সোমবার   ১৮ নভেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ৩ ১৪২৬   ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
হলি আর্টিসান মামলার রায় ২৭ নভেম্বর ‘সরকারি কাজে স্বচ্ছতার বিকল্প নেই’- স্পিকার প্রশ্নপত্র ফাঁসের কোনো অভিযোগ নেই- গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী এফআর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতি : বিএনপি নেতা ফারুকসহ ৩জন কারাগারে বরিশালে প্রাথমিক সমাপনীতে বসেছে ১ লাখ ৮৮ হাজার শিক্ষার্থী ছয় দিনের রিমান্ডে সম্রাট প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু: প্রস্তুত ২৯ লাখ শিক্ষার্থী আজ মজলুম জননেতা হামিদ খান ভাসানীর প্রয়াণ দিবস আমিরাতে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু আজ আমার বাসায় সমস্ত রান্না হয়েছে পেঁয়াজ ছাড়া- প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির টাকা দিয়ে ফুটানি চলবে না : প্রধানমন্ত্রী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল সম্পাদক বাবু বরিশালে হিজড়া জনগোষ্ঠীদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা মাদক ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে- শেখ হাসিনা পেঁয়াজ বিমানে উঠে গেছে কাল-পরশু এলেই দাম কমবে- প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী দুবাই যাচ্ছেন আজ স্বেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলন আজ মেসির জাদুতে ব্রাজিলকে হারাল আর্জেন্টিনা আয়কর দিলেন অর্থমন্ত্রী, রিটার্ন দাখিল প্রধানমন্ত্রীর
৩৮৪

জুম্মার দিন ও রাতের বিশেষ মুহূর্ত ও আমল

প্রকাশিত: ২২ নভেম্বর ২০১৮  

 

সূর্য ওঠার উজ্জ্বল দিনগুলোর মধ্যে উত্তম হলো জুম্মান দিন। এদিনে হজরত আদম আলাইহিস সালামকে সৃষ্টি করা হয়, তাকে জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং জান্নাত থেকে বের করা হয়ও এদিনেই। (মুসলিম)

এদিনে যে ব্যক্তি সুন্দরভাবে ওজু করে জুম্মার (নামাজের) দিকে যায়, নিরবে খুতবা শোনে, সে এ জুম্মা থেকে পরবর্তী জুম্মা ছাড়াও আরো অতিরিক্ত ৩ দিনের গোনাহ থেকে মুক্তি পায়। (মুসলিম)

আর যারা এ জুম্মার নামাজ পড়া থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখে আল্লাহ তাদের অন্তরে মোহর মেরে দেন এবং তাদেরকে গাফেলদের অন্তর্ভূক্ত করে নেন।’ (মুসলিম)

মনে রাখতে হবে: সপ্তাহের দিনগুলোর মধ্যে সেরা দিন যেহেতু জুম্মার দিন। হাদিসে এ জুম্মার দিন ও রাতের বিশেষ মুহূর্তের ঘোষণা এসেছে। বান্দা এ সময় আল্লাহর কাছে যা প্রার্থনা করে আল্লাহ ওই বান্দাকে তা দান করেন। জুম্মার দিন ও রাতের এ সময় সম্পর্কে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল।লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এ সময়ের ফজিলত বর্ণনা করে বলেন, ‘নিশ্চয় শুক্রবার একটি প্রহর (সময়) আছে, যে সময় কোনো মুসলিম দাঁড়িয়ে নামাজ পড়ে আল্লাহর কাছে যে কোনো কল্যাণের দোয়া করবে, আল্লাহ তাআলা অবশ্যই তাকে তা দান করবেন। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম নিজ হাতের দিকে ইশারা করে ওই সময়টি খুবই সংক্ষিপ্ত বলে দেখান।’ (বুখারি ও মুসলিম)

তবে প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম জুমআর দিন ও রাতের বিশেষ মুহূর্তটি নির্ধারণ করে দেননি। তবে সাহাবায়ে কেরাম ও তাবেয়িগণ এ বিষয়ে ভিন্ন ভিন্ন মত প্রকাশ করেছেন।

অধিকাংশের মতে, জুমআর দিন সূর্যাস্তের ঠিক পূর্ব মুহূর্তটি দোয়া কবুলের সময়। এ সময়টিতে যদি কোনো ব্যক্তি মাগরিবের নামাজের প্রস্তুতি নিয়ে নামাজের অপেক্ষায় বসে দোয়ায় মশগুল থাকে তবে আল্লাহ তাআলা ওই ব্যক্তির দোয়া কবুল করবেন।

অনেকে বলেছেন, ‘জুম্মার দিন ইমাম যখন খুতবা প্রদান শুরু করে, সে সময় থেকে জুমআর নামাজের সালাম ফেরানো পর্যন্ত সময়টিতে রয়েছে সে মুহূর্তটি।

প্রিয়নবি জুমআর দিনে তার প্রতি দরূদ প্রেরণের বিশেষ আমলে প্রতি উৎসাহ দিয়েছেন। হাদিসে পাকে এসেছে-

হজরত আওস ইবনে আওস রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, ‘তোমাদের দিনগুলোর মধ্যে উত্তম দিন হলো জুম্মার দিন। এদিন তোমরা আমার প্রতি বেশি বেশি দরূদ পাঠাও (পড়)। নিঃসন্দেহে তোমাদের পাঠানো (পঠিত) দরূদ আমার ওপর পেশ করা (পাঠানো) হয়।’ (আবু দাউদ)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে জুম্মার দিন ও রাতের বিশেষ মুহূর্ত লাভের প্রিয়নবি নির্দেশিত আমল করার জন্য খুতবা শোনা থেকে শুরু করে মাগরিব পর্যন্ত জিকির-আজকার, তাসবিহ-তাহলিল, দরূদ-ইসতেগফার এবং নামাজে কাটানোর তাওফিক দান করুন। আমিন।

এই বিভাগের আরো খবর