বুধবার   ২২ জানুয়ারি ২০২০   মাঘ ৮ ১৪২৬   ২৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ডিগ্রি পাস ছাড়া ফাজিল মাদ্রাসার সভাপতি হওয়া যাবে না প্রয়োজনে শিক্ষকদের বিদেশে পাঠান : প্রধানমন্ত্রী শিল্প-কারখানার পাশে জলাধার থাকতে হবে: প্রধানমন্ত্রী কারিগরি শিক্ষার উন্নয়নসহ একনেকে ৮ প্রকল্প অনুমোদন যশোর-৬ আসনের এমপি ইসমত আর নেই,প্রধানমন্ত্রীর গভীর শোক আবরার হত্যা : অভিযোগ গঠন ৩০ জানুয়ারি শেখ হাসিনা হত্যাচেষ্টায় পাঁচ জনের মৃত্যুদণ্ড ভারত থেকে পেঁয়াজ কেনার কোনও সুযোগ নেই: বাণিজ্যমন্ত্রী বিশ্বের সামনে বাংলাদেশ উন্নয়নের রোল মডেল : তোফায়েল আহমেদ দেশে মুক্তিযুদ্ধের পতাকাবাহী সরকার প্রতিষ্ঠিত: রাষ্ট্রপ‌তি সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন আইসিসির সিইও সংসদের দক্ষিণ প্লাজায় এমপি মান্নানের প্রথম জানাজা সম্পন্ন সিপিবি’র সমাবেশে বোমা হামলা : ১০ জঙ্গির ফাঁসি এমপি মান্নানের মরদেহে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা আদালতে সিপিবির সমাবেশে বোমা হামলা মামলার ৪ আসামি চীনের জিনজিয়াং প্রদেশে শক্তিশালী ভূমিকম্প শহীদ আসাদ দিবস আজ বৈষম্য বিলোপ আইনের খসড়া তৈরির কাজ চলছে: আইনমন্ত্রী মানবতার কল্যাণ কামনায় শেষ হলো বিশ্ব ইজতেমা আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে লাখো মুসল্লি তুরাগতীরে
১১৪

`ডব্লিউ পজিশনে` বসা ক্ষতিকর অভ্যাস!

প্রকাশিত: ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

বাচ্চাদের প্রিয় কাজগুলোর মধ্যে প্লাস্টিকের খেলনা কামড়ানো, মাটি মুখে দেয়া, মাটিতে খেলা ছাড়াও আরো নানান কিছু রয়েছে। তারা জানে না কোন জিনিসটা তাদের জন্য ভাল এবং কোন জিনিসটা তাদের জন্য খারাপ। আর এসব কাজে বাঁধা দিলেই ঘটে বিপত্তি।

আপনি যতই তাদের সুরক্ষিত রাখতে চান না কেন, অনুচিত কাজগুলো তারা করতে চাইবেই। এসব কাজের ফলে তাদের কি কি অসুবিধা হতে পারে তা তারা বুঝে না। তাই তাদের সব সময় বড়দের নজরদারিতে রাখতে হয়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ঠিক তেমনি ডব্লিউ (W) পজিশনে বসা বাচ্চাদের জন্য অনুচিত। তাই যদি কখনও কোনো বাচ্চাকে W পজিশনে বসতে দেখেন সাথে সাথে তাকে থামাবেন!

কেন? চলুন জেনে আসি-

এই বিশেষ পজিশনে বসলে পায়ের গোড়ালি শরীরের পেছনের দিকে এবং হাঁটু সামনের দিকে অবস্থান করে।  এতে হাঁটুর অংশে একটা V এর আকৃতি নেয় এবং দুই পা মিলিয়ে W এর আকার নেয়।

এখন বলবো এভাবে বসার ফলে প্রথমত, শরীরে খুব জলদি ক্লান্তি চলে আসে। কারণ এই পদ্ধতিতে বসলে প্রচুর শক্তি খরচ হয়। তাই বাচ্চারা অলস অনুভব করবে!

এটা বাচ্চাদের পায়ের অঞ্চলকেও ক্ষতিগ্রস্ত করবে। পায়ের পেশিকে টান টান করে দিবে, যা বাচ্চাদের জন্যে মোটেও ভাল না।

এটা লম্বা সময় ধরে বসলে আরো খারাপ ফল নিয়ে আসবে। এভাবে দীর্ঘসময় বসে থাকলে বাচ্চার স্নায়ুবিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। স্নায়ুবিক সমস্যা মানেই মগজের সঙ্গে জড়িত এবং এটা কখনই এড়িয়ে যাওয়ার মত বিষয় নয়।

এর ফলে পায়ের পেশি অসাড় করে দিবে এবং পায়ের অঙ্গবিন্যাস নষ্ট করে দিতে পারে। কারণ পায়ের পেশি এবং হাড় অনেক নরম হয়।

বাচ্চারা দীর্ঘদিন ধরে এভাবে বসার ফলে শরীর সমন্বয় এবং ভারসাম্য হারাবে। এর সঙ্গে সঙ্গে ঘটতে পারে হিপ ডিসপ্লেসিয়া বা কোমরের হাড়ের পাশাপাশি পায়ের হাড়ের অবস্থান পরিবর্তন। এর ফলে একটা স্বতঃস্ফূর্ত শিশুর ভবিষ্যৎ একেবারে বদলে যেতে পারে।

তাই আপনাদের বলবো যখনই কোনো শিশুকে W পজিশনে বসতে দেখবেন সঙ্গে সঙ্গে তার বসার পজিশন পরিবর্তন করে দিন। আর সবারই তো জানা আছে, প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভাল। একটা বাচ্চার সুরক্ষার চেয়ে বড় আর কিছু কী হতে পারে?