• শনিবার   ৩১ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
একনেক বৈঠক শুরু, অনুমোদন হতে পারে ১০ প্রকল্প করোনা টেস্টে গ্রামীণ জনগণের ভীতি নিরসনে কাজ করতে হবে জয়ের কাছ থেকেই আমি কম্পিউটার শিখেছি : প্রধানমন্ত্রী মানুষকে ব্যাপকভাবে ভ্যাকসিন দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদন হবে দেশেই: শেখ হাসিনা সজীব ওয়াজেদ জয়ের ৫১তম জন্মদিন আজ করোনা মোকাবিলায় সশস্ত্র বাহিনীসহ সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার আহ্বান ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতির শোক সুশৃঙ্খল সেনাবাহিনী গণতন্ত্র সুসংহত করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করে শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ নভেম্বরে এসএসসি, ডিসেম্বরে এইচএসসি পরীক্ষা: শিক্ষামন্ত্রী নিম্নআয়ের মানুষের জন্য ৩২০০ কোটি টাকার প্রণোদনা ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট মানতে হবে যেসব বিধিনিষেধ কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল করে প্রজ্ঞাপন জারি দারিদ্র্যের সাথে জনসংখ্যা বৃদ্ধির সম্পর্ক রয়েছে: রাষ্ট্রপতি উন্নয়নের অন্যতম পূর্বশর্ত পরিকল্পিত জনসংখ্যা: প্রধানমন্ত্রী ক্লাইমেট ভালনারেবলস ফাইন্যান্স সামিট উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর উপহারের এক টন আম যাচ্ছে নেপালে ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীকে আম পাঠালেন প্রধানমন্ত্রী ‘জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার পর খালেদাকে ঘরে নিতে চাননি’

দুই কারণে বাংলাদেশিদের করোনা হওয়ার আশঙ্কা কম

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৭ মার্চ ২০২০  

 

 

বাংলাদেশিদের দুটি কারণে প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা একেবারেই কম বলে জানিয়েছেন সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ড. বিজন কুমার শীল।

শনিবার (৭ মার্চ) গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) নিয়ে ‘স্যুপ টু সিক বেড’ শীর্ষক সেমিনারে এ কথা বলেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের উদ্যোগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।  

অধ্যাপক ড. বিজন কুমার শীল বলেন, যাদের শরীরে এনজাইম এসিই-২ নামক পদার্থের অনুপাত বেশি, তাদের করোনা ভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি। সেই তুলনায় বাংলাদেশিদের খাদ্যাভ্যাস এবং এনজাইম এসিই-২ পদার্থের অনুপাত শরীরে কম থাকায় করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।

তিনি বলেন, বিশ্বজুড়ে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় এবং কার্যকর কোনো ওষুধ বা চিকিৎসা না থাকায় রোগটির লক্ষণ, উপসর্গ, প্রতিকার ও প্রতিরোধ বিষয়ে আমাদের সচেতন থাকতে হবে। এ ভাইরাস থেকে রক্ষায় ব্যক্তিগত পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই।

ড. বিজন বলেন, ২০০৩ সালে সার্স নামের যে ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব হয়েছিল, ২০১৯ সালে বিশ্বব্যাপী মহামারি আকার ধারণ করা করোনা ভাইরাসের সঙ্গে তার ৮০ শতাংশ মিল পাওয়া গেছে।

 

দুই কারণে বাংলাদেশিদের করোনা হওয়ার আশঙ্কা কমতিনি আরও বলেন, নিউমোনিয়া, ডায়েরিয়া ও শুকনো কাশি হলো করোনা ভাইরাসের প্রাথমিক লক্ষণ ও উপসর্গ। যা আমাদের পাকস্থলী, ফুসফুস, কিডনি ও লিভারকে মারাত্মক ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের একেবারেই দুর্বল ও যারা ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন এ রকম বয়স্ক ব্যক্তিদের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেশি।

করোনা প্রতিরোধ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে বিদেশ ভ্রমণ থেকে বিরত থাকা, ঠিক মতো হাত ধোয়া, বিশেষ মাস্ক ব্যবহার ও আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে না যাওয়া এগুলো মেনে চললে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়া অনেকাংশে কমানো যেতে পারে।

 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন—গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষকরা।