• বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৪ ১৪২৭

  • || ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
আগে নিলে বলবে কাউকে দিলো না: প্রধানমন্ত্রী ৪০তম বিসিএসের ফল প্রকাশ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫২৮ দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী চাল আমদানির ফলে বাজার স্থিতিশীল হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী ৩ কোটি ৪০ লাখ ভ্যাকসিন পাবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী করোনার প্রথম টিকা নিলেন নার্স রুনু দেশে করোনা টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ৭ ফেব্রুয়ারি একযোগে টিকাদান কর্মসূচি শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশে করোনায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৫১৫ কারও ব্যবসায়িক স্বার্থে ভ্যাকসিন সংগ্রহ করেনি সরকার: কাদের দেশের প্রথম নৌপ্রধান ক্যাপ্টেন নুরুল হক আর নেই দেশে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চার লাখ ৮১ হাজার: কাদের শেখ হাসিনার আমলে কোন মানুষ গৃহহীন থাকবে না: শাহরিয়ার আলম বৈধ পথে বাড়ছে রেমিট্যান্স: পলক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৮, শনাক্ত ৬০২ চার ফিফটিতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৯৭ সব জেলায় ৪-৫ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিন পৌঁছে যাবে: পাপন দেশে পৌঁছেছে সেরামের ৫০ লাখ টিকা রমজানে টিসিবির পণ্য ৩ গুণ বাড়ানো হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী

বাঙালি জাতিকে ১০০ বছর পিছিয়ে দেয় এই দিনটি

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৪ ডিসেম্বর ২০২০  

ঠক ঠক ঠক! কে? স্যার একটু বাইরে আসবেন? আমি আপনার ছাত্র। কিছু কথা আছে/ (দরজা খুলে) কি বলো!স্যার একটু আমাদের সঙ্গে যেতে হবে।

সেই যাওয়াই ছিল শেষ যাওয়া। এক জন নয়, দুই জন নয়। এই মিছিল অনেক লম্বা। পাঁচদিনের মাথায় ডিসেম্বরের ১৯ তারিখে রায়েরবাজার বিলে পাওয়া যায় বেয়নেটের খোঁচায় খোঁচায় ছিন্নভিন্ন শরীরগুলো, মাথা বুক বুলেটে ঝাঁঝরা হয়ে গিয়েছে। পিছমোড়া করে বাঁধা হাত, চোখ। বিজয়ের ঠিক আগমুহূর্তে ঘষা কাঁচের মতো অস্বচ্ছ চোখের কিছু আলবদর সদস্য কালো চাদর গায়ে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছিল দেশের হাল ধরতে পারে এমন মানুষদের। উদ্দেশ্য ছিল এই জাতির মেরুদণ্ড ভেঙ্গে দেয়া। 

 

