শুক্রবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৬   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
দেশ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে চলছে: তথ্যমন্ত্রী বিএনপিপন্থিদের হট্টগোল কলঙ্কজনক-আদালত অবমাননা অন-অ্যারাইভাল ভিসাসহ বাংলাদেশ-ভারতের নৌপথে খুলছে অনেক জট ‘বিশ্বসুন্দরী’র রোমান্টিক গান নিয়ে হাজির সিয়াম-পরী মেয়েদের রৌপ্য, বাকী জিতেছেন ব্রোঞ্জ আইনজীবী তালিকাভুক্তি নিবন্ধন পরীক্ষা ২৮ ফেব্রুয়ারি পদক পাচ্ছেন ডিজিসহ বিজিবির ৬০ সদস্য আখেরাতের জীবন চিরস্থায়ী ডাক ও টেলিযোগাযোগের নতুন সচিব নূর-উর রহমান অপরাধীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই: ওবায়দুল কাদের গৌরনদীতে প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বিনা মুল্যে সার ও বীজ বিতরন হ‌লি আ‌র্টিজান মামলার ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপ কিডনি দান করা যাবে, কেনাবেচা যাবে না: হাইকোর্ট বাংলাদেশে কোনো আর্থিক সংকট নেই: স্পিকার টেলিযোগাযোগ বিভাগে নতুন সচিব, ট্যারিফ কমিশনে চেয়ারম্যান গণতন্ত্র এখন মজবুত ভিতের ওপর প্রতিষ্ঠিত: রাষ্ট্রপতি বাড়াবাড়ির একটা সীমা থাকা দরকার: প্রধান বিচারপতি তরুণদের মেধাশ্রম মানব কল্যাণে ব্যয় করার আহ্বান বিএনপির কাছে কোনো প্রতিষ্ঠান নিরাপদ নয়: আইনমন্ত্রী
৩১৬

বিএনপির রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ

প্রকাশিত: ৬ নভেম্বর ২০১৯  

বিএনপির রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ। একাধিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ বিভিন্ন সংবাদের উপাত্ত বিশ্লেষণ করে এই তথ্যের সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের হঠাৎ রাজনীতি ছাড়ার বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে লন্ডন বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ রাজনীতিতে অনেক সিনিয়র একজন ব্যক্তি। খুব চতুর শ্রেণির মানুষ। সুযোগ পেলেই তার হৃদয়ে দল পাল্টানোর বাতাস প্রবাহিত হয়। যখন জাতীয় পার্টির জয় জয়কার, তখন তিনি এরশাদের খোলে বাসা বেঁধেছিলেন। এরপর বিএনপির রমরমা অবস্থায় খালেদা জিয়ার আশেপাশে থেকে নেতা সাজেন। বিভিন্ন কমিটিতে পছন্দমতো ব্যক্তিদের মনোনয়ন দিয়ে হাজার হাজার কোটি টাকাও কামিয়ে নিয়েছেন তিনি।

এ বিষয়ে ব্যারিস্টার মওদুদের মতামত জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি চিন্তা করেছি অবসর নেব। কিন্তু সেটি হয়তো এখনই কিনা বলতে পারছি না। রাজনীতিতে অবসর বলে কিছু নেই। আপনি বড়জোর দলত্যাগ করতে পারেন বা নির্জীব থাকতে পারেন। দলত্যাগ আর নির্জীব থাকা এক নয়। যদিও আমি দলত্যাগের কথা একটিবারও বলিনি। বিষয়টি শুনতে খারাপ লাগলেও এটি সত্য যে, বিএনপির রাজনীতিতে আর ক্রেজ খুঁজে পাই না। দলের অভ্যন্তরেও নানা বানোয়াট মিথ্যাচার ছড়ানো হচ্ছে আমাকে নিয়ে। আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলেও বিএনপির রাজনীতি প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। আর এ কারণে নিজেকে গুটিয়ে নেবার চিন্তা করছি।

মওদুদ আহমেদ আরো বলেন, যে আশা, যে আদর্শকে সামনে রেখে বিএনপিতে যোগদান করেছিলাম, সে আদর্শ থেকে বিএনপির বিচ্যুতি ঘটেছে। যে কারণে শমসের মুবিন চৌধুরী বিএনপিকে ত্যাগ করেছেন। সঙ্গে ব্যারিস্টার আন্দালিব পার্থ’র বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি ২০ দলীয় জোট থেকে সরে গিয়েছে। অনেকটা সেসব দুঃখ, কষ্ট, ক্লেশ নিয়ে আমি আপাতত বিএনপির রাজনীতি থেকে দূরে থাকতে চাই।

এই বিভাগের আরো খবর