• বৃহস্পতিবার   ০১ অক্টোবর ২০২০ ||

  • আশ্বিন ১৫ ১৪২৭

  • || ১৩ সফর ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
রিফাত হত্যা: মিন্নিসহ ৬ জনের ফাঁসির আদেশ পাঁচদিনের রিমান্ডে জেএমআই চেয়ারম্যান করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৬, শনাক্ত ১৪৮৮ অস্ত্র মামলায় সাহেদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মাহবুবে আলমের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম আর নেই দূরদর্শী নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৪তম জন্মদিন এমসি কলেজে ধর্ষণের ঘটনায় কাউকে ছাড় নয়: কাদের করোনায় আরও ২৮ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪০ মেহেরপুরে ‘আল্লাহর দল’র সক্রিয় সদস্য আটক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৬৬ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৮, শনাক্ত ১৫৫৭ মসজিদে বিস্ফোরণে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪ ধর্ষণ মামলায় ভিপি নুর গ্রেফতার আইসিটি মামলায় আলাউদ্দিন জিহাদী এক দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৪০, শনাক্ত ১৭০৫ গাড়িচালক মালেক ১৪ দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২৬, শনাক্ত ১৫৪৪ গভীর সমুদ্র থেকে ৫ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার, আটক ৭ ব্যাংকটা যেন ভালোভাবে চলে সেদিকে দৃষ্টি দিবেন: প্রধানমন্ত্রী
২৯

বাংলাদেশের নারী কর্মকর্তাদের ভূয়সী প্রশংসা

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১১ আগস্ট ২০২০  

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশনে দক্ষিণ সুদানের বাংলাদেশের নারী কর্মকর্তারা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। যুদ্ধপীড়িত নারী ও শিশুদের সমস্যা সমাধানে সম্প্রীতি বন্ধন তৈরি করে যাচ্ছেন। এই কার্যক্রমে জাতিসংঘ থেকে শুরু করে বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। তারা বাংলাদেশের সুনাম আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে গেছেন। ফলে শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের সুনাম আরও বেড়ে গেছে।

দক্ষিণ সুদানে শান্তিরক্ষা মিশন থেকে জানানো হয়েছে, বিশ্বের যুদ্ধপীড়িত দেশগুলোতে শান্তিস্থাপনের বৈশ্বিক প্রচেষ্টার সমন্বিত উদ্যোগের অংশ হিসেবে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশের সুনাম অনেক আগে থেকেই রয়েছে। এবার যোগ হয়েছে, বাংলাদেশের নারী শান্তিরক্ষীদের নাম। তারা দেশটিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাচ্ছেন। তারা বিভিন্ন কাজে অধিকতর অংশগ্রহণ করে দেশটিতে সম্প্রতির নতুন দিগন্ত সৃষ্টি করেছে। দক্ষিণ সুদানের বাহার-আল-গাজাল এলাকায় বাংলাদেশ ব্যাটালিয়ন-৩ (ব্যানব্যাট-৩) এর সঙ্গে নিয়োজিত নারী শান্তিরক্ষীগণ তাদের পুরুষ সহকর্মীদের পাশাপাশি শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে যুদ্ধপীড়িত নারী ও শিশুদের সমস্যা সমাধানে এগিয়ে নিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।