চারদিকে বারুদ আর লাশের পচা গন্ধ

চারদিকে বারুদ আর লাশের পচা গন্ধ

১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর ঠিক একইভাবে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিশিষ্ট মানুষদের জীপে করে নিয়ে যাওয়া হয়। হানাদাররা এরই মধ্যে বুঝে গিয়েছিল যে, তাদের খালি হাতেই দেশে ফিরতে হবে। পরাজয় নিশ্চিত সে কথা বুঝেই এমন ঘৃণিত কাজ তারা করেছিল। একে তো সদ্য জন্ম নেয়া দেহস। তার উপর এত গুণী মানুষ রয়েছে। খুব তাড়াতাড়িই এ দেশের উজ্জ্বল ভবিষ্যতের আঁচ পেয়েছিলেন তারা। তাই এই জাতিকে ১০০ বছর পিছিয়ে দেয়ার জন্য দেশের বুদ্ধিজীবীদের তালিকা করে মেরে ফেলেছিলেন তাদের। একাজে তাদের সহায়তা করেছিল দেশের কলঙ্কিত সন্তানরা। যারা রাজাকার নামেই পরিচিত।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক: 
ড. গোবিন্দ চন্দ্র দেব (দর্শনশাস্ত্র), ড. মুনির চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), ড. মোফাজ্জল হায়দার চৌধুরী (বাংলা সাহিত্য), ড. আনোয়ার পাশা (বাংলা সাহিত্য), ড. আবুল খায়ের (ইতিহাস), ড. জ্যোতির্ময় গুহঠাকুরতা (ইংরেজি সাহিত্য), ড. সিরাজুল হক খান (শিক্ষা), ড. এ এন এম ফাইজুল মাহী (শিক্ষা), হুমায়ূন কবীর (ইংরেজি সাহিত্য), রাশিদুল হাসান (ইংরেজি সাহিত্য), সাজিদুল হাসান (পদার্থবিদ্যা), ফজলুর রহমান খান (মৃত্তিকা বিজ্ঞান), এন এম মনিরুজ্জামান (পরিসংখ্যান), এ মুকতাদির (ভূ-বিদ্যা), শরাফত আলী (গণিত), এ আর কে খাদেম (পদার্থবিদ্যা), অনুদ্বৈপায়ন ভট্টাচার্য (ফলিত পদার্থবিদ্যা), এম এ সাদেক (শিক্ষা), এম সাদত আলী (শিক্ষা), সন্তোষচন্দ্র ভট্টাচার্য (ইতিহাস), গিয়াসউদ্দিন আহমদ (ইতিহাস), রাশীদুল হাসান (ইংরেজি), এম মর্তুজা (চিকিৎসক)।

 

হানাদাররা নির্মনভাবে হত্যা করেছে এদেশের মানুষদের

হানাদাররা নির্মনভাবে হত্যা করেছে এদেশের মানুষদের

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক: 
ড. হবিবুর রহমান (গণিত বিভাগ), ড. শ্রী সুখারঞ্জন সমাদ্দার (সংস্কৃত), মীর আবদুল কাইউম (মনোবিজ্ঞান)। 

চিকিৎসক:
অধ্যাপক ডা: মোহাম্মদ ফজলে রাব্বি (হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ), অধ্যাপক ডা: আলিম চৌধুরী (চক্ষু বিশেষজ্ঞ), অধ্যাপক ডা: শামসুদ্দীন আহমেদ, অধ্যাপক ডা: আব্দুল আলিম চৌধুরী, ডা: হুমায়ুন কবীর, ডা: আজহারুল হক, ডা: সোলায়মান খান, ডা: আয়েশা বদেরা চৌধুরী, ডা: কসির উদ্দিন তালুকদার, ডা: মনসুর আলী, ডা: মোহাম্মদ মোর্তজা, ডা: মফিজউদ্দীন খান, ডা: জাহাঙ্গীর, ডা: নুরুল ইমাম, ডা: এস কে লালা, ডা: হেমচন্দ্র বসাক, ডা: ওবায়দুল হক, ডা: আসাদুল হক, ডা: মোসাব্বের আহমেদ, ডা: আজহারুল হক (সহকারী সার্জন), ডা: মোহাম্মদ শফী (দন্ত চিকিৎসক)।

 

অবশেষে বিজয়ের উল্লাস

অবশেষে বিজয়ের উল্লাস

অন্যান্য: 
শহীদুল্লাহ কায়সার (সাংবাদিক), নিজামুদ্দীন আহমেদ (সাংবাদিক), সেলিনা পারভীন (সাংবাদিক), সিরাজুদ্দীন হোসেন (সাংবাদিক)। আ ন ম গোলাম মুস্তফা (সাংবাদিক), আলতাফ মাহমুদ (গীতিকার ও সুরকার), ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত (রাজনীতিবিদ), রণদাপ্রসাদ সাহা (সমাজসেবক এবং দানবীর), যোগেশ চন্দ্র ঘোষ (শিক্ষাবিদ, আয়ূর্বেদিক চিকিৎসক), মেহেরুন্নেসা (কবি), ড. আবুল কালাম আজাদ (শিক্ষাবিদ, গণিতজ্ঞ), নজমুল হক সরকার (আইনজীবী), নূতন চন্দ্র সিংহ (সমাজসেবক, আয়ূর্বেদিক চিকিৎসক)।