শুক্রবার   ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৮ ১৪২৬   ২৬ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের ভণ্ডপীরসহ ৯ জনের কারাদণ্ড প্রধানমন্ত্রী সব সময় শিক্ষাকে গুরুত্ব দেন: পরিকল্পনামন্ত্রী মুজিব বর্ষে নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী আসন্ন সেচ মৌসুমে লোডশেডিংয়ের শঙ্কা নেই : বিদ্যুৎ বিভাগ একুশে পদক হাতে তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি আজ একুশে পদক প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ জাপানের সঙ্গে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সুস্থ যুব সমাজের বিকল্প নেই : প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনর্বিবেচনা করা হবে : অর্থমন্ত্রী মুঠোফোন প্রতারক জিনের বাদশা গ্রেফতার করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে কান দিবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাগর তীরে উঁচু স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর বিএনপি জ্বালাও-পোড়াও না করলে দেশ আরো এগিয়ে যেত : তথ্যমন্ত্রী শহীদ দিবসে জঙ্গি হামলার কোনো সম্ভাবনা নেই : ডিএমপি কমিশনার দেশে ব্রয়লারসহ কোন পশু-পাখির মধ্যে করোনা পাওয়া যায়নি : আইইডিসিআর
১১

ট্র্যাডিশনাল ওষুধের বিকাশে সরকারি সহায়তার আশ্বাস

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

বাংলাদেশে আয়ুর্বেদিক, হোমিওপ্যাথি ওষুধের মতো ট্র্যাডিশনাল মেডিসিনের বিকাশে প্রাইভেট সেক্টরের প্রতি সরকারের সব ধরনের সহায়তা থাকবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। একই সঙ্গে ট্র্যাডিশনাল মেডিসিনের প্রসারে এর কাঁচামালের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত রাখতে গাছপালা নিধন রোধ এবং বনায়নের প্রতি সবাইকে আহবান জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) ‘বিমসটেক ট্র্যাডিশনাল হেলথ কেয়ার এক্সপো-২০২০’ এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, স্বাস্থ্যখাতে বাংলাদেশের বেশ সুনাম আছে। দেশে ৩৬টি মেডিক্যাল কলেজ এবং চারটি বিশ্ববিদ্যালয় আছে। তবে শুধু মেডিক্যাল কলেজ থাকলেই হয় না, ডাক্তার, নার্স, অন্য লোকবল এবং যন্ত্রপাতি দরকার। কিন্তু তার থেকেও বেশি দরকার ওষুধ। যে ওষুধ রোগীকে দেওয়া হবে তা যেন ভাল হয়, গুণগত মানসম্পন্ন হয়। আপনারা জানেন, অ্যালোপ্যাথি মেডিসিনে আমরা ভাল করছি। তবে ট্র্যাডিশনাল মেডিসিনও সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। যখন অ্যালোপ্যাথি ওষুধ ডেভেলপ করে নাই তখন থেকে বাংলাদেশসহ আশেপাশের অঞ্চলে এ ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন বহুল প্রচলিত ছিল। যদিও পরে অ্যালোপ্যাথি যেভাবে বড় হয়েছে, ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন সেভাবে বড় হয়নি। সরকার একা সবকিছু করতে পারে না। প্রাইভেট খাত উদ্যোগ নেবে, আমরা সরকার থেকে সব ধরনের সাহায্য করবে।

অ্যালোপ্যাথি ওষুধের প্রধান কাঁচামাল গাছপালা উল্লেখ করে বৃক্ষ নিধন রোধ এবং বনায়নের জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন, অ্যালোপ্যাথি ওষুধের অনেক ধরনের প্বার্শ প্রতিক্রিয়া থাকে। ট্র্যাডিশনাল মেডিসিনের সেসব নেই। বিশ্বের অনেক দেশে এখন অ্যালোপ্যাথি থেকে ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন বেশি প্রেসক্রাইব করা হয়। তাই এ খাতে আরও জোর দেওয়ার সময় এখনই। তবে এর মূল কাঁচামাল গাছপালা কিন্তু সেই গাছপালা দিন দিন কমে যাচ্ছে। আমাদের সবার উচিৎ বৃক্ষ নিধন রোধ করা এবং আরও বনায়নের দিকে জোর দেওয়া।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ওষুধ প্রশাসনের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মাহবুবুর রহমান। তিনি বলেন, আমাদের দেশ থেকে ১৫০টিরও বেশি দেশে অ্যালোপ্যাথি ওষুধ রপ্তানি হয়। তবে আয়ুর্বেদিক ওষুধের অবস্থা কী সে বিষয়ে স্পষ্ট ধারণা নেই। আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরি করতে হলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জিএমপি গাইডলাইন ও স্ট্যান্ডার্ড অনুসরণ করতে হয়। দ্বিতীয় বিষয় হচ্ছে, আমাদের দেশে ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন তৈরির দক্ষ লোকবল আছে কি না যারা সব নিয়ম অনুসরণ করে ওষুধ বানাতে পারে। সব থেকে বড় বিষয় এ খাতে উদ্যোক্তা ও বিনিয়োগকারীর অভাব রয়েছে। তবে আমরা এসব বিষয়ে কাজ করছি। জিএমপি অনুসরণ করে একটি গাইডলাইন করছি আমরা যেগুলো ট্র্যাডিশনাল মেডিসিন প্রস্তুতকারকরা ইতোমধ্যে স্বাগত জানিয়েছেন। প্রস্তুতকারকরা কোথা থেকে ওষুধের কাঁচামাল সংগ্রহ করছেন, সেগুলোর গুণগত মান কেমন, ওষুধের মান কেমন, সেগুলো আমরা দেখা শুরু করেছি। সবকিছু একটি আইনি কাঠামোর মধ্যে নিয়ে আসতে কাজ করছি আমরা।

এই বিভাগের আরো খবর