিদ তালাবদ্ধ রাখার ব্যাপারে শরিয়তের বিধান হলো, মসজিদ মুসলমানের ইবাদতের স্থান ও দ্বিন শিক্ষার অন্যতম জায়গা। মসজিদ শুধু নামাজের জন্য নয়; বরং জিকির-আজকার, কোরআন তিলাওয়াত ও দ্বিনি তালিমের জন্যও বটে। আনাস ইবনে মালেক (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেন, ‘মসজিদ হলো নামাজ, জিকির ও কোরআন পড়ার জন্য।’ (সহিহ মুসলিম, হাদিস : ২৮৫)

তাই নিয়ম হলো, ফরজ নামাজের সময় ছাড়াও মসজিদকে প্রয়োজন মোতাবেক ইবাদত, তালিম ও জিকিরের জন্য উন্মুক্ত রাখা। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ বন্ধ রাখা ঠিক নয়। আল্লামা ইবনুল হুমাম (রহ.) বিনা প্রয়োজনে মসজিদ বন্ধ রাখাকে ‘মানুষকে মসজিদ থেকে বাধা প্রদান করার অন্তর্ভুক্ত করেছেন’। তিনি আয়াত দ্বারা দলিল পেশ করেছেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তার চেয়ে বড় জালেম আর কে, যে আল্লাহর মসজিদগুলো তাঁর নাম নিতে বাধা প্রদান করে এবং সেগুলো ধ্বংস সাধনে প্রয়াসী হয়।’ (সুরা  বাকারা : ১১৪)

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, সব সময় মসজিদ খোলা রাখলে মসজিদের মালামাল সংরক্ষণের বিষয়টি ঝুঁকির মধ্যে পড়ে। এ বিষয়টি বিবেচনা করে কোনো কোনো ইসলামী আইনজ্ঞ নিরাপত্তার প্রয়োজনে নামাজের সময় ছাড়া অন্য সময় মসজিদ বন্ধ রাখাকে জায়েজ বলেছেন। তাই এ ধরনের প্রয়োজনে অন্য সময় মসজিদ বন্ধ রাখার অবকাশ আছে। কিন্তু সে ক্ষেত্রেও নামাজের পরপরই বন্ধ করবে না; বরং জামাত শেষ হয়ে যাওয়ার পরও উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সময় খোলা রাখবে, যেন পরে আসা ব্যক্তিরা ফরজ আদায় করতে পারে। জামাতের পর যারা একটু সময় নিয়ে নফল ইবাদত করতে চায় তাদের জন্যও যেন সুযোগ থাকে।

উল্লেখ্য, কোনো কোনো মসজিদে দেখা যায়, জামাত শেষ করার সামান্য পরেই মসজিদের মুয়াজ্জিন বা খাদেমরা মসজিদে অবস্থানরত মুসল্লিদের বের হয়ে যাওয়ার জন্য তাড়া দিতে থাকেন, যা কিছুতেই সমীচীন নয়। আর যেখানে নামাজের নির্ধারিত সময় ছাড়া অন্য সময়ও ইবাদত ও দ্বিনি তালিমের উদ্দেশ্যে মুসল্লিদের মসজিদে ব্যাপক আসা-যাওয়া থাকে ওই সব মসজিদ খোলা রাখার ব্যবস্থা করা কর্তৃপক্ষের দায়িত্ব। এ জন্য প্রয়োজনে মালামাল সংরক্ষণ করা ও মসজিদ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য অতিরিক্ত খাদেম নিয়োগ দেওয়া যেতে পারে। আর কোনো কোনো ক্ষেত্রে পুরো মসজিদ খোলা রাখা সম্ভব না হলে অন্তত মসজিদের কোনো অংশ অথবা বারান্দা (বাতি ও পাখাসহ) খোলা রাখার ব্যবস্থা করা আবশ্যক।

এটাও মনে রাখতে হবে, মসজিদে যেসব দ্বিনি কাজ করা হবে, তা শরিয়তের আহকাম মোতাবেক হওয়া জরুরি এবং মসজিদ কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে হওয়া আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে যেমন শরিয়তের কোনো বিধান লঙ্ঘন করা জায়েজ নয়, তেমনি মসজিদের বৈধ ও স্বীকৃত কোনো নিয়ম লঙ্ঘন করাও ঠিক নয়।

সূত্র : ফাতহুল কাদির : ১/৩৬৭; শরহুল মুনয়া পৃষ্ঠা ৬১৫; আলবাহরুর রায়েক : ২/৩৩; ফাতাওয়া হিন্দিয়া : ১/১০৯; রদ্দুল মুহতার : ১/৬৫৬; রুহুল মাআনি : ১০/৬৫

এই বিভাগের আরো খবর