সোমবার   ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ১ ১৪২৬   ১৬ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
রোহিঙ্গা ভোটার খতিয়ে দেখতে চট্টগ্রামে কবিতা খানম আগামী ১০মাসের রোডম্যাপ তৈরি ও তার বাস্তবায়ন করবো - জয় ও লেখক ডেঙ্গুতে সরকারি হিসেবে ৬৮ জনের মৃত্যু আ. লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা ১৮ সেপ্টেম্বর বরিশাল নগরীতে আসছে স্মার্ট এলইডি লাইটিং বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপের জন্মদিন আজ আজ থেকে ট্রাকে পেঁয়াজ বিক্রি করবে টিসিবি বিশ্ব ওজন দিবস আজ শিগগিরই বন্দর-ট্রেনে যুক্ত হচ্ছে ত্রিপুরা-বাংলাদেশ দিল্লিতে শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠক ৫ অক্টোবর সারাদেশে ৭৫ প্রতিষ্ঠানকে পাঁচ লক্ষাধিক টাকা জরিমানা প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগের ফল প্রকাশ এ পি জে আব্দুল কালাম স্মৃতি পুরস্কারে ভূষিত শেখ হাসিনা টস হেরে ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ বরিশালকে যানজট মুক্ত রাখতে কাজ করছে ট্রাফিক সদস্যরা- ডিসি ট্রাফিক সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন : প্রধানমন্ত্রী বরিশালে কাজী নজরুল ইসলামের ৪৩তম প্রয়াণ বার্ষিকী অনুষ্ঠিত রাজশাহীর পুলিশ একাডেমিতে কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী গণপরিবহনে মাসিক বেতনে চালক নিয়োগের নির্দেশ হাইকোর্টের সারদার পথে প্রধানমন্ত্রী
৪৩৮

বর্জ্য থেকে জ্বালানি প্রকল্প বরিশালে

প্রকাশিত: ১৮ নভেম্বর ২০১৮  

রিশালের প্লাস্টিক, পলিথিনসহ সব ধরনের বর্জ্য দিয়ে তৈরি হবে জ্বালানি তেল ডিজেল, এলপিজি গ্যাস, জেট ফুয়েল, বায়োগ্যাস ও সার। বরিশালের কৃতীসন্তান আমেরিকা প্রবাসী বিজ্ঞানী আনজুমান আরা ও তার স্বামী বিজ্ঞানী ড. মইনউদ্দিন সরকার বাদলের উদ্ভাবনী এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে বরিশাল সিটি এলাকায়। শুক্রবার বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়র সাদিক আবদুল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এই প্রজেক্টের কর্মপকিল্পনা সম্পর্কে অবহিত করে এই বিজ্ঞানী দম্পতি। প্রথমাবস্থায় পরীক্ষামূলকভাবে এই পাইলট প্রকল্প চালু করা হবে। পরে বড় পরিসরে প্লান্টের মাধ্যমে বাস্তবায়িত হবে এই প্রকল্প। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে বরিশাল তথা বাংলাদেশ বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দক্ষিণ এশিয়ার রোল মডেলে পরিণত হবে বলে আলোচনা হয়। বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়কেও এ প্রকল্পের সঙ্গে সম্পৃক্ত করা হবে।

প্রকল্পের জন্য ইতিমধ্যে স্থান নির্ধারণে বিসিসির প্রকৌশল বিভাগকে নির্দেশ দিয়েছেন সিটি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ।

আমেরিকা প্রবাসী বিজ্ঞানী আনজুমান আরা বলেন, প্রযুক্তির উৎকর্ষের সঙ্গে সঙ্গে টিভি, ফ্রিজ, মাইক্রো ওভেন, কম্পিউটার, মুঠোফোন, এয়ারকন্ডিশনার, ওয়াশিং মেশিন, ডিভিডি প্লেয়ার, সিএফএল বাল্ব, পানির বোতল, খেলনা, ব্যাগসহ প্লাস্টিকের বহু পণ্য ব্যবহূত হচ্ছে দৈনন্দিন জীবনে। কয়েক বছর ব্যবহারে এসব পণ্যের কর্মক্ষমতা শেষ হয়ে গেলে তখন তাদের ঠিকানা হয় ডাস্টবিন। আবর্জনা ফেলা হয় বাংলাদেশের নদী-নালা, ডোবা, এমনকি উন্মুক্ত স্থানে। এসব প্লাস্টিক, পলিথিনসহ সব ধরনের বর্জ্য দিয়ে তৈরি করা হবে ডিজেল, এলপিজি গ্যাস, জেট ফুয়েল, বয়োগ্যাস ও সার।

