রোববার   ১৭ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬   ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
হলি আর্টিসান মামলার রায় ২৭ নভেম্বর ‘সরকারি কাজে স্বচ্ছতার বিকল্প নেই’- স্পিকার প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো অভিযোগ নেই- গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এফআর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতি : বিএনপি নেতা ফারুকসহ ৩জন কারাগারে বরিশালে প্রাথমিক সমাপনীতে বসেছে ১ লাখ ৮৮ হাজার শিক্ষার্থী ছয় দিনের রিমান্ডে সম্রাট প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু: প্রস্তুত ২৯ লাখ শিক্ষার্থী আজ মজলুম জননেতা হামিদ খান ভাসানীর প্রয়াণ দিবস আমিরাতে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু আজ আমার বাসায় সমস্ত রান্না হয়েছে পেঁয়াজ ছাড়া- প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির টাকা দিয়ে ফুটানি চলবে না : প্রধানমন্ত্রী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল সম্পাদক বাবু বরিশালে হিজড়া জনগোষ্ঠীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে- শেখ হাসিনা পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে কাল-পরশু এলেই দাম কমবে- প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী দুবাই যাচ্ছেন আজ স্বেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলন আজ মেসির জাদুতে ব্রাজিলকে হারাল আর্জেন্টিনা আয়কর দিলেন অর্থমন্ত্রী, রিটার্ন দাখিল প্রধানমন্ত্রীর
৪৫

নষ্ট হওয়া খাবারেই ২০০ কোটি লোকের ক্ষুধা মেটানো সম্ভব

প্রকাশিত: ৫ নভেম্বর ২০১৯  

বিশ্বে প্রতিবছর ১৪০ কোটি টন খাবার নষ্ট হয় বলে জানিয়েছে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও)। সংস্থাটির মতে, এই নষ্ট হওয়া খাবার দিয়ে প্রতি বছর ২০০ কোটি মানুষকে পেট ভরে খাওয়ানো সম্ভব।

জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সালে ১৩ হাজার ৩০০ কোটি পাউন্ড খাদ্য নষ্ট হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে, যা জনপ্রতি বছরে ৪২৯ পাউন্ড এবং দেশটির মোট খাদ্য সরবরাহের ৩১ শতাংশ। আর ২০১০ সালে যুক্তরাষ্ট্রে নষ্ট হয়েছে প্রায় ১৬ হাজার ২০০ কোটি ডলার মূল্যের খাবার। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ১৩ লাখ ৭৭ হাজার কোটি টাকা।

জাতিসংঘের পরিবেশসংক্রান্ত ওয়েবসাইটে পাওয়া তথ্যতে দেখা যায়, শিল্পোন্নত দেশগুলোতে বছরে খাদ্য নষ্টের আর্থিক মূল্য ৬ হাজার ৮০০ কোটি ডলার। আর উন্নয়নশীল দেশে এর পরিমাণ ৩ হাজার ১০০ কোটি ডলার। ধনী দেশগুলোতে ভোক্তারা বছরে ২২ কোটি ২০ লাখ টন খাবার নষ্ট করেন।

ওয়েবসাইটটিতে আরও উল্লেখ আছে, ইউরোপ ও উত্তর আমেরিকায় বছরে মাথাপিছু খাবার নষ্ট করার পরিমাণ প্রায় ১১৫ কেজি। আর বছরে মাথাপিছু ৬-১১ কেজি খাবার নষ্ট করা হয় সাবসাহারা, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায়।

 

এই বিভাগের আরো খবর