সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
বিমসটেকের সঙ্গে কাজ করবে জাতীয় সংসদ : স্পিকার বেগম রোকেয়া দিবস আজ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ সালমান-ক্যাটরিনার বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সনু নিগমের গান এনডিসি গ্র্যাজুয়েটদের জ্ঞান উন্নয়নের কাজে লাগানোর আহ্বান ভিপি নুরকে কাজে লাগিয়ে চলছে বিএনপির অপরাজনীতি! চাঞ্চল্যকর মামলা নিবিড় তদারকির নির্দেশ আইজিপির বরিশালে ভেজাল মিশিয়ে তৈরি হয় ব্রান্ডের ভূষি বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মাছ দিয়ে পদ পাওয়া যাচ্ছে সিংড়া বিএনপিতে, কমিটি নিয়ে অসন্তোষ চরমে! মাদক সেবনকালে নয়াপল্টন এলাকা থেকে ৭ বিএনপি কর্মী আটক! পরকীয়ায় ব্যস্ত খালেদার আইনজীবী, জামিনে মনোযোগ নেই! নারীরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে এগিয়ে যাবেন নারীর স্বনির্ভরতা অর্জনে সকলকে একযোগে কাজ করতে রাষ্ট্রপতির আহবান সচিবালয়ের আশপাশে হর্ন বাজালেই জেল-জরিমানা পরস্পরের সালাম শুভেচ্ছা বিনিময়ের শ্রেষ্ঠ প্রথা মানবাধিকার দিবসে প্রকাশ্যে আসছেন এসিডদগ্ধ দীপিকা দেশের প্রথম আইটি বিজনেস ইনকিউবেটর নির্মাণকাজের উদ্বোধন শুরু হলো বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান বিজয়ীদের চলচ্চিত্র পুরস্কার তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী
৩৭

জেনে নিন জুমার দিনে দোয়া কবুলের বিশেষ মুহূর্তটি

প্রকাশিত: ৯ আগস্ট ২০১৯  

শুক্রবার বা জুমার দিন একটি গুরুত্বপূর্ণ ও তাৎপর্যবহ দিন। এ দিনের কিছু সময়ে আল্লাহ বান্দার দোয়া ফিরিয়ে দেন না বলে হাদিসে এসেছে। বিভিন্ন বর্ণনায় বিভিন্ন সময়ের কথা উল্লেখ হয়েছে। 

তবে জুমার দিনে দোয়া কবুল হওয়ার বিশেষ সময় কোনটি সে সম্পর্কে মতানৈক্য থাকলেও দোয়া কবুল হওয়ার ব্যাপারে কারোর দ্বিমত নেই।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, রাসূল (সা.) আমাদের সঙ্গে একদিন শুক্রবারের ফজিলত ও বৈশিষ্ট্য নিয়ে আলোচনা করছিলেন। তখন তিনি বলেছিলেন, ‘জুমার দিনে এমন একটি সময় আছে, সেই সময়টায় যদি কোনো মুসলিম নামাজ আদায়রত অবস্থায় থাকে এবং আল্লাহর কাছে কিছু চায়, আল্লাহ অবশ্যই তার সে চাহিদা বা দোয়া কবুল করবেন এবং এরপর রাস‍ূল (সা.) তার হাত দিয়ে ইশারা করে সময়টির সংক্ষিপ্ততার ইঙ্গিত দেন।’ (বুখারি)।

আবু দারদা ইবনে আবু মুসা আশআরি (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আমার পিতাকে বলতে শুনেছি, তিনি বলেন, আমি রাসূল (সা.)-কে বলতে শুনেছি, তিনি জুমার দিনের বিশেষ মুহূর্তটি সম্পর্কে বলেছেন, ইমামের মিম্বরে বসার সময় থেকে নামাজ শেষ করা পর্যন্ত সময়টিই সেই বিশেষ মুহূর্ত। (মুসলিম, মিশকাত)।

হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে ওমর (রা.) হতে বর্ণিত রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘ইমাম মিম্বরে বসা থেকে  নামাজ শেষ করা পর্যন্ত।’ (মুসলিম, ইবনু খুজাইমা, বয়হাকি)।

রাসূল (সা.) থেকে জাবের ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) বর্ণনা করেন, জুমার দিনে ১২ ঘণ্টা রয়েছে। তাতে এমন একটা সময়ে রয়েছে, যাতে আল্লাহর বান্দা আল্লাহর ক‍াছে যা চায় আল্লাহ তাই দেন। অতএব তোমরা আছরের শেষ সময়ে তা তালাশ করো। (আবু দাউদ, হাদিস নম্বর : ১০৪৮, নাসাঈ, হাদিস নম্বর : ১৩৮৯)।

আব্দুল্লাহ ইবনে সালাম (রা.) বর্ণনা করেন, শুক্রবারে আছরের পর থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত দোয়া কবুল হয়। বিখ্যাত সিরাতগ্রন্থ যাদুল মাআ’দ-এ বর্ণিত আছে, জুমার দিন আসরের নামাজ আদায়ের পর দোয়া কবুল হয়। (২/৩৯৪)।

ইমাম আহমদ (রহ.)-ও একই কথা বলেছেন। (তিরমিজির ২য় খণ্ডের ৩৬০ নম্বর পৃষ্ঠায় কথাটি উল্লেখ আছে)।

মোট কথা, জুমার দিনে বিশেষ একটি মুহূর্ত রয়েছে, যে সময় আল্লাহ তায়ালা বান্দার দোয়া কবুল করে থাকেন। এ সময় সম্পর্কে আরো কিছু অভিমত তুলে ধরা হলো-

জুমার নামাজে সূরা ফাতিহার পর ‌আমিন বলার সময়। আসর থেকে মাগরিব পর্যন্ত সময়ে। মুয়াজ্জিন আজান দেয়ার সময়। জুমার দিন সূর্য ঢলে পড়ার সময়। ইমাম খুতবা দেয়ার জন্য মিম্বরে দাঁড়ানোর সময়। উভয় খুতবার মধ্যবর্তী সময়। জুমার দিন ফজরের আজানের সময়। প্রত্যেক জুমায় আলাদা আলাদা সময়ে। 

গুরুত্বপূর্ণ ও নির্ভরযোগ্য কথা হলো, দোয়া কবুলের সময়টি পুরোদিনের ভেতর লুকিয়ে আছে। পুরোপুরি নির্ধারিত না করার উদ্দেশ্য হলো, বান্দা যেন জুমার দিন সর্বদা ইবাদত-বন্দেগি ও দোয়ায় মশগুল থাকে। আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করুন। আল্লাহুম্মা আমিন।

এই বিভাগের আরো খবর