শুক্রবার   ০৩ এপ্রিল ২০২০   চৈত্র ২০ ১৪২৬   ০৯ শা'বান ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আজ থেকে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান ঘরে বসে পড়াশোনা করতে হবে, শিক্ষার্থীদের প্রধানমন্ত্রী করোনায় খাদ্য ঘাটতি হবে না : কৃষিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখ‌ছেন প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কনফারেন্স পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার করোনায় আক্রান্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জনসমাগম করবেন না: প্রধানমন্ত্রী
১১৬

চরের বুকে ‘জোছনা উৎসব’

বরিশাল প্রতিবেদন

প্রকাশিত: ১২ ডিসেম্বর ২০১৯  

শুভসন্ধ্যার ত্রিমোহনা থেকে ফিরে: ‘‘কোদালে মেঘের মউজ উঠেছে গগনের নীল গাঙে/ হাবুডুবু খায় তারা-বুদবুদ, জোছনা সোনায় রাঙে/ তৃতীয়া চাঁদের ‘সাম্পানে’ চড়ি’ চলিছে আকাশ-প্রিয়া/ আকাশ-দরিয়া উতলা হ’ল গো পুতলায় বুকে নিয়া/ তৃতীয়া চাঁদের বাকী ‘তের কলা’ আব্ছা কালোতে আঁকা/ নীলিমা-প্রিয়ার নীলা ‘গুল রুখ’ অবগুণ্ঠনে ঢাকা।’’

কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘চাঁদনী-রাতে’ কবিতাটিতে জোছনা উৎসবের কেমন যেন মিল রয়েছে। চাঁদনি রাতের এ উৎসবে না আসলে সেটি আসলে উপলব্ধি করা যাবে না। তাই তো ভ্রমণপিয়াসী চাঁদনি রাতে ছুটাছুটিতে যারা মুগ্ধ হন তাদের জন্যই জোছনা উৎসব। 

বরগুনায় দেশের সর্ববৃহৎ জোছনা উৎসব অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর)। আগে ১৩ নভেম্বর উৎসবের দিন ঠিক থাকলেও ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে তা পিছিয়ে ১২ ডিসেম্বর নির্ধারণ করে জেলা প্রশাসন। পর্যটন শিল্পের অপার সম্ভাবনাময় বরগুনার নয়নাভিরাম সৌন্দর্যকে দেশ-বিদেশের পর্যটকদের কাছে তুলে ধরতে এ উৎসবে থাকছে নানা আয়োজন। 

এ বছরও বরগুনার পায়রা, বিষখালী ও বলেশ্বর নদী যেখানে সাগরে মিশেছে, সেখানেই নবগঠিত তালতলী উপজেলার নিশানবাড়িয়া ইউনিয়নের স্নিগ্ধ বেলাভূমি শুভসন্ধ্যার বিস্তীর্ণ বালুচরে পঞ্চম জোছনা উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। ১২ ডিসেম্বরের ভরা পূর্ণিমায় এখানেই জলজোছনায় একাকার হবে জোছনাবিলাসী হাজারও মানুষ। রয়েছে নয়নাভিরাম স্নিগ্ধ বনভূমি আশারচর, লালদিয়ারচর, হরিণঘাটার বন, বলেশ্বর নদের বিহঙ্গদ্বীপ, টেংড়াগিরির বনভূমি এবং শুভসন্ধ্যার বিচ পয়েন্টসহ অনেক আকর্ষণীয় বনবনানী ও নদনদীর মোহনা। এসব বনাঞ্চলে রয়েছে হরিণ, বানর, শূকরসহ শত প্রজাতির প্রাণী বৈচিত্র্য। 

এছাড়া বরগুনা জেলা থেকে নৌপথে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকত ও বিশ্বঐতিহ্য সুন্দরবনের অভয়ারণ্যের দূরত্ব মাত্র পাঁচ থেকে সাত কিলোমিটার। এর মধ্যে রয়েছে অনেক আকর্ষণীয় বনবনানী ও নদ-নদীর মোহনা। দেখা যাবে সূর্যাস্ত, পাখির কলরব আরও কত কি! 

