মঙ্গলবার   ১৫ অক্টোবর ২০১৯   আশ্বিন ২৯ ১৪২৬   ১৫ সফর ১৪৪১

বরিশাল প্রতিবেদন
ব্রেকিং:
স্বামী-স্ত্রীর পায়ে ১৮টি স্মার্টফোন ৬ দিনের অভিযানে বরিশাল বিভাগে ১৫৪ জেলের কারাদণ্ড অপমানে কাঁদলেন মৌসুমী সাগরে ফের ভারতীয় ১১ জেলে আটক বিয়ে-বিচ্ছেদের পর শরিয়তে সন্তান প্রতিপালনের অধিকার কার? মৃত্যুর আগে জাহ্নবীকে দেয়া মা শ্রীদেবীর দামি পরামর্শ যা ছিল বরিশাল স্টেডিয়ামে আসছে শ্রীলংকা যুদ্ধাপরাধ: আজ ৫ রাজাকারের রায় মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় গুরুত্ব স্পিকারের শাহজালালে বিপুল পরিমাণ ইউএস ডলার ও থাই বাথসহ আটক ১ বাবরি মসজিদের রায় ঘিরে অযোধ্যায় ১৪৪ ধারা বাংলাদেশের প্রথম হিজড়া ভাইস চেয়ারম্যান পিংকী হাইপ্রোফাইল দুর্নীতিবাজ: এবার বড় অভিযানে নামছে দুদক এক মঞ্চে ৯৩ বইয়ের মোরক উন্মচন করলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী ১১১ ফুটের গ্রহাণু ধেয়ে আসছে পৃথিবীর দিকে! প্লে স্টোর থেকে আবারও ১৫ অ্যাপ বাতিল কেমন মানুষদের বুদ্ধি বেশি হয়? বিপিএলের চার স্পন্সর প্রস্তুত একসঙ্গে নোবেল জিতেছেন যে দম্পতিরা হাওরের জমি পাবে না রাঘব বোয়ালরা -রাষ্ট্রপতি
১৩

গোপনে মাদক ব্যবসা, বহিষ্কার হলেন জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি!

প্রকাশিত: ৮ অক্টোবর ২০১৯  

সম্প্রতি সরকারের মাদক ও ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে সবচেয়ে পর্যদুস্ত অবস্থায় পড়ে আছে বিএনপি। এমন প্রেক্ষাপটে বিএনপির অঙ্গসংগঠনের নেতারা যারা মাদক ও জুয়ার সঙ্গে সম্পৃক্ত তাদেরকে দল থেকে সরিয়ে নিজেদের অবস্থান ইতিবাচক করতে সচেষ্ট হয়েছে।

এমন প্রেক্ষাপটে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি মনোয়ারা বেগম মনিকে বহিষ্কার করা হয়েছে। মহিলা দলের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। তবে মাদক ব্যবসার বিষয়টি সম্পূর্ণ এড়িয়ে গেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সভাপতি মনোয়ারা বেগম মনিকে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের প্রাথমিক সদস্য পদসহ সব পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, এখন থেকে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা দলের সিনিয়র সহ-সভানেত্রী ফাতেমা বাদশা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন।

সূত্র বলছে, দীর্ঘদিন যাবত মনোয়ারা বেগম মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলো। কেন্দ্র থেকে এটি নিয়ে কখনো কোন নির্দেশনা না দিলেও হঠাৎ সরকারের অভিযানের প্রেক্ষাপটে তড়িঘড়ি করে তাকে বহিষ্কার করা হলো।

চট্টগ্রাম মহানগরের একজন নেত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, দীর্ঘদিন থেকে তিনি গোপনে গোপনে মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। এটি নিয়ে সংগঠনের মধ্যে একটি নেতিবাচক আলোচনা থাকলেও তা নিয়ে কেন্দ্র বিশেষ পদক্ষেপ নেয়নি। আমরা বারবার অভিযোগ করেছি। সম্প্রতি অভিযানকে কেন্দ্র করে বিষয়টি নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়ে তাকে বহিষ্কার করা হলো।

এই বিভাগের আরো খবর