বরিশাল সিটিতে প্রতি বছর ২৭ মেট্রিক টন ইলেকট্রনিক ওয়েস্ট ও প্লাস্টিক বর্জ্য তৈরি হয়। ফেলে দেওয়া প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে দেশের চাহিদা পূরণের জন্য প্রয়োজনীয় জ্বালানি তৈরি সম্ভব বলে মনে করেন বিজ্ঞানী দম্পতি ড. মইনউদ্দিন সরকার বাদল ও আনজুমান আরা। প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে নবায়নযোগ্য জ্বালানি তেল উৎপাদন করে এরই মধ্যে সবার দৃষ্টি কেড়েছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী এই দুই বিজ্ঞানী। বিজ্ঞানী আনজুমান আরা বলেন, ২০০৫ সালে মার্কিন সরকার তাদের একনিষ্ঠ গবেষণার জন্য ব্রিজপোর্টে ৫৭ হাজার বর্গফুট জায়গা এবং দেড় কোটি ডলার বরাদ্দ দেয়। এ অর্থ দিয়ে প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম ও প্লাস্টিক বর্জ্য কিনে সরাসরি তেল উৎপাদনের কাজ শুরু করেন তারা। প্লাস্টিক বর্জ্যের ঝুঁকি মোকাবিলা ও বিকল্প জ্বালানি তৈরির গবেষণা করে তারা সফল হন। তারা বলেন, প্লাস্টিক এক ধরনের অশোধিত তেল। এই তেল ঠাণ্ডা করে যে কোনো আকৃতি দেওয়া যায় এবং সংরক্ষণ করা যায়। প্লাস্টিক বর্জ্য থেকে অপরিশোধিত তেল উৎপাদনের জন্য ৭০৭ থেকে ৭৫২ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রা প্রয়োজন। এই প্রক্রিয়ায় যে তেল উৎপাদন করা হবে, তা বাজারের প্রচলিত জ্বালানি থেকে আলাদা নয়। বরং আরও উন্নত। এই জ্বালানি দিয়ে গাড়ি, জেনারেটরসহ সব ধরনের ইঞ্জিন চালানো সম্ভব। এই প্রক্রিয়ায় প্রতি গ্যালন তেল উৎপাদনে খরচ হবে মাত্র এক ডলার।

এই বিজ্ঞানী দম্পতি জানায়, প্রাথমিক পর্যায়ে নানা প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হলেও শেষ পর্যন্ত তারা সফল হয়েছে। এখন প্রতি বছর বছর ২০ থেকে ৩০ কোটি ব্যারেল তেল উৎপাদনের লক্ষ্য রয়েছে তাদের।

আনজুমান আরা ও ড. মইনউদ্দিন সরকার বাদল নিউইয়র্কের ব্রিজপোর্ট ও নিউজার্সিতে এ ধরনের প্লান্ট গড়ে তুলেছেন। তাদের কোম্পানির নাম ওয়েস্ট টেকনোলজিস এলএলসি (ডব্লিউটিএল)। শুধু প্লাস্টিক থেকে তেল উৎপাদন করে তাদের কোম্পানি। এই তেলের নাম ডব্লিউটিএল ফুয়েল। তাদের প্রযুক্তিতে আমেরিকায় তেল উৎপাদন করছে আরও একটি কোম্পানি।

ড. মইনউদ্দিন সরকার জানান, ডব্লিউটিএল ফুয়েলের বিশেষত্ব হচ্ছে এটি পরিবেশবান্ধব। এতে কোনো সালফার থাকবে না। অন্য জ্বালানিতে সালফার রয়েছে। সালফারমিশ্রিত তেল ব্যবহারের কারণে বাতাসে সালফার ডাই-অক্সাইড ছড়াচ্ছে, যা পরিবেশের জন্য ভীষণ ক্ষতিকর।

এই বিভাগের আরো খবর