জোছনা উৎসবকে ঘিরে ইতোমধ্যেই শুভ সন্ধ্যা সৈকতে বাহারি পণ্যের পসরা সাজানোর প্রস্তুতি শুরু হয়েছে। বরগুনা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শুভ সন্ধ্যা বেশ কয়েকবার পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ। 

১২ ডিসেম্বর বিকেল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত নদনদীর মোহনা ও শীতের হিম হাওয়ার কথা ভাবনায় রেখে এ উৎসবে ১০ বছরের কমবয়সী শিশুদের নিয়ে আসতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। যেহেতু দীর্ঘসময় বালুচরে ঘোরাঘুরি করতে হবে, তাই বেলাভূমিতে নিজেদের মতো করে আড্ডা জমাতে হলে ভ্রমণের আগে প্রয়োজনীয় মাদুর, বিছানার চাদর, শীতের কাপড়, বিশুদ্ধ পানি, গামছা বা তোয়ালে, টিস্যু পেপার ও হালকা খাবার সঙ্গে আনতে পরামর্শ দিয়েছে আয়োজক কমিটি। যারা ডাক্তারি পরামর্শে নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন তাদের অনুরোধ করা হয়েছে দরকারি সব ওষুধ সঙ্গে নেওয়ার জন্য।

আয়োজনক কমিটি জানায়, এবারের জোছনা উৎসবে বরগুনা থেকে চারটি দোতলা লঞ্চ সংযোজনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। দুপুর দেড়টায় বরগুনা লঞ্চঘাট থেকে লঞ্চটি ছেড়ে যাবে। খাগদন নদী হয়ে বাইনচটকীর স্নিগ্ধ বনভূমির পাশ দিয়ে কুমীরমারা আর গোড়াপদ্মার নয়নাভিরাম বনবনানীর কোল ঘেষে বিকেল ৫টার দিকে লঞ্চ পৌঁছাবে শুভসন্ধ্যার চরে। এরপর সেই স্নিগ্ধ বালুচরে শেষ বিকেলের ঘোরাঘুরির পর রাতভর জোছনার গান, রাখাইন নৃত্য, বাউল সঙ্গীত, মোহনীয় বাঁশির সুর, জাদু প্রদর্শনী, পুঁথিপাঠ এবং কবিতা আবৃত্তির সঙ্গে সঙ্গে জলজোছনায় অবগাহন হবে সবার।
 

জোছনা উৎসবের উদ্যোক্তা সোহেল হাফিজ বলেন, শহুরে সভ্যতায় আমরা পেয়েছি অনেক, সেই সঙ্গে হারানোর তালিকাও কম নয়। নাগরিক ব্যস্ততায় আমরা হারিয়েছি শ্রাবণের জলে সর্বাঙ্গ ভেজানোর সুযোগ। হারিয়েছি শরতের শিশিরে নগ্ন পায়ে হাঁটার সময়। হারিয়েছি রুপালি নদীতে হৈমন্তী পূর্ণিমায় জলজোছনায় অবগাহনের রোমাঞ্চকর অনুভূতি। সেসব হারানো সময়, সুযোগ আর স্মৃতির কথা ভেবেই বরগুনায় সূচনা হয়েছিল জোছনা উৎসবের। 

বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ বলেন, জোছনা উৎসব একটি ব্যতিক্রমী আয়োজন। এ উৎসবকে ঘিরে আমাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে আমাদের পূর্বনির্ধারিত তারিখে উৎসব হয়নি। পরে ১২ ডিসেম্বর উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। আশা করছি সব স্তরের মানুষের মন কাড়বে অনন্য এই উৎসব। 

এই বিভাগের আরো খবর