শুক্রবার   ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯   আশ্বিন ৪ ১৪২৬   ২০ মুহররম ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
ছাত্রলীগের পর যুবলীগকে ধরেছি : প্রধানমন্ত্রী ছাত্রলীগকে সংযমের সঙ্গে চলার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রীর সাথে যুক্তরাজ্য প্রতিনিধি দলের সাক্ষাত অবৈধ জুয়ার আড্ডা বা ক্যাসিনো চলতে দেওয়া হবে না: ডিএমপি কমিশনার পটুয়াখালীতে ধর্ষণ মামলার বাদীকে পেটানো প্রধান আসামিসহ গ্রেপ্তার-৪ শাহজালালে বিমানের জরুরি অবতরণ শুক্রবার নিউইয়র্ক যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ফকিরাপুলের ক্যাসিনো থেকে আটক ১৪২ জনের জেল রাজধানীর তিনটি ক্যাসিনোতে র‌্যাবের অভিযান জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে বাংলাদেশ রিয়াদের ফিফটিতে টাইগাররা ১৭৬ রানের লক্ষ্য দিলো জিম্বাবুয়েকে টস হেরে ব্যাটিং এ বাংলাদেশ রিফাত হত্যা : পলাতক ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা রোহিঙ্গা সংকট : ত্রিপক্ষীয় বৈঠকে বসছে চীন-মিয়ানমার-বাংলাদেশ আমাদের কাজই হচ্ছে জনগণকে সেবা দেয়া : প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যুতে চীন বাংলাদেশের পক্ষে: মোমেন আজ গাজীপুর যাবেন প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ দূষণ: ৪ প্রতিষ্ঠানকে কোটি টাকা জরিমানা স্বর্ণজয়ী রোমান সানার মায়ের চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী আরো দু’টি বোয়িং বিমান কেনার ইঙ্গিত দিলেন প্রধানমন্ত্রী

টাকার বিনিময়ে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে ছাত্রদলের প্রার্থিতা

প্রকাশিত: ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯  

জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ষষ্ঠ কেন্দ্রীয় কাউন্সিলে প্রতিদ্বন্দ্বী-আগ্রহী বাদ পড়া নেতারা আপিলের মাধ্যমে প্রার্থিতা ফিরে পাচ্ছেন। এ নিয়ে বিক্ষুব্ধ বাদ নেতারা। তারা বলছেন, আপিল নয়, টাকার বিনিময়ে তাদের প্রার্থিতা ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে।

সূত্র বলছে, মো. জুয়েল হাওলাদার সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থিতার দৌড় থেকে বাদ পড়লেও পরে তাকে আবার বৈধ ঘোষণা করা হয়। এরপর তা নিয়ে ক্ষুব্ধ হন বাদ পড়া অন্যান্য প্রার্থীরা। এবার সভাপতি পদে মোহাম্মদ মামুন বিল্লাহ ওরফে মামুন খানের প্রার্থিতা আপিল কমিটি পুনর্বহাল করেছে। এতে আবারও নতুন করে সমালোচনার ঝড় সৃষ্টি হয়েছে।

দলীয় তথ্যমতে, ছাত্রদলের নতুন কমিটির শীর্ষ দুই পদে আসতে প্রার্থী হতে চাওয়া ৭৬ জন প্রার্থীর মধ্যে ৪৫ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ বলে ঘোষণা করা হয়। অবৈধ ঘোষণা করা হয়েছে ৩১ প্রার্থীর মনোনয়ন। পরে অভিযোগ ওঠে, বৈধ ঘোষিত ৪৫ জন প্রার্থীর মধ্যে অন্তত ১৭ জনই বিবাহিত। কিন্তু নানা কৌশলে তাদের প্রার্থিতা বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

এমন প্রেক্ষাপটে অবৈধ উপায়ে নতুন কমিটি গঠনের প্রচেষ্টাকে প্রতিহতের ঘোষণাও দেয় অবৈধ ঘোষিত প্রার্থীরা। পরে সাধারণ সম্পাদক পদে জুয়েল ও সভাপতি পদে মোহাম্মদ মামুন বিল্লাহ ওরফে মামুন খানের প্রার্থিতা পুনর্বহাল করায় সেই ক্ষোভ আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে।

এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অবৈধ ঘোষিত একজন প্রার্থী বলেন, বিবাহিতসহ আরও বিভিন্ন অভিযোগে যাদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছিলো তাদের মধ্যে জুয়েল ও মামুন বিল্লাহর নামও ছিলো। এটি প্রমাণিত সত্য যে তারা বিবাহিত। বিষয়টিকে আড়াল করে তারা লবিংয়ের মাধ্যমে প্রার্থিতা ফিরে পেলো। যে সংগঠনের জন্য এতদিন ধরে শ্রম দিলাম সেই সংগঠন থেকে শেষপর্যন্ত কিছুই পেলাম না। এটি অত্যন্ত লজ্জার ও দুঃখজনক। পুরো কাউন্সিলটাই সিন্ডিকেট নির্ভর হয়ে গেছে। আমরা হাতেগোনা কয়েকজন মিলে সেটিকে প্রতিহত করতে পারবো না। কিন্তু একদিন এই অবিচারের ফল বিএনপি নিজেও পাবে।

এদিকে বাতিল হওয়া প্রার্থীদের প্রার্থিতা ফিরে পাওয়া নিয়ে আপিল কমিটির প্রধান শামসুজ্জামান দুদুর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি একে গুজব বলে উড়িয়ে দেন।

প্রসঙ্গত, আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে ২টা পর্যন্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভোট অনুষ্ঠিত হবে। ভোটে অংশ নেবেন সংগঠনটির সারাদেশের ১১৭টি ইউনিটের ৫৮০ জন কাউন্সিলর বলে জানা গেছে।

এই বিভাগের আরো খবর