বুধবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ১৫ ১৪২৬   ০৩ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
জীবাশ্ম জ্বালানি নিজেদের উন্নয়নে ব্যবহৃত হবে: প্রধানমন্ত্রী বিডিএফে আজ উপস্থাপন অষ্টম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা সংসদে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিল, ২০২০ পাস ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটে চলবে ইলেক্ট্রিক ট্রেন: সংসদে রেলমন্ত্রী বরিশালের ৪০ হাজার মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে‘আমার বাড়ি আমার খামার’ র‌্যাব-৮ এর অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার মৌলভীবাজারে অগ্নিকাণ্ডে একই পরিবারের ৫ জন নিহত একনেকে ৯ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী করোনা ভাইরাস: সর্বত্র সতর্ক থাকার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ইসলামে শূকর নিষিদ্ধের বিষয়টি যেভাবে সমর্থন করে বিজ্ঞান আমেরিকা ও ইসরায়েলের কমান্ডাররাও পালানোর পথ খুঁজে পাবে না নেহা-আদিত্যর বিয়ে ১৪ ফেব্রুয়ারি সোয়া ৯ কোটি টাকা আত্মসাতে তিনজনের বিরুদ্ধে মামলা এবার বিএনপি ছাড়ছেন কোষাধ্যক্ষ সিনহা! নারীর নিরাপত্তায় ৪৮ হাজার এলইডি লাইট লাগানোর প্রতিশ্রুতি আতিকের নির্বাচনী কার্যালয়ে রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক হাতিরঝিল—বনশ্রী হয়ে চট্টগ্রাম রোডে মিলবে পৃথক চারলেন ব্যাংককের ইমিগ্রেশন হচ্ছে শাহ আমানত বিমানবন্দরেও মেহেন্দিগঞ্জে ড্রেজার মেশিন সহ দুজন আটক, কারাদন্ড চীনে আটকে পড়াদের দেশে ফেরাতে বিশেষ ফ্লাইট পাঠাবে সরকার
১০

‘দেশের নদ-নদী দখল রোধে কাজ করছে সরকার’

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২০  

জাতীয় নদী কমিশনের চেয়ারম্যান ড.মুজিবুর রহমান হাওলাদার বলেছেন, দেশের নদ-নদীর দূষণ, নদী দখল রোধে নদী ও খাল রক্ষায় কঠোরভাবে কাজ করছে সরকার। গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় মোংলা বন্দর এলাকায় নদী পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন তিনি।

এসময় তিনি বলেন, দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উপকূলীয় এলাকায় নদ রক্ষায় আমাদের সমুদ্র বন্দর ও ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সুন্দরবনের কথা চিন্তা করতে হবে। বনের বনজ সম্পদ ও জীব বৈচিত্র্য রক্ষা এবং রামপালের তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কথা মাথায় রেখে এ অঞ্চলের নদীগুলো রক্ষা করতে মাঠে নেমেছে সরকারের প্রশাসনিক দল। এখানকার নদী দখল ও খাল রক্ষায় উপজেলা প্রশাসনকে আমাদের সকলকে এগিয়ে আসতে হবে।

এসময় তিনি বলেন, সমস্যা সমাধানে প্রশাসনের কার্যক্রমের পাশাপাশি মানুষের মধ্যে গণসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। যাতে মানুষ বুঝতে পারে সরকার জনগণের বন্ধু, সরকার দেশে ও মানুষের উন্নয়ন করছে। সুন্দরবনের মধ্যে প্রায় ৪৫০টি শাখা খাল রয়েছে, মানুষের অপব্যবহারের কারণে তা ধ্বংস হচ্ছে এবং পলি পড়ে অধিকাংশ খাল ভরাট হয়ে যাচ্ছে।

এছাড়াও সমুদ্র বন্দরের সাথে সংশ্লিষ্ট মোংলা-রামপালে ঘশিয়াখালী সংলগ্ন ৮৩টি খাল ও তার শাখা খালগুলো এখনও পু:খনন কাজ সম্পূর্ণ হয়নি। সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক পুরনো খতিয়ান অনুযায়ী খুব শীঘ্রই তা দখল ও অবমুক্ত করা হবে।

এসময় জাতীয় নদী কমিশনের চেয়ারম্যান সরকারের সচিব ড.মুজিবুর রহমান হাওলাদার ছাড়াও জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের সার্বনিক সদস্য মোঃ আলাউদ্দিন, উপ-পরিচালক আখতারুজ্জামান তালুকদার, বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল এম মোজাম্মেল হক, বন্দর কর্তৃপক্ষ (সদস্য অর্থ) যুগ্ম-সচিব ইয়াসমিন আফসানা, পরিচালক প্রশাসন মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আজিজুল কবির, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রাহাত মান্নান, সহকারী কমিশনার ভূমি নয়ন কুমার রাজবংশীসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এই বিভাগের আরো খবর