বৃহস্পতিবার   ২২ আগস্ট ২০১৯   ভাদ্র ৬ ১৪২৬   ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪০

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
রিফাত হত্যায় পুলিশ প্রতিবেদন কাল শরীরে ট্যাটু আঁকায় ক্যানসারের ঝুঁকি বাকেরগঞ্জে একুশে আগস্ট উপলক্ষে শোক র‍্যালী বাবুগঞ্জে একুশে আগষ্ট স্মরনে র‌্যালী ও আলোচনা সভা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলাকারীদের ফাঁসির দাবিতে গৌরনদীতে শোকর‌্যালি বাকেরগঞ্জে ৮৯ শতাংশ সরকারি খাস জমির অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশূন্য করতে চেয়েছিল: আ ক ম মোজাম্মেল হক ২০২১ সাল থেকে কারিগরী শিক্ষা বাধ্যতামূলক হচ্ছে পেঁপেঁ পাতার রস খেয়ে ডেঙ্গু জ্বরে সুস্থ্য হয়েছেন সাত জন বানারীপাড়া ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্বরনে আলোচনা সভা ২১শে আগষ্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে মেহেন্দিগঞ্জে আলোচনা সভা স্বাস্থ্যশিক্ষা তৃণমূলে নিতে মন্ত্রীকে দুদকের চিঠি ‘গার্লস প্রায়োরিটি’ গ্রুপের এডমিন তাসনুভা কারাগারে আবার মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে টেলিফোন শিল্প সংস্থা-মোস্তফা জব্বার গ্রেনেড হামলার দায় খালেদা জিয়া এড়াতে পারেন না: প্রধানমন্ত্রী অর্থনৈতিক বিকাশে প্রধান বাধা দুর্নীতি: দুদক চেয়ারম্যান বাপ্পির ‘ডেঞ্জার জোন’ আসছে দুর্গাপূজায় গ্রেনেড হামলায় নিহত সেন্টুর কবর জিয়ারত ভবনে প্রবেশে বাধা: দণ্ডবিধির আইন প্রয়োগ করবে ডিএনসিসি সঙ্গী যখন হাত ধরে, বুঝে নিন সম্পর্কের গভীরতা
১০০

ফিল্ড আম্পায়ারের হাতে থাকছে না ‘নো বল’

প্রকাশিত: ৮ আগস্ট ২০১৯  

ক্রিকেটে নো বল বিতর্কের শেষ নেই। অনেক সময়ই ফিল্ড আম্পায়ারদের চোখ এড়িয়ে যায় নো বল। যা প্রভাব ফেলে ম্যাচের উপর। এসব বিতর্ক থেকে বের হতেই মাঠের আম্পায়ারদের ওপর পায়ের নো বল দেয়ার ক্ষমতা রাখছে না আইসিসি।

নির্ধারিত সীমানা পার হয়ে গেলে যে নো বল হবে তার সিদ্ধান্ত এখন থেকে টিভি আম্পায়ার নেবেন। জনপ্রিয় ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকইনফোকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আইসিসি’র জেনারেল ম্যানেজার (ক্রিকেট অপোরেশনস) জিওফ অ্যালারডাইস বলেন, ‘২০১৬ সালে যে পদ্ধতি আনা হয়েছিল তা আবার ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছি আমরা। তৃতীয় আম্পায়ার বোলারের পায়ের নো বলের দিকে নজর রাখবেন। বোলিংয়ের সময় বোলারের পা পড়ার কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই ছবি চলে যাবে তৃতীয় আম্পায়ারের কাছে। তিনি জানাবেন মাঠের আম্পায়ারকে যে সেটি নো বল ছিল কি না। তিনি কিছু না জানালে বলটিকে নো বল ঘোষণা করা যাবে না।’

এর আগে, ২০১৬ সালে ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তানের মধ্যকার একটি একদিনের ম্যাচে পরীক্ষামূলকভাবে এই পদ্ধতি ব্যবহার করা হয়েছিল। কিন্তু সে সময়ে তা খুব বেশি কার্যকর হয়নি। 

এক পরিসংখ্যান থেকে জানা গেছে, ‘২০১৮ সালে শুধুমাত্র ছেলেদের একদিনের ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটেই ৮৪ হাজারের বেশি বল করা হয়েছে। এত বিশাল সংখ্যক ডেলিভারি নজরে রাখা খুবই কঠিন মনে হয়েছে আইসিসির কাছে। তাই আপাতত পরীক্ষামূলকভাবেই এই বছর কিছু কিছু ম্যাচে এই পদ্ধতি ব্যবহারের কথা ভাবছে আইসিসি।’

আইসিসি যদি এই পদ্ধতি পরীক্ষামূলকভাবে ব্যবহার করে সফলতার দেখা পায়, তবে স্থায়ীভাবে পায়ের নো বল ঘোষণার জন্য টিভি আম্পায়ারকেই মূল দায়িত্ব দেয়া হবে। ক্রিকেটকে আরও নির্ভুল ও নিখুঁত করে তোলার চেষ্টা থেকেই এমন পরিকল্পনা নিয়েছে আইসিসি।

এই বিভাগের আরো খবর