সূত্র জানিয়েছে, কন্টিজেন্ট কমান্ডারের নিবিড় তত্ত্বাবধানে পরিচালিত নারী শান্তিরক্ষীদের এ দলে রয়েছেন মেডিক্যাল অফিসার লেঃ কর্নেল মাসুমা তাসনিম, নারী শান্তিরক্ষীদের কমান্ডার মেজর আফরোজা এবং লজিস্টিক অফিসার মেজর তাজরিনসহ ১৬ জন নারী সদস্য কাজ করছেন। দক্ষিণ সুদানে মোতায়েনের আগে ইউনিট এবং বিপসটের (বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস সাপোর্ট অপারেশন ট্রেনিং) নিবিড় তত্ত্বাবধানে দক্ষতা উন্নয়ন ও শান্তিরক্ষা মিশন সংশ্লিষ্ট নানামুখী উন্নততর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তারা। নারী দলটিকে দায়িত্ব পালনের জন্য পরিপূর্ণভাবে উপযোগী করে গড়ে তোলা হয়েছে। তারই ফলশ্রুতিতে মিশন এলাকায় আগমনের পর হতে তারা শান্তিরক্ষী বাহিনীর বিভিন্ন অপারেশন কার্যক্রমের পাশাপাশি যুদ্ধপীড়িত জনগণকে সহায়তাসহ আর্থসামাজিক উন্নয়নে যে অবদান রেখেছেন তা ইতোমধ্যেই দক্ষিণ সুদানের জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নিয়োজিত সদর দফতর, সেক্টর সদর দফতর ও ফিল্ড অফিসসহ সবার মনোযোগ আকর্ষণ করেছে। স্থানীয় প্রশাসন ও জনগণ বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের শুধুমাত্র সাদরেই গ্রহণ করেননি বরং বাংলাদেশী এই নারী দলের কার্যক্রমকে উদাহরণ হিসাবে তুলে ধরা হচ্ছে। তারা নিজেদের নারী জনগোষ্ঠীকে সচেতন করে তুলছেন। আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সম্পৃক্ত করতে দক্ষিণ সুদানের নারীরা কাজ করছেন। এ বছর ২৯ মে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে দক্ষিণ সুদানের শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের প্রধান, এসআরএসজি ডেভিট শেহরার পশ্চিমাঞ্চলে সংঘর্ষ ও সংঘাত অবসানে ব্যানব্যাট ৩’র সফলতা উল্লেখ করেন। তিনি বাংলাদেশের নারী শান্তিরক্ষীদের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি উল্লেখ করেন যে নারী শান্তিরক্ষীগণ যুদ্ধপীড়িত নারীদের সমস্যা অনুধাবন এবং সমাধানে নতুন মাত্রা যুক্ত করেছে। শান্তিরক্ষার ক্ষেত্রে নারীদের সাফল্যের বিষয়টি বিবেচনা করে তিনি বাংলাদেশসহ সকল শান্তিরক্ষী প্রেরণকারী দেশসমূহকে অধিকসংখ্যক নারী শান্তিরক্ষী পাঠানোর আহ্বান জানান।

শান্তিরক্ষা মিশনে নারী সৈনিকগণ তাদের পুরুষ সহকর্মীদের পাশাপাশি সকল দায়িত্ব যেমন অস্থায়ী ক্যাম্প পরিচালনা, সীমানা নিরাপত্তা এবং নিরাপত্তা টহলসহ সকল ধরনের অপারেশনাল কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। দীর্ঘদিন যুদ্ধের ভয়াবহতা ও নির্মমতা নব্য প্রতিষ্ঠিত দক্ষিণ সুদানের আপামর জনগণের জীবনের প্রাণোচ্ছলতাকে ম্লান করে দিয়েছিল। তারা বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের কাছে পেয়ে প্রাণখুলে তাদের সুখ দুঃখের কথা বলতে পারছেন। যা সম্ভবত পুরুষ শান্তিরক্ষীদের জন্য অত্যন্ত কঠিন হতো। নারী শান্তিরক্ষীগণ আগ্রহভরে তাদের সমস্যাদি শুনে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেন। পরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছেন।

আনমিস ওয়েবসাইট থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীগণ স্থানীয় মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আমন্ত্রণে কুষ্ঠরোগী নিরাময় কেন্দ্রের অবহেলিত রোগীদের সহায়তার জন্য গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর কাজ শুরু করেছেন। ক্রিসমাস উদযাপন এবং মানবিক সহায়তা ও চিকিৎসা সহায়তার আয়োজনও করেছেন নারী শান্তিরক্ষীরা। ব্যানব্যাট-৩ কর্তৃক আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীগণের সঙ্গে উল্লেখিত কেন্দ্রের রোগীগণ নেচে গেয়ে দিনটি আনন্দে কাটিয়েছেন। বাংলাদেশী নারী সেনাসদস্যগণ রোগীদের খোঁজখবর এবং মতবিনিময়ের পাশাপাশি চিকিৎসা সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন। মৃতপ্রায় কেন্দ্রটিতে নতুন প্রাণের সঞ্চার ঘটেছে। আনমিস ওয়েবসাইটে প্রকাশিত মাজেট ভিওলা নামক একজন নারী কুষ্ঠরোগীর অভিমত, কুষ্ঠরোগী হিসাবে পরিবার এবং গ্রাম আমাদের ত্যাগ করেছিল। সবাই আমাদের ভুলেই গিয়েছিল, আমাদের দুর্দশার অন্ত ছিল না। বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীগণ খাদ্য, বস্ত্র ও চিকিৎসাসামগ্রী নিয়ে দেবদূতের মতো হাজির হলো। এখন আমরা সুস্থ জীবনযাপন করছি।

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চীফ অব জেনারেল স্টাফ সম্প্রতিক তার দক্ষিণ সুদানের পরিদর্শনের সময় বিষয়টি সরেজমিনে প্রত্যক্ষ করেন। বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীগণের প্রদর্শিত দক্ষতা এবং অর্জিত সুনামের প্রশংসা করেন। বিভিন্ন সময়ে আনমিস এসআরএসজি, ফোর্স কমান্ডার এবং ডেপুটি ফোর্স কমান্ডারসহ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণও তাদের পরিদর্শনের সময় বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের ভূমিকার ভূয়সী প্রশংসা করেন। বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের তৎপরতা আনমিস মিডিয়া যেমন ওয়েবসাইট, ফেসবুক, বেতার এবং সংবাদপত্র ইত্যাদিতে নিয়মিতভাবে প্রকাশিত হচ্ছে।

দক্ষিণ সুদানে শান্তিরক্ষা মিশন সূত্র জানিয়েছে, ক্যাথলিক রেডিও নেটওয়ার্ক এ মাজক নামক স্থানে বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের সহায়তায় গবাদি পশু চিকিৎসা বিষয়ক প্রকাশিত সংবাদে চিকিৎসা গ্রহণকারী একজন স্থানীয় নারী পশুপালককে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, আমি এতদিন জানতাম না কেন আমাদের অসংখ্য গবাদি পশু মারা যায়। আজ আমাদের চক্ষু উন্মোচিত হয়েছে, আমরা ব্যানব্যাটের নারীদের নিকট থেকে যে ওষুধ এবং পরামর্শ পেয়েছি সেগুলো আমাদের জন্য অবশ্যই সহায়ক হচ্ছে। নারীদের সমতা নিয়ে আন্দোলনরত স্থানীয় নারী নেতৃগণ বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীদের কর্মকান্ডে উদ্বুদ্ধ হয়ে ওয়াও আইনসভার ডেপুটি স্পীকার ও স্থানীয় নারী নেত্রী মিস আলেং ভিওলার নেতত্বাধীন নারী সংগঠনসমূহ বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষী দলের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। এই মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন সহযোগিতামূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তারা বাংলাদেশী নারীদের সৈনিক পেশার এমত এমন কঠিন পেশায় দক্ষতা অর্জনের পাশাপাশি দক্ষিণ সুদানের মতো যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশে দায়িত্ব পালনে অর্জিত সফলতা দেখে উদ্বুদ্ধ হন। তারা স্থানীয় নারীদের বাংলাদেশী নারীদের পাদাঙ্ক অনুসরণ করে দক্ষিণ সুদানের সেনাবাহিনীতে যোগদানে উদ্বুদ্ধ করেন।

মিস ভিওলা বলেন, পরিবার-পরিজন রেখে একজন নারী কিভাবে সম্মুখসারিতে যুদ্ধরত থাকতে পারেন সেটা আমার কাছে কল্পনার অতীত ছিল। বাংলাদেশী নারীদের সংস্পর্শে এসে আমি অভিভূত হয়েছি। দক্ষিণ সুদানের সামর্থ্যবান নারীদের আমরা সেনাবাহিনীতে যোগদানের জন্য উদ্বুদ্ধ করব। নারী-পুরুষের সমতা আনয়নের নৈতিক অবস্থানের পাশাপাশি শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারীদের ক্রমবর্ধমানহারে সম্পৃক্তকরণের জাতিসংঘ ও বৈশ্বিক প্রচেষ্টায় উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হলো বাংলাদেশ ব্যাটালিয়ন-৩’র সঙ্গে নিয়োজিত নারী শান্তিরক্ষীগণের কর্মতৎপরতা। বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নের ক্রমোন্নতির ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতেও সর্বক্ষেত্রে নারীদের অধিকতর অংশগ্রহণ পরিলক্ষিত হচ্ছে। দক্ষিণ সুদানের যুদ্ধক্লান্ত ও বিপর্যস্ত সমাজে যেখানে নারী ও শিশুরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সেখানে বাংলাদেশী নারী শান্তিরক্ষীগণ তাদের জন্য আশীর্বাদ হিসাবে আবির্ভূত হয়েছে। তাদের সমন্বিত কর্মদক্ষতা দক্ষিণ সুদানের শান্তিরক্ষা কার্যক্রম পরিচালনায় সার্বিক কৌশল নির্ধারণসহ ক্ষতিগ্রস্ত নারী ও শিশুদের সমস্যা সমাধানের উপায় নির্ধারণে একটি সেতুবন্ধন রচনায় সক্ষম হয়েছে। দক্ষিণ সুদানে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে বৃহত্তর এবং টেকসই শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের নারী কর্মকর্তারা অবদান রাখছেন।

 

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর