• মঙ্গলবার   ০৯ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২৪ ১৪২৭

  • || ২৫ রজব ১৪৪২

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
৭ মার্চের ভাষণ বিশ্বের সম্পদ : পাটমন্ত্রী পাঁচ সংগ্রামী নারীকে জয়িতা পুরস্কার দিলেন প্রধানমন্ত্রী বিএনপির আন্দোলনের বিকল্প হচ্ছে আগুন সন্ত্রাস: কাদের ৭ মার্চের ভাষণে সব নির্দেশনা দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১১ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬০৬ ইতিহাস বিকৃতকারী মহল কূটকৌশল করে ৭ মার্চ পালন করছে: কাদের ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালির মুক্তির ডাক: রাষ্ট্রপতি মুশতাককে নিয়ে বিএনপি মায়াকান্না করছে : তথ্যমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১০, শনাক্ত ৫৪০ স্বল্প আয় থেকে উন্নয়নশীল দেশে পদার্পণ বড় সুখবর: ড. মোমেন বিএনপির ৭ মার্চের কর্মসূচি ভণ্ডামি: কাদের বাংলাদেশের ঝুড়ি এখন খাদ্যে পরিপূর্ণ : কৃষিমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে থাকলে বাংলাদেশের ভবিষ্যত পাল্টে যাবে:আইনমন্ত্রী করোনার টিকা নিলেন প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়নে গবেষণা ও বিজ্ঞানের বিবর্তন অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী সীমান্তে হত্যাকাণ্ড দুঃখজনক: জয়শঙ্কর ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ বিএনপি এখন মায়াকান্না করছে: কাদের প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম মারা গেছেন ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৪

দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের জন্য আরেকটি সুখবর

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০২০  

শুধু যোগাযোগ নয়, পদ্মা সেতু প্রকল্পের মাধ্যমে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ৪০০ কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন পেতে যাচ্ছে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের মানুষ। সেতু থেকে ২ কিলোমিটার ভাটিতে এ জন্য আলাদা করে ৭টি পিলার বসানো হচ্ছে। মূল সেতুর জন্য বরাদ্দকৃত ১২ হাজার কোটি টাকা থেকেই নদীর গভীরে তৈরি হচ্ছে পিলারগুলো। আগামী বছরের শেষ নাগাদ এ কাজ শেষ হবে।

হাইভোল্টেজের ৪০০ কেভির এই বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে যাচ্ছে বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, পায়রা বন্দরসহ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো। আশুগঞ্জ, সিদ্ধিরগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে পদ্মা নদী পার হয়ে বিদ্যুৎ যাবে এসব জেলায়।

তবে পদ্মা সেতুর স্টিলের তৈরি কাঠামোতে ৪০০ কেভি হাইভোল্টেজ লাইন টানা সম্ভব নয় বলে মূল সেতু থেকে ২ কিলোমিটার ভাটিতে আলাদা করে বসানো হচ্ছে ৭টি বিদ্যুতের খুঁটি।

সেতুর পাইলিংয়ের জন্য শক্তিশালী যে হ্যামার বাংলাদেশে আনা হয়েছে, সেটা দিয়েই বিদ্যুৎ বিভাগের জন্য তৈরি করা হচ্ছে এসব পিলার। মূল সেতুর জন্য বরাদ্দকৃত ১২ হাজার টাকার মধ্যেই নির্মাণ করা হচ্ছে এ পিলারগুলো।

গত বছরের জুনে মাটি পরীক্ষার পর এর মধ্যে সব পিলারের পাইলিং শেষ। ৩৬টি খুঁটির মধ্যে ৩২টির কনক্রিটিংয়ের কাজও সম্পন্ন। আগামী বছরের ডিসেম্বর মাস নাগাদ পুরো কাজটি বিদ্যুৎ বিভাগের হাতে বুঝিয়ে দেওয়া সম্ভব হবে বলে আশাবাদী সেতু বিভাগ।

এ বিষয়ে সেতু সচিব বেলায়েত হোসেন বলেন, বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে আমাদের অনুরোধ করা হয়েছে। যে এটা এপ্রিলের মধ্যে শেষ করতে। তবে বাস্তব অগ্রগতি দেখে আমার মনে হয় আরও সময় লাগবে বিদ্যুৎ লাইনের কাজ শেষ করতে। আমরা আশা করছি, ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ সম্পন্ন করতে পারব।

৭টি পিলারের ৩টিতে ৪টি করে আর ৪টিতে ৬টি করে মোট ৩৬টি খুঁটি প্রবেশ করাতে হচ্ছে নদীর তলদেশে। এক একটি পিলারের মধ্যে দূরত্ব ৮৩০ মিটার।