শনিবার   ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৯ ১৪২৬   ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর পৌনে চার কিলোমিটার সারা দেশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ইংরেজি উচ্চারণে বাংলা বলার সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের ভণ্ডপীরসহ ৯ জনের কারাদণ্ড প্রধানমন্ত্রী সব সময় শিক্ষাকে গুরুত্ব দেন: পরিকল্পনামন্ত্রী মুজিব বর্ষে নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী আসন্ন সেচ মৌসুমে লোডশেডিংয়ের শঙ্কা নেই : বিদ্যুৎ বিভাগ একুশে পদক হাতে তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি আজ একুশে পদক প্রদান করবেন প্রধানমন্ত্রী এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ জাপানের সঙ্গে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সুস্থ যুব সমাজের বিকল্প নেই : প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনর্বিবেচনা করা হবে : অর্থমন্ত্রী মুঠোফোন প্রতারক জিনের বাদশা গ্রেফতার করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে কান দিবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাগর তীরে উঁচু স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর
৭৪

চুইংগাম অসাবধানতাবশত গিলে ফেললে কি মারাত্মক বিপদ?

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০১৯  

চুইংগাম আসলে চুইং বা চিবানোর জন্য। খাওয়ার জন্য না। তারপরও মাঝে মধ্যে অনেকেই চুইংগাম অসাবধানতাবশত গিলে ফেলে। জানেন কি, চুইংগাম কীভাবে তৈরি করা হয়? 

সাধারণত এটি তৈরি হয় গাম বেস, চিনি, ফ্লেভার আর রং দিয়ে। তবে চুইংগাম গিলে ফেললে এটা নিয়ে এতোটা চিন্তা করার তেমন কিছুই নেই। কারণ অন্যসব খাবারের অবশিষ্টাংশের সঙ্গে এই চুইংগামও বেরিয়ে আসে বেশকিছু সময় পর।

অনেকেই বলে থাকেন, চুইংগাম পেটে সাত সাতটা বছর বসে থাকে! এসব পুরোপুরি ভুয়া তথ্য। চুইংগামে যেহেতু চিনি আর ফুডগ্রেড কালার আর ফ্লেভার থাকে সেগুলো আস্তে আস্তে আমাদের পরিপাকতন্ত্রের বিভিন্ন প্রক্রিয়া আর এনজাইমের প্রভাবে পরিপাক হয়ে যায়। 

বাকি থেকে যায় শুধু গামটা। এই গামটা তখন আর তেমন আঠালো থাকে না যে এটা পরিপাক হওয়ার সময় কোনো স্থানে আটকে যাবে। এর কারণ হলো পরিপাকতন্ত্র সবসময়ই চেষ্টা করে গলা দিয়ে নামা সব জিনিসই পরিপাক করতে। যার কারণে গামের আটকে যাওয়ার ক্ষমতাটা ততটা কার্যকরী থাকে না আর।

এরপরও গামটা আস্ত থাকার কারণে এটি ধীর গতিতে আস্তে আস্তে খাদ্যনালী অতিক্রম করে পাকস্থলী, সেখান থেকে ক্ষুদ্রান্তের বিভিন্ন অংশে অর্থাৎ ডিওডেনাম, জেজুনাম আর তারপর ইলিয়াম অতিক্রম করে। তারপর প্রবেশ করে বৃহদন্ত্রে।

পুরো বৃহদন্ত্র ঘুরে বেড়ানো শেষ হলে কোলনের শেষে মলাশয়ে এসে উপস্থিত হয়। সবশেষে মল ত্যাগের সময় বের হয়ে যায়। সাধারণত চুইংগাম গিলে ফেলার ২ থেকে ৩ দিন পর এটা বের হয়ে যায়। তবে হ্যাঁ, এটা পেটে থাকা অবস্থায় গোলযোগ সৃষ্টি আর বদহজম হওয়া স্বাভাবিক। কারণ এতে স্বাভাবিকভাবে পরিপাক কার্যক্রম ব্যাহত হয়।