• মঙ্গলবার   ০২ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ১০ শাওয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল ১২টার পরিবর্তে ১১টায় প্রকাশ হবে এসএসসির ফল করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৬৪ পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল
৯৭

বরিশালে মৌসুম শেষে মিলছে নদীর ইলিশ

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

ইলিশ মৌসুমের বাকি আছে আর মাত্র ২২ দিন। আর এই শেষ ভাগে নদীতে ইলিশ মিললেও সাগরের ইলিশ না আসায় দাম তেমন কমছে না। সপ্তাহ জুড়ে প্রতিদিন গড়ে প্রায় ৫ থেকে ৬শ’ মণ করে নদীর ইলিশ মিলছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল বৃহৎ পাইকারি বাজার পোর্টরোডে মৎস্য আড়তদার সমিতির প্রচার সম্পাদক ইলিশ ব্যবসায়ী ইয়ার উদ্দিন সিকদার।

তিনি জানান, বর্তমানে নদীতে ইলিশ মিললেও সাগরের ইলিশের দেখা মিলছে না। ফলে দামও আশানুরূপ কমছে না। গতকাল সোমবার পাইকারি এ বাজারে এক কেজি সাইজের ইলিশ বিক্রি হয়েছে ৪০ হাজার টাকা প্রতি মণ, ১২শ’ থেকে সাড়ে ১২শ’ গ্রাম ওজনের ইলিশ বিক্রি হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। দেড় কেজি ওজনের সবচেয়ে বড়ো সাইজের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে প্রতি মণ ৬৫ হাজার টাকা দরে। ৬শ’ থেকে সাড়ে ৯শ’ গ্রামের প্রতি মণ বিক্রি হচ্ছে ৩২ হাজার টাকায়। ৫শ’ থেকে ৬শ’ গ্রামের ইলিশ ২৫ হাজার ও ছোটো সাইজের ইলিশ প্রতি মণ ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

তবে গতকাল সরেজমিনে পাইকারি বাজার ঘুরে দেখা গেছে, অধিকাংশ ইলিশের পেটে ডিম ভর্তি। এছাড়া ছোটো সাইজের জাটকা ইলিশ এখানকার বাজারে বেশি বিক্রি হচ্ছে।

বরিশাল জেলা মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নীরব হোসেন টুটুল জানান, এবার বছরের বেশির ভাগ সময়ই ইলিশ শূন্য ছিল এ পাইকারি বাজার। গত মাসের মাঝামাঝি সময়ে সমুদ্রের কিছু ইলিশ আসলেও আর ইলিশের দেখা মিলছিল না। তবে কয়েক দিন ধরে নদ-নদী ও সাগরের মোহনা থেকে জেলেরা ইলিশ নিয়ে মোকামে আসছেন। নদ-নদীর এ ইলিশ চাহিদার তুলনায় খুবই নগণ্য, তাই দাম কমছে না। তিনি বলেন, বৈরী আবহাওয়া কেটে যাওয়ায় সাগরমুখে ট্রলার ছেড়ে গেছে। এ ট্রলার ফিরলে ও নদীতে মাছ মিললে দাম কিছুটা কমবে।

মেঘনা, তেতুলিয়া ও কীর্তনখোলাসহ বিভিন্ন নদীতে মৌসুমের শেষভাগে ইলিশ মিলতে শুরু করায় জেলে পরিবারগুলো ক্ষতি পুষিয়ে ওঠতে শুরু করেছে। এই জেলেরা সাগরে গিয়ে ইলিশ শিকার করেন না। তারা দীর্ঘ ৪/৫ মাস ধার-দেনা করে নদী চষে বেড়িয়েছেন কিন্তু ইলিশের দেখা পাননি। এখানকার বৃহত্ আড়ত মেসার্স মাহিমা এন্টারপ্রাইজে ইলিশ বিক্রি করতে আসা জেলে ইউসুফ মাঝি জানান গত ৭ দিনে তিনি ইলিশ বিক্রি করে ধার-দেনা পরিশোধ করেছেন। একাধিক জেলে জানান, গত কয়েকদিন ধরে নদীতে ও সাগরের মোহনায় ইলিশ মিলছে।

গত এক সপ্তাহ নগরী ও আশপাশের এলাকা থেকে ইলিশ কিনতে আসা ক্রেতাদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। তবে দাম একটু চড়া থাকায় অনেকেই ছোটো সাইজের ইলিশ কিনেছেন। আর বড়ো সাইজের ইলিশ ধনী ক্রেতারা কিনে বরফ দিয়ে সংরক্ষণ করে নিয়ে যাচ্ছেন।

অধিদপ্তরের বরিশালের মৎস্য কর্মকর্তা (ইলিশ) ড. বিমল চন্দ্র দাস জানান, ডিমওয়ালা মা-ইলিশ রক্ষায় আগামী ৯ অক্টোবর শুরু হচ্ছে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা। এ সময় ডিম ছাড়তে সমুদ্রের লোনা পানি ছেড়ে নদ-নদীর মিঠাপানিতে আসছে ডিমওয়ালা ইলিশ। নিষেধাজ্ঞার আগে ও পরে নদ-নদী এবং সাগর মোহনায় জেলেদের জালে ইলিশ মিলবে বলে আশা করেন তিনি। ডিমওয়ালা মা-ইলিশ রক্ষা কার্যক্রম সফল হলে পরবর্তী বছর আরো ইলিশ পাওয়া যাবে বলে মনে করেন তিনি।

বরিশাল